নির্জন কারাবাসে সু চি

আগের সংবাদ

ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া টাইগাররা

পরের সংবাদ

মালয়েশিয়াকে গোলবন্যায় ভাসাল সাবিনারা

প্রকাশিত: জুন ২৩, ২০২২ , ১০:৩৭ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ২৩, ২০২২ , ১০:৪৯ অপরাহ্ণ

যখনই সুযোগ পাচ্ছে চোখ ধাঁধানো ফুটবল উপহার দিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল। গত ডিসেম্বরে কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহি মুস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে ভারতকে হারিয়ে ইতিহাস রচনা করেছিল মারিয়া মান্ডারা। এবার সেই কমলাপুরেই মালয়েশিয়ার মতো শক্তিশালী দলকে ৬ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে সাবিনা খাতুনরা। ছয় ম্যাচ পর ৬ গোলের ব্যবধানে জয় অর্জন করে ঘুরে দাঁড়িয়েছে তারা। ঘরের মাঠে মালয়েশিয়ার বিপক্ষে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে শক্তিশালী মালয়েশিয়াকে পাত্তাই দেয়নি বাংলাদেশি মেয়েরা।

কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহি কামাল স্টেডিয়ামকে ক্ষণে ক্ষণে জাগিয়ে তুলেছে বাংলার মেয়েরা। এক এক করে প্রতিপক্ষের জালে ছয়বার বল জড়িয়েছে। শুধু গোল দিয়েই ক্ষান্ত থাকেনি মনিকা চাকমারা। মালয়েশিয়ার বিপক্ষে একটি গোলও হজম করেনি বাংলার বাঘিনীরা। ম্যাচের আগে দুই দলের ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ের দিকে তাকালে সহজেই অনুমেয় শক্তির বিচারে বাংলাদেশ থেকে যোজন যোজন এগিয়ে আছে মালয়েশিয়া। আন্তর্জাতিক ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা র‌্যাঙ্কিং অনুসারে মালয়েশিয়ার অবস্থান ৮৫তম স্থানে। যেখানে ৬১ ধাপ ব্যবধানে পিছিয়ে থেকে ১৪৬তম স্থানে আছে বাংলাদেশের মেয়েরা। র‌্যাঙ্কিংয়ে এরকম পার্থক্য থাকা সত্ত্বেও বৃহস্পতিবার ম্যাচে পূর্ণ আত্মবিশ্বাস নিয়ে খেলেছে মারিয়া মান্ডারা।

গোলদাতা আঁখিকে ঘিরে সতীর্থদের উল্লাস

র‌্যাঙ্কিংয়ের হিসাব-নিকাশকে পুরোপুরি উল্টে দিয়ে চালকে আসনে বসেছে সাহিদা খাতুনরা। বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহি কামাল স্টেডিয়ামে গতকাল ম্যাচের একদম শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ফুটবল উপহার দিয়েছে বাংলার মেয়েরা। ৪-৪-২ ফরম্যাট অনুসারে ক্ষণে ক্ষণে উঠেছে প্রতিপক্ষে রক্ষণভাগকের কাঁপিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশি ফরোয়াডরা। কিক অফের পরই আক্রমণে ওঠেছে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষের কাছ থেকে বল কেড়ে নিয়ে মনিকা চাকমা বলকে পাঠিয়ে দেন সিরাত জাহান স্বপ্নার কাছে। এরপর কাটব্যাকের সাহায্যে স্বপ্না বল দেন সানজিদা খাতুনকে। বলকে নিজের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে শট নিলেও রুখে দেন গোলরক্ষক। এরপর তৃতীয় মিনিটে সহজ গোলের সুযোগ নষ্ট করেন অধিনায়ক সাবিনা খাতুন।

সানজিদার নিচু ক্রসে গোলমুখ থেকে নেয়া সাবিনার শট ক্রসবারের উপর দিয়ে চলে যায়। একের পর এক আক্রমণে মালয়েশিয়ার রক্ষণকে চাপের মুখে ফেলে নবম মিনিটেই কাক্সিক্ষত সাফল্যের যাত্রা শুরু করে বাংলাদেশ। মারিয়া মান্ডার কর্নারে গোলরক্ষক আজুরিন বিনতে মাজলান ক্লিয়ার করতে ব্যর্থ হওয়ায় বল পেয়ে যায় আঁখি খাতুন। আলতো টোকায় বলকে জালে জড়িয়ে বাংলাদেশকে প্রথম লিড এনে দেন বাংলাদেশের রক্ষণভাগের এই ফুটবলার। এরপর দ্বাদশ মিনিটে থ্রো ইনের পর প্রতিপক্ষের ভুল পাসে বল পেয়ে যায় সানজিদা।

ডি-বক্সের মধ্যে ফাঁকা জায়গায় বল পেয়েও তাড়াহুড়ো করতে গিয়ে ক্রসবারের ওপর দিয়ে বলকে পাঠিয়ে দেন তিনি। এর ছয় মিনিট পর সতীর্থের পাসে সানজিদার কোনাকুনি শট আটকে দেন মালয়েশিয়ান গোলরক্ষক। ফিরে আসা বলে শট নিলেও পোস্টের বাইরে দিয়ে চলে যায় বল।

