নিউইয়র্কে বক্তৃতাকালে সালমান রুশদির ওপর ছুরি হামলা

আগের সংবাদ

খেলাপি ঋণে রেকর্ড : ব্যাংকিং খাতে শৃঙ্খলা ও সুশাসন জরুরি

পরের সংবাদ

ছায়ানটে মুগ্ধতা ছড়াল ‘পশ্চিমের রবি’

প্রকাশিত: আগস্ট ১২, ২০২২ , ১০:১৪ অপরাহ্ণ আপডেট: আগস্ট ১২, ২০২২ , ১০:১৫ অপরাহ্ণ

তিন দশকের পথচলায় ‘নৃত্যনন্দন’ মণিপুরী, ভরতনাট্যম ও ওড়িশী আঙ্গিকের শাস্ত্রীয় নৃত্যের মনোমুুগ্ধকর প্রযোজনার মধ্য দিয়ে দর্শক শ্রোতার হৃদয় জয় করেছে। অপরদিকে ‘আনন্দধারা আর্টস’ বিদেশের মাটিতে বসে ভালো গান শোনার আয়োজন করা এবং শ্রোতা তৈরির পাশাপাশি শিশুদের মধ্যে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির ধারাকে অক্ষুন্ন রেখে রবীন্দ্রনাথ ও রবীন্দ্রসঙ্গীত চর্চার মধ্য দিয়ে প্রবাসে বাংলা সংস্কৃতির ধারাকে প্রবাহিত রাখার কাজটি করে চলেছে ২০০৪ সাল থেকে।

শুক্রবার (১২ আগস্ট) সন্ধ্যায় ছায়ানট মিলনায়তনে এ দুই সঙ্গীত সংগঠন যৌথভাবে মেলবন্ধন ঘটাল বিলেতি গান, রবীন্দ্রনাথের পশ্চিমা সুরাশ্রিত গান, পাঠ ও নৃত্যের সমন্বয়ে ‘পশ্চিমের রবি’ শীর্ষক এক অনন্য সঙ্গীতায়োজনের মধ্য দিয়ে।

এই আয়োজনে সঙ্গীত পরিবেশন করেন প্রথিতযশা রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী ও সংগঠক ইমতিয়াজ আহমেদ, তার সঙ্গে পশ্চিমা সঙ্গীত পরিবেশন করেন উর্বি মধুরা, পূর্বা অধরা।

শিল্পীরা গেয়ে শোনান ‘কতবার ভেবেছিনু’, ‘ফুলে ফুলে ঢলে ঢলে’, ‘ও দেখবি রে ভাই’, ‘কালি কালি বলো রে’, ‘তবে আয় হবে আয়’, ‘আহা আজি এ বসন্তে’, ‘ প্রাণ ভরিয়ে তৃষা হরিয়ে’, ‘পুরনো সেই দিনের কথা’সহ বেশ কিছু গান। এর মধ্য দিয়ে শিল্পীরা যেন বাংলা আর পশ্চিমের সম্মিলন ঘটালেন।

আবৃত্তি ও পাঠ করেন একুশে পদকপ্রাপ্ত খ্যাতিমান আবৃত্তি শিল্পী ভাস্বর বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রখ্যাত আবৃত্তি শিল্পী রাশেদ হাসান। নৃত্য পরিবেশন করেন নৃত্যনন্দনের শিল্পীরা। নৃত্য পরিবেশনা বাড়িয়ে দিয়েছে অনুষ্ঠানের বাড়তি সৌন্দর্য।

অনুষ্ঠানটির পরিকল্পনা ও সঙ্গীত পরিচালনায় ছিলেন ইমতিয়াজ আহমেদ এবং নৃত্য পরিচালনায় ছিলেন প্রখ্যাত নৃত্যশিল্পী শর্মিলা বন্দোপাধ্যায় ও উদীয়মান নৃত্যশিল্পী সুদেষ্ণা স্বয়ম্প্রভা।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়