মৃত নবজাতককে হাসপাতালে ফেলে নিরুদ্দেশ স্বজনরা

আগের সংবাদ

ঈদের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু ১ জুলাই

পরের সংবাদ

৯৯৯-এ কল করে খাবার পেল বানভাসি ৩২ পরিবার

প্রকাশিত: জুন ২২, ২০২২ , ২:৩৯ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ২২, ২০২২ , ২:৩৯ অপরাহ্ণ

তিনদিন ধরে অভুক্ত থাকায় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯-এ কল করে খাবার পেল বানভাসি ৩২ পরিবার। সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার সীমান্তবর্তী দুর্গম চাটিবহর কোনাগাঁও গ্রামে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯-এ একজন নারীর কল আসে। ওই কল সিলেট জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. লুৎফুর রহমানকে সংযুক্ত করা হয়েছিল। কল করা ওই নারীর নাম হনুফা বেগম (৪৫)।

পুলিশ কর্মকর্তা জানান, শুরুতে অপর প্রান্ত থেকে ওই নারীর কান্না শুনতে পাচ্ছিলেন তিনি। একপর্যায়ে তিনি হনুফা বেগমের ফোন নাম্বার চেয়ে নেন। তার বাড়ি সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার সীমান্তবর্তী দুর্গম চাটিবহর কোনাগাঁও গ্রামে।

জানা গেছে, ৯৯৯-এ কল করা ওই নারীর স্বামী রহমত আলী পেশায় দিনমজুর। হনুফার কলের পর পরই সিলেট জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. লুৎফুর রহমান কোম্পানীগঞ্জ থানা-পুলিশকে ওই নারী ও গ্রামটির বানভাসি ৩২ পরিবারের জন্য দ্রুত খাবার পাঠানোর নির্দেশনা দেন।

এরপর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আজিজুর রহমান, গোপেশ দাশ ও জাহাঙ্গীর আলমসহ কয়েকজন খাবার নিয়ে গ্রামটির উদ্দেশে নৌকায় করে রওনা দেন। রাত আটটার দিকে পুলিশের সদস্যরা গ্রামটিতে পৌঁছে অভুক্ত পরিবারগুলোর মধ্যে শুকনা খাবার বণ্টন করা হয়।

জরুরি নম্বরে কল করে হনুফা বেগম জানান, গত বুধবার থেকে বন্যা শুরু হয়। এরপর থেকেই বন্যার পানি ক্রমাগত বাড়তে থাকে। এ অবস্থায় গত শুক্রবার থেকে তাদের গ্রামের ৩২টি পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েন। বাড়িঘর, রাস্তাঘাট পানিতে তলিয়ে যায়। কূলকিনারা না পেয়ে গ্রামের পাশে থাকা বড় বড় কয়েকটি বালুবাহী স্টিলের নৌকায় আশ্রয় নেন। মোবাইল নেটওয়ার্কও অকার্যকর হয়ে পড়ে। এক সময় খাবারের মজুতও শেষ হয়ে যায়।

এ বিষয়ে কোম্পানীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আজিজুর রহমান বলেন, গ্রামটি কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার অধীন হলেও এর অবস্থান সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকায়। রাতের অন্ধকারে বন্যার পানি পাড়ি দিয়ে অভুক্ত পরিবারগুলোর কাছে খাবার পৌঁছে দিতে পেরে মনে স্বস্তি এসেছে।

সিলেটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. লুৎফুর রহমান বলেন, পুলিশ সদস্যরা এভাবে ভবিষ্যতেও মানুষের পাশে থেকে কাজ করতে চান।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়