মালয়েশিয়ার গোলরক্ষককে পরাস্ত করে বল জালে জড়ান সাবিনা খাতুন

পর পর দুইবার লিড দ্বিগুণ করার সুযোগ নষ্ট হলেও ২৬ মিনিটে চোখ ধাঁধানো গোলে ব্যবধানকে দ্বিগুণ করেন অধিনায়ক সাবিনা খাতুন। ডানদিক থেকে স্বপ্নার পাস থেকে বল নিয়ে গোলরক্ষককে কাটিয়ে কোনাকুনি শটে দূরের পোস্ট দিয়ে জাল খুজে পান সাবিনা। একটু পরই তৃতীয় গোলের সুবাদে ম্যাচে চালকের আসনে বসে যায় বাঘিনীরা। ছোট করে কর্নার নেয়ার পর লং পাসের মাধ্যমে বক্সে বল পাঠান সাবিনা। দুই সতীর্থের কেউ হেড দিতে ব্যর্থ হওয়ার পর আঁখি খাতুনের প্লেসিং শট জালের ঠিকানা খুঁজে নেয়।

তিন গোল হজমের পর ম্যাচের ৩৬ মিনিটে প্রথমবার বাংলাদেশের রক্ষণে হানা দিয়েছে সফরকারী মালয়েশিয়া। তবে কোনোভাবেই গোল ব্যবধান কমাতে পারেনি তারা। সতীর্থের ক্রসে নুর শাফিকা বিনতে জয়নালের শট চলে যায় রুপনা চাকমার কাছে। এরপর ৪২ মিনিটে আবারও আক্রমণে বাংলাদেশ। বিপদসীমার বেশ বাইরে থেকে সাবিনার শট ক্রসবারে লেগে ফিরে এসেছে। তবে বিরতিতে যাওয়ার আগেই মালয়েশিয়ার জালে বাংলাদেশ চতুর্থবার বল পাঠিয়ে হালি পূরণ করে সিরাত জাহান স্বপ্না।

ফিফা র‌্যাংকিংয়ে ৬১ ধাপ এগিয়ে থাকা মালয়েশিয়াকে ৬-১ গোলে হারিয়েছে বাংলাদেশ

মাসুরার লম্বা বলে অফসাইডের ফাঁদ ভেঙে আক্রমণে যান সাবিনা। বক্সে প্রবেশ করে বল বাড়িয়ে দেন অপর প্রান্ত দিয়ে উঠে আসা সিরাত জাহান স্বপ্নার কাছে। পুরোপুরি ফাঁকা জায়গায় বল পেয়ে সহজেই গোল করেন স্বপ্না। ৪-০ এগিয়ে থেকে বিরতি থেকে ফিরেও আক্রমণের ধার কমায়নি সাবিনা খাতুনরা। আক্রমণের ধারা বজায় রেখে প্রতিপক্ষকে চাপে রাখতে পুরোপুরি সক্ষম হয়েছে বাংলাদেশ। সে তুলনায় মালয়েশিয়া কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারেনি।

৬৬ মিনিটে পঞ্চম গোলের দেখা পায় গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যরা। বক্সের ভিতরে মিডফিল্ডার মনিকা চাকমার টানা দুইবারের শট ব্লক হয়। তবে তৃতীয় প্রচেষ্টায় ঠিকই বলকে জালে জড়ান তিনি। ম্যাচের ৭৪তম মিনিটে মালয়েশিয়ার জালে ষষ্ঠ ও শেষবারের মতো বল পাঠিয়েছে বাংলার মেয়েরা। ঋতুপর্ণা চাকমার ক্রসে ফরোয়ার্ড কৃষ্ণা রানী সরকার হেড দিয়ে ষষ্ঠ গোল করেন। বাকি সময়ে আরো বেশ কয়েকবার আক্রমণে উঠলেও গোল ব্যবধান বাড়াতে পারেনি বাংলাদেশ। অপরদিকে, ৬১ ধাপ এগিয়ে থাকা মালয়েশিয়াও গোল ব্যবধান কমানোর সুযোগ পায়নি। আগামী ২৬ জুন মালয়েশিয়ার বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচটি খেলবে বাংলাদেশের মেয়েরা। গত ১৪ জুন এশিয়ান কাপের বাছাইপর্বে মালয়েশিয়ার কাছে ৪-১ গোলে হেরে এসেছে জামাল ভূঁইয়ারা। মেয়েদের এই জয় সেই হারের দুঃখ কিছুটা হলেও প্রশমিত হয়েছে। এর আগে একবারই মালয়েশিয়ার মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ। সেই ম্যাচে ২-১ ব্যবধানে জয় পেয়েছিল মালয়েশিয়া। মালয়েশিয়ার বিপক্ষে দুই ম্যাচের এই প্রীতি ম্যাচের সিরিজ সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সিলেটে আকস্মিক বন্যার ফলে কমালপুরের টার্ফেই ম্যাচ দুইটির আয়োজন করেছে বাফুফে।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়