শঙ্কামুক্ত নয় এবারের দুর্গাপূজা

আগের সংবাদ

বলিউড ছেড়ে বুদ্ধের পথে বারখা

পরের সংবাদ

খরচ কমানোর ৫ কৌশল

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২২ , ১২:৩২ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২২ , ১২:৩২ অপরাহ্ণ

নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বাড়ছেই। সেই তুলনায় আয় খুব কমই বাড়ছে। তাই খরচ কীভাবে কমানো যায় সেটি নিয়ে অনেকেই ভাবছেন। চলুন জেনে নিই, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির এই সময়েও খরচ কমানোর ৫ কৌশল-

ব্যবহার করুন নতুন টাকার নোট

২০১২ সালে কনজ্যুমার রিসার্চ জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণায় বলা হয়েছে, বেশিরভাগ মানুষ যেকোনো জিনিস কেনার ক্ষেত্রে পুরোনো ও নোংরা টাকার নোটগুলো খরচ করে থাকেন, কেননা নতুন নোটের তাজা ভাবটা হারাতে চান না তারা।

প্রতীকী ছবি

গবেষণায় অংশগ্রহণকারীরা নতুন নোটের তুলনায় পুরোনো নোট খরচে বেশি আগ্রহী ছিলেন। সুতরাং, শপিংয়ে গেলে নতুন নোট খরচ করার চেষ্টা করুন। এতে আপনার খরচের আগ্রহ কমে যাবে।

তালিকা করুন

কেনাকাটার আগে তালিকা করে নিলে কি কিনবেন সেই বিষয়ে পরিকল্পনা এবং নিয়ন্ত্রণ থাকে। এতে করে বাড়তি খরচ কমানো সম্ভব হয়।

প্রতীকী ছবি

মার্কিন মনোবিজ্ঞানী এপ্রিল লেন বেনসন মনে করেন, তালিকা না করে শপিং মল কিংবা বাজারে গেলে এমন অনেক জিনিস কেনা হয়ে যায়, যেগুলো আপনার হয়তো এই মুহূর্তে দরকার নেই। লিস্ট ধরে ধরে কেবল প্রয়োজনীয় জিনিসগুলোই কিনুন পরিমাণ মতো। ফালতু খরচ কমে যাবে অনেকখানি।

দোকানে অতিরিক্ত ঘুরবেন না

কেনাকাটার সময় আপনি যত দোকান ঘুরবেন, আপনার কেনাকাটার পরিমাণ তত বাড়বে। এক সময় হয়তো আপনি আবিষ্কার করবেন, পুঁজির সিংহভাগই খরচ হয়ে গেছে। এর একটা কারণও রয়েছে। এর কারণ উল্লেখ করা হয়েছে ফোর্বস ম্যাগাজিনের এক প্রতিবেদনে। সেখানে বলা হয়েছে, অতিরিক্ত ঘোরাঘুরির কারণে অবচেতনভাবে আপনার পছন্দনীয় কোনোকিছু কেনার পেছনে যুক্তি দাঁড় করাতে থাকবে। ফলে খরচও বাড়তে থাকবে।

দামাদামি করবেন না

অনেক সময় কেনাকাটা করতে গিয়ে বিক্রেতার সঙ্গে দামাদামি করতে হয়। কিন্তু খরচ বাঁচাতে অপ্রয়োজনীয় জিনিসের দামাদামি না করাই শ্রেয়। মার্কিন বাজার বিশেষজ্ঞ ড. ইয়ারো বলেন, আপনার পরিবার বা বন্ধুদের জন্য কেনাকাটা করার পর এটা খুবই স্বাভাবিক যে, আপনার নিজের জন্যও কিছু কিনতে ইচ্ছা করবে। কিন্তু এক্ষেত্রে আপনি দামাদামি করে যে টাকাটা বাঁচিয়েছেন, নিজের জন্য কিছু কিনতে গিয়ে স্বভাবতই আপনি তার চেয়ে অনেক বেশি খরচ করে ফেলবেন।

খোশগল্প করবেন না

বিক্রেতারা অনেক সময় ভুলিয়ে-ভালিয়ে আপনার কাছে তাদের পণ্য বিক্রি করে তাদের আয় বাড়িয়ে ফেলতে পারে। এ জন্য হিসাববিজ্ঞানীরা মনে করেন, কেনাকাটার সময় বিক্রেতার সঙ্গে খোশগল্প করা উচিৎ নয়। তাছাড়া,ত মনোবিজ্ঞানের সূত্র বলে, বিক্রেতার সঙ্গে আপনি যত কথা বলেন, ততই কেনার আকাঙ্ক্ষা বাড়তে থাকে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়