ব্রিটেনের নতুন রানি ক্যামিলা

আগের সংবাদ

ডুমুরিয়ায় বজ্রপাতে প্রাণ গেল দুই সহোদরের

পরের সংবাদ

দাইনুর সীমান্তে স্কুলছাত্র হত্যা

৪৮ ঘণ্টায়ও স্কুলছাত্রের মরদেহ ফেরত দেয়নি বিএসএফ

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৯, ২০২২ , ১০:৪০ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ৯, ২০২২ , ১০:৪০ অপরাহ্ণ

দিনাজপুরের দাইনুর সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে স্কুলছাত্র মিনার বাবুকে হত্যা করা হয়। ৪৮ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও পরিবারের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হয়নি।

হত্যার ঘটনার ৪০ ঘণ্টা পর বিজিবির পক্ষ থেকে ডাকা হলে শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে সদরের ৯নং আস্করপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু বকর ছিদ্দিক, সংরক্ষিত নারী সদস্য রুমানা পারভীন, নিহতের বাবা জাহাঙ্গীর আলম, নিহতের চাচাতো ভাই রুবেল হাসানসহ কয়েকজন বিজিবির খানপুর সীমান্ত ফাঁড়িতে যান। সেখানে তারা নিহতের ছবি, শরীরের চিহ্নসহ নানা তথ্য প্রদান করেন। সেসব বিএসএফর কাছে হস্তান্তর করবে বিজিবি। মেইলের মাধ্যমে বিএসএফকে সেগুলো দিয়ে সংবাদ পাঠানো হয়েছে বলে বিজিবি জানিয়েছে।

বিজিবি ফাঁড়ি থেকে বের হয়ে রুমানা পারভীন ও রুবেল হাসান জানান, বিজিবি ছবিসহ যেসব তথ্য সংগ্রহ করেছে তা বিএসএফ-এর কাছে মেইল করে পাঠিয়েছে। এরপর বিএসএফ-এর পক্ষ থেকে জানানো হবে কখন এবং কোথায় নিহতের মরদেহ হস্তান্তর করা হবে।

এদিকে নিহত হওয়ার দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হলেও মরদেহ ফিরে না পাওয়ায় আক্ষেপ প্রকাশ করেছেন পরিবারের সদস্যরা। ছেলের শোকে শয্যাশায়ী হয়ে পড়েছেন মা।

নিহতের একমাত্র বোন জান্নাতুল পারভীন বলেন, আমার ভাইকে বিএসএফ হত্যা করেছে। আমরা মরদেহ চাই। আমরা ভালোভাবে কাফন-দাফন করতে পারি যেন। আমার ভাইকে হত্যার বিচার চাই।

নিহতের মা মিনারা পারভীন বলেন, আমার বুক খালি করা হয়েছে। এই গুলির অর্ডার কে দিয়েছে? এই বর্ডার দিয়ে কেন ভারতের মাল পার হয়? ওদের মাল কেন বাংলাদেশে আসে? এইজন্য এই বাচ্চাগুলো মারা যায়। কারও মায়ের বুক যেন খালি না হয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে এই আমার দাবি।

মিনারের বাবা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমার ছেলেটার মরদেহ ফেরত চাই। আমি মাটি দিবো।

নিহত মিনারের চাচাতো ভাই রুবেল হাসান বলেন, আমার ভাইকে বিএসএফ গুলি করে মেরেছে। এতক্ষণ হয়ে যাচ্ছে মরদেহ ফেরত দিচ্ছে না। আমরা মিনারের মরদেহ দ্রুত ফেরত চাই এবং এই হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু বিচার চাই। বিজিবিও আমাদেরকে তেমন সহযোগিতা করছে না। আর প্রধানমন্ত্রী ভারতে গিয়ে যেদিন বললেন যে, সীমান্তে আর যেন হত্যা না হয় সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে, ওই রাতেই গুলি করা হলো। আমাদের জমি তো সীমান্তে, আমরা কেন সীমান্তে যেতে পারব না?

ওই ইউপির সংরক্ষিত নারী সদস্য রুমানা পারভীন বলেন, আমরাও চেষ্টা করছি যাতে করে দ্রুত মরদেহ আমাদের নিকট হস্তান্তর করে।

খানপুর সীমান্ত ফাঁড়ির দায়িত্বরত কর্মকর্তা মো. আনিস বলেন, এ ব্যাপারে অধিনায়কের সঙ্গে কথা বলেন। আমি কিছু জানি না।

গত বুধবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে জেলার সদর উপজেলার দাইনুর সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের গুলিতে মিনহাজুল ইসলাম ওরফে মিনার বাবু (১৬) নামে এক বাংলাদেশি স্কুলছাত্র নিহত হয়। সে সদর উপজেলার ৯নং আস্করপুর ইউনিয়নের ভিতরপাড়া এলাকার জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে। খানপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণিতে পড়ালেখা করত। গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয়েছে আরও একজন। এছাড়া অন্য একজন এখনো নিখোঁজ রয়েছেন।

এমকে

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়