সাফ জয়ীদের লাগেজ ভাঙল কে

আগের সংবাদ

কালো রংয়ের হাঁসের ডিম

পরের সংবাদ

মেয়াদোত্তীর্ণ রিএজেন্ট ব্যবহার

জীবন নিয়ে ছিনিমিনি: শেভরন ল্যাবকে জরিমানা

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২২ , ৯:০৬ পূর্বাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২২ , ৯:০৭ পূর্বাহ্ণ

হেপাটাইটিস, ক্যানসারসহ বিভিন্ন জটিল স্বাস্থ্য পরীক্ষায় মেয়াদোত্তীর্ণ রিএজেন্ট (রাসায়নিক দ্রব্য) ব্যবহার করে ভুয়া রিপোর্ট তৈরি করে আসছিল চট্টগ্রামের প্রসিদ্ধ শেভরন ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরি। ভুল স্বাস্থ্য পরীক্ষার রিপোর্টের কারণে রোগীদের যথাযথ চিকিৎসা দেয়া সম্ভব নয়, এমনকি রোগীর জীবন বিপন্ন হতে পারে। অথচ রোগীদের সঙ্গে ভয়াবহ প্রতারণা করে প্রতিষ্ঠানটি এতদিন তাদের জীবন নিয়েই ছিনিমিনি খেলছিল।

শেভরনের ল্যাবে এরকম মেয়াদোত্তীর্ণ রিএজেন্ট দিয়ে পরীক্ষার সময় হাতেনাতেই ধরেছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। এ অপরাধে এই প্রতিষ্ঠানকে লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রাম বিভাগীয় ও জেলা ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরের একটি অভিযানে মেয়াদোত্তীর্ণ কেমিক্যাল ব্যবহারের বিষয়টি জানা যায়।

অভিযান পরিচালনা করেন সংস্থাটির বিভাগীয় কার্যালয়ের উপপরিচালক মোহাম্মদ ফয়েজ উল্যাহ ও জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক নাসরিন আক্তার। অভিযান প্রসঙ্গে নাসরিন আক্তার বলেন, শেভরন ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে মেয়াদোত্তীর্ণ রি?জেন্ট দিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়ে থাকে। বিষয়টি প্রথম পর্যায়ে তারা অস্বীকার করলেও পরবর্তীতে আমরা সরজমিনে তা দেখতে পাই। অভিযানের সময় তিন তলার মূল ল্যাবে তল্লাশি করা হয়। তখন পরীক্ষা করার সময়ই মেয়াদোত্তীর্ণ রিএজেন্ট ব্যবহারের বিষয়টি হাতেনাতে ধরা পড়ে। পরীক্ষা চলার সময় ফ্রিজে সংরক্ষিত অবস্থায় আলফা ফ্রেটোপ্রোটিনসহ বিভিন্ন মেয়াদোত্তীর্ণ কেমিক্যাল পাওয়া যায়।

তিনি বলেন, এসব রিএজেন্ট দিয়ে শেভরন মরণঘাতী ক্যানসার, হেপাটাইটিস বি, সি ও নানা রোগের পরীক্ষা করছিল বলে ভোক্তা অধিকারের কর্মকর্তাদের কাছে স্বীকার করেছে শেভরন ল্যাবের দায়িত্বরত কর্মকর্তারা। এসব মেয়াদোত্তীর্ণ রিএজেন্ট ধ্বংসের পাশাপাশি শেভরন ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিকে এক লাখ টাকা জরিমানা ও সতর্ক করা হয়েছে। এছাড়া মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ বিক্রি করায় শ্রেষ্ঠা মেডিসিন কর্নার নামে একটি ওষুধের দোকানকেও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এ বিষয়ে মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. অনিরুদ্ধ ঘোষ বলেন, মেয়াদোত্তীর্ণ কেমিক্যাল ব্যবহার করলে রিপোর্ট ভুল হবে। পরীক্ষার রিপোর্ট যদি ভুল হয়, তাহলে চিকিৎসাও ভুল হবে। এতে ভোগান্তি হবে রোগীদের, সাধারণ জনগণের। তাই এ ব্যাপারটা নিয়ে কিছু বলার বা করার দায়িত্ব যাদের, তাদেরকেই এটি নিশ্চিত করতে হবে।

এদিকে নগরের পাহাড়তলী বার কোয়ার্টার এলাকায় অমিত ফুড প্রোডাক্টস কারখানায় অভিযান পরিচালনা করেছেন চসিক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মারুফা বেগম নেলী। গতকাল বৃহস্পতিবার অভিযানকালে অস্বাস্থ্যকর ও নোংরা পরিবেশে চনাচুর, বাদাম, ডালভাজা, মোয়া, মুড়ি, তিলের টফি ও পপকর্নসহ বিভিন্ন খাদ্যপণ্য উৎপাদন ও বাজারজাত করার অপরাধে ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়