ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ

আগের সংবাদ

থাকে শুধু উপচার, মুখোমুখি বসিবার, সুস্মিতা সেন

পরের সংবাদ

‘জাতীয় নৃত্যনাট্য উৎসব’

বৃষ্টিভেজা বুধবারের সন্ধ্যায় বুঁদ দর্শক

প্রকাশিত: জুলাই ২০, ২০২২ , ৯:৩০ অপরাহ্ণ আপডেট: জুলাই ২০, ২০২২ , ৯:৩১ অপরাহ্ণ

বৃষ্টিভেজা বুধবারের সন্ধ্যায় আজ বুধবার (২০ জুলাই) দর্শক বুঁদ হয়ে উপভোগ করেছেন নৃত্যনাট্য ‘কবর’, ‘প্রসঙ্গ ৪৭’ এবং ‘চন্ডালিকা’। নাচের মুদ্রার অনন্যতায় শ্রাবণের সন্ধ্যাটা সাজলো ভিন্ন রঙে। মিলনায়তনের বাইরে বৃষ্টিমুখর দিনের ভেজা আবহাওয়ায় অস্বস্তিকর নাগরিক জীবন। তবে, মিলনায়তনজুড়ে নৃত্যের অপরূপতায় বর্ণাঢ্য হয়ে উঠলো শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তন।

নৃত্যপটিয়সীদের নাচের ছন্দের সাথে তাদের বাহারি পোষাক রঙিন করে তুললো বৃষ্টিভেজা সন্ধ্যাকে। পরিবেশনার পরতে পরতে ছিল নান্দনিকতার ছোঁয়া। নাচের সাথে সুরের সঠিক সমীকরণে নান্দনিকতার গাঁথুনি স্পষ্ট ছিল গোটা মিলনায়তন। আর শিল্পের সেই ছোঁয়া ছুঁয়ে দিয়েছিল মিলনায়তনে আগত নৃত্যানুরাগী দর্শকদের।

বুধবার শিল্পকলা একাডেমিতে মঞ্চস্থ হওয়া তিনটি নৃত্যনাট্যের ভেতরকার দৃশ্যপট। ছবি: ভোরের কাগজ

প্রতিটি পরিবেশনা শেষে শিল্পীদের প্রতি করতালির বৃষ্টিও প্রমাণ করে দিয়েছিল দর্শকদের বিমোহিত ও বিনোদিত হওয়ার গল্প। এমন দৃশ্যকল্পই ছিল শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত তিনদিনব্যাপী জাতীয় নৃত্যনাট্য উৎসবের উদ্বোধনী সন্ধ্যায়। ঈদের দীর্ঘ ছুটির পরে সংস্কৃতি চর্চার প্রাণকেন্দ্র শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গনে যেন ফিরে এল প্রাণ।

মূলত তিনটি নৃত্যনাট্য পরিবেশনের মধ্য দিয়েই উদ্বোধন হলো তিনদিনের ‘জাতীয় নৃত্যনাট্য উৎসব’।

উদ্বোধনী সন্ধ্যার শুরুতে একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য দেন একাডেমির প্রযোজনা বিভাগের পরিচালক সোহাইলা আফসানা ইকো।

বুধবার শিল্পকলা একাডেমিতে মঞ্চস্থ হওয়া তিনটি নৃত্যনাট্যে নৃত্যরত শিল্পীরা। ছবি: ভোরের কাগজ

এর মধ্যে ছিল ‘কবর’, ‘প্রসঙ্গ ৪৭’ এবং ‘চন্ডালিকা’। প্রথমেই পরিবেশিত হয় পল্লী কবি জসীম উদ্দীনের ‘কবর’ কবিতা অবলম্বনে নৃত্যনাট্য ‘কবর’। দীপা খন্দকারের গ্রন্থনা, নৃত্য পরিকল্পনা ও নির্দেশনায় নৃত্যনাট্যটিতে অংশ নেন আবদুর রশীদ স্বপন, আতাউর রহমান মোহন, নিলয় পাল, ফারাহ শাহওয়ার ঝুন ঝুন, মেহেরীন, আব্দুস সাত্তার, সামিয়া রফিক, সুমন আহমেদ, সারাফ প্রমুখ। সংগীত পরিচালনায় ছিলেন সুজেয় শ্যাম, সংলাপে ছিলেন মুজিবুর রহমান দীলু এবং কন্ঠ সংগীতে ছিলেন রবীন্দ্রনাথ রায়। এরপর দ্বিতীয় পরিবেশনা ছিল কথক নৃত্য স¤প্রদায়ের নৃত্যনাট্য ‘প্রসঙ্গ ৪৭’। সাজু আহমেদের রচনা, সংগীত ও নৃত্য নির্দেশনায় এই নৃত্যনাট্যটিতে অংশ নেন ফাইজা বারসাত পূর্ণ, সাম্যদীপ, প্রভা, অভিজিৎ কুন্ডু কর্মকার, রামিম,রাদিফা, জারিন, শেওতি, ইমামা, প্রকৃতি, অয়োকা, বন্ধন, শ্রুতি, তন্বী প্রমুখ। নৃত্যনাট্যটির কথাকার ছিলেন প্রিয়াংকা সাহা। আসরের শেষ পরিবেশনা ছিল নৃত্যনাট্য ‘চন্ডালিকা’। অনিক বোসের পরিচালনায় ‘চন্ডালিকা’ হল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর রচিত এই নৃত্যনাট্যে অংশ নেন কস্তরী মুখার্জী এবং স্মিতা দে।

আগামী রবিবার (২৪ জুলাই) বিকেল পাঁচটা থেকে উৎসবের দ্বিতীয় দিনের আয়োজন শুরু হবে। ওয়ার্দা রিহাবের পরিচালনা ও ধৃতি নর্তনালয়ের পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত হবে ‘হাজার বছরের বাঙালি’। মাহবুব হাসান সোহাগের পরিচালনা ও আমরা কজন শিল্পীগোষ্ঠি বগুড়া’র পরিবেশনায় ‘বারামখানা’; নীলাঞ্জনা জুঁইয়ের পরিচালনা ও নৃত্যশৈল সিলেটের পরিবেশনায় ‘রূপান্তরের গান’ এবং সাহিদা রহমান সুরভীর পরিচালনা ও বহ্নিশিখার পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত হবে নৃত্যনাট্য ‘কুঞ্জ সাজাও গো’।

সোমবার (২৫ জুলাই) বিকেলে সমাপনী সন্ধ্যায় লুবনা মরিয়ম পরিচালিত ও সাধনা নৃত্যদলের পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত হবে ‘মায়ার খেলা’। কবিরুল ইসলাম রতন পরিচালিত ও নৃত্যলোক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের পরিবেশনায় ‘শ্যামা’; নিলুফার ওয়াহিদ পাপড়ি পরিচালিত ও নান্দনিক নৃত্য সংগঠনের পরিবেশনায় ‘মেহের নেগার’ এবং এনামুল হক বাচ্চু পরিচালিত ও নৃত্যবিহার এর পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত হবে নৃত্যনাট্য ‘রঙ্গিলা নায়ের মাঝি’।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়