মার্চের মধ্যে পিকে হালদারকে ফেরত দেবে ভারত

আগের সংবাদ

নতুন আইজিপি আবদুল্লাহ আল মামুন

পরের সংবাদ

শাহ মোয়াজ্জেমের স্মরণসভায় গয়েশ্বর

যে পন্থায় হোক ঐক্য হবেই

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২২, ২০২২ , ৫:১৩ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ২২, ২০২২ , ৫:৩১ অপরাহ্ণ

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, আজকে জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলার চেষ্টা করছে বিএনপি। যুগপৎ কিংবা যে পন্থায় হোক ঐক্য গড়ে তোলা হবে। ভোটাধিকার ফিরিয়ে দেয়ার দাবি আদায়ে খুব শিগগির এ বিষয়ে সুরাহা হবে।

বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবে স্বাধীনতা ফোরাম আয়োজিত বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান প্রয়াত শাহ মোয়াজ্জেমের স্মরণসভা ও বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

স্বাধীনতা ফোরামের সভাপতি আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহর সভাপতিত্বে ও সহ-সভাপতি ইশতিয়াক আহমেদ বাবুলের সঞ্চালনায় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা মনিরুল হক চৌধুরী, অধ্যাপক ড. মাহবুব উল্লাহ, জাতীয় দলের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সৈয়দ এহসানুল হুদা, এনডিপির মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, আনোয়ার হোসেন, শাহ মো. নেছারুল হক, মনিরুজ্জামান মনির, সাবেক ছাত্রদল নেতা কে এম চঞ্চল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

গয়েশ্বর বলেন, জাতীয় ঐক্যের মধ্যদিয়ে সরকারের পতন নিশ্চিত করা হবে। প্রথমে সরকার পতনের মাধ্যমে নির্বাচন আদায় করা হবে। এরপর আগামীর রাষ্ট্র মেরামতে ঐক্যবদ্ধ সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। সবাই মিলে সরকার হটিয়ে জবাবদিহিতামূলক সরকার গঠন করা হবে, রাষ্ট্রের অনেক সংস্কার প্রয়োজন। সম্মিলিত প্রয়াস প্রয়োজন।

সরকারের সমালোচনা করে গয়েশ্বর বলেন, যারা লুটপাটের মাধ্যমে সম্পদ লুণ্ঠন করে তারাই উন্নয়নের কথা বলে। স্বাধীন দেশ অন্ধকারে চলে যাচ্ছে। জনগণের অর্থ লুণ্ঠন করা, প্রতারণা করার ফল অনেক ভয়াবহ হয়েছে। যারা জঙ্গিবাদকে পুঁজি করে দেশটাকে লুটপাট করছে তাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ করা জরুরি। এসময় সরকারকে টিকিয়ে রাখতে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের অতি উৎসাহী ভূমিকা পালন থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানান তিনি।

সভায় নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান বলেন, আওয়ামী লীগ দেশের প্রথম চোর। তারাই প্রথম ব্যালট বাক্স চুরি করেছে স্বাধীনতার পর। ভোট ছাড়া ক্ষমতায় থাকায় আমরা এরশাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন করেছি। শেখ হাসিনাও এখন ভোট ছাড়া ক্ষমতায় আছেন। এরশাদ স্বৈরাচার ছিলেন, তার চেয়ে বেশি স্বৈরাচার এ সরকার। এরশাদ, আইয়ুব খানও এভাবে উন্নয়নের গল্প শুনিয়েছেন। সবাই একসঙ্গে রাস্তায় নামলে সরকারের পতন হবে। যুগপৎ আন্দোলনে সরকারের পতন ঘটাতে হবে।

তিনি বলেন, সরকার একটি দুর্বল সরকার। শুধু বিরোধী দলের ওপর সবল। যুক্তরাষ্ট্র-লন্ডনে গেছেন তাদের ম্যানেজ করতে। সেখানে গিয়ে বোঝাচ্ছেন আমরা ইভিএমে (ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন) ভোট করি। কিন্তু এ ইভিএম সেই ইভিএম না। বাংলাদেশের ইভিএম চুরির বাক্স। চুরি করার ইভিএম। এখানে ভোটের পর পেপার ট্রেইল বের হয় না।

শাহ মোয়াজ্জেম সম্পর্কে মান্না বলেন, তিনি ছিলেন ছাত্ররাজনীতির আইকন। শাহ মোয়াজ্জেমের নেতৃত্বে স্বাধীনতার পক্ষে লিফলেট বিতরণ করছিলাম। তার অসাধারণ সাহসিকতা ছিল, ছিল সত্য বলার প্রবণতা।

এমকে

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়