‘মুক্তিযোদ্ধা স্মার্ট আইডি কার্ড’পাচ্ছেন ২৪ হাজার ৭৬১ জন

আগের সংবাদ

তেলবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত, খুলনার সঙ্গে রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

পরের সংবাদ

আদাবরে পাঁচ বছরের শিশু ধর্ষণে আসামির যাবজ্জীবন

প্রকাশিত: জুলাই ২৮, ২০২২ , ৬:২৬ অপরাহ্ণ আপডেট: জুলাই ২৮, ২০২২ , ৬:২৬ অপরাহ্ণ

রাজধানীর আদাবরে পাঁচ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের মামলায় মো. সবুজ নামে একমাত্র আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন ট্রাইবুনাল। একই সঙ্গে এক লাখ টাকা অর্থদণ্ড, অনাদায়ে আরো ছয় মাসের কারাদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৮ জুলাই) নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৫ এর বিচারক সামছুন্নাহার মামলাটির রায় ঘোষণা করেন। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ এর ৯(১) ধারায় অভিযুক্ত করে আসামিকে এ সাজা দেয়া হয়। আসামির হাজতবাস থেকে প্রদত্ত কারাদণ্ড বাদ যাবে বলে রায়ের আদেশে বলা হয়। রায় ঘোষণার আসামি সবুজ আদালতে হাজির ছিলেন। সাজা পরোয়ানা দিয়ে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। সংশ্লিষ্ট আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর আলী আজগর স্বপন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

২০২০ সালের ৮ নভেম্বর আদাবর থানায় ভুক্তভোগীর মা স্বপ্না বেগম নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯ (১) ধারায় মামলাটি দায়ের করেন। মামলার পরদিন আসামী মো. সবুজকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মামলার এজাহারে বলা হয়, ২০২০ সালের ৮ নভেম্বর ঘটনার দিন সকালে মামলার বাদী ভুক্তভোগীর মা ও বাবা কাজের উদ্দেশ্যে বাইরে বের হন। বাসায় বাদীর মামা মো. ফিরোজ বাসায় থাকলেও সন্ধ্যায় ব্যক্তিগত কাজে তিনিও বাইরে বের হন। এরপর আসামি মো. সবুজ ভুক্তভোগী পাঁচ বছরের ওই শিশুকে ঘরে একা পেয়ে সন্ধ্যা ৬ টা ৩০ মিনিট থেকে ৭ টার মধ্যে মুখ চেপে ধরে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। সন্ধ্যায় শিশুটির মা ও বাবা বাসায় আসলে তাদের মেয়ের কাছ থেকে বিষয়টি জানতে পারেন। আসামী সবুজ শিশুটির ওপর অমানষিক ভাবে পাশবিক অত্যাচার করে বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়।

এরপর মামলাটি তদন্ত করে ২০২১ সালের ৩১ আগস্ট চার্জশিট দাখিল করা হয়। এরপর ২০২২ সালের ১০ জানুয়ারি মামলাটির চার্জগঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন আদালত। এরপর বিচার চলাকালে বিভিন্ন সময় ৯ জন সাক্ষীর মধ্যে ৯ জনই সাক্ষ্য দেন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়