সারাদেশে ৪,৪০৭টি গবাদি পশুর হাট, মাস্ক ছাড়া প্রবেশ নয়

আগের সংবাদ

করোনায় চারদিন পর মৃত্যুশূন্য, শনাক্তের হার ১৫.২৩

পরের সংবাদ

শিক্ষক হত্যাকারীকে গ্রেপ্তার দাবিতে ঢাবির পাঁচ শিক্ষার্থীর অনশন

প্রকাশিত: জুন ২৯, ২০২২ , ৫:২৮ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ২৯, ২০২২ , ৫:২৮ অপরাহ্ণ

সাভারের আশুলিয়ায় হাজী ইউনুছ আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারের হত্যাকারীকে গ্রেপ্তারের দাবিতে আমরণ অনশন শুরু করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচ শিক্ষার্থী। আমরণ অনশনে বসা পাঁচ শিক্ষার্থী হলেন নাঈম পারভেজ, মেহেদী হাসান, চৌধুরী শামীম আফফান, তরিকুল ইসলাম ও মোস্তফা কামাল রনি। নাঈম ও মেহেদী ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। শামীম, তরিকুল ও মোস্তফা ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র। তাঁরা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টারদা সূর্যসেন হলের শিক্ষার্থী।

বুধবার (২৯ জুন) বেলা সোয়া তিনটা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে পাঁচ শিক্ষার্থী আমরণ অনশন শুরু করেছেন। অনশনে বসা পাঁচ শিক্ষার্থী জানান, শিক্ষক উৎপল কুমারের হত্যাকারী গ্রেপ্তার না হওয়া পর্যন্ত তাঁরা আমরণ অনশন চালিয়ে যাবেন।

আশুলিয়ার হাজী ইউনুছ আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় দ্বিতীয় দিনের মতো বিক্ষোভ করেছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীর অনশনকারীদের একজন নাঈম পারভেজ বলেন, শিক্ষক হলেন জাতি গড়ার কারিগর। এমনই একজন শিক্ষক ছিলেন উৎপল কুমার সরকার। তাঁকে হত্যা করা হয়েছে। তাঁর হত্যাকারী গ্রেপ্তার না হওয়া পর্যন্ত আমাদের অনশন চলবে।

এর আগে গত শনিবার (২৫ জুন) হাজী ইউনুছ আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের মাঠে ছাত্রীদের ক্রিকেট টুর্নামেন্ট চলছিল। এ সময় মাঠে খেলা পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন উৎপল। দুপুর আড়াইটার দিকে স্কুলের ওই বখাটে ছাত্র সবার সামনে ক্রিকেট স্টাম্প হাতে নিয়ে উৎপলের মাথা ও পেটে বেধড়ক আঘাত করতে থাকে। বিষয়টি বোঝার আগেই রক্তাক্ত হন উৎপল। তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় নারী ও শিশু কেন্দ্র হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে সাভারের এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। পেটে অস্ত্রোপচার করা হয়। ১৬ ব্যাগ রক্ত দেওয়া হয় শরীরে। কিন্তু তাঁকে আর বাঁচানো যায়নি।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়