আরও একবার অস্ত্র হাতে নেবার কবিতা শোনালেন সুবর্ণা

আগের সংবাদ

বিএনপি কেমন নির্বাচন চায় ইসিতে বলার পরামর্শ ফারুক খানের

পরের সংবাদ

ইউএনও রেজাউল করিমকে হাইকোর্ট

আপনার আচরণ সভ্য দেশের জন্য কলঙ্ক

প্রকাশিত: জুন ২১, ২০২২ , ৯:৩৪ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ২১, ২০২২ , ৯:৩৫ অপরাহ্ণ

আদালতের নোটিশ জারিকারকদের সঙ্গে অশোভন আচরণ ও ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে বিচারের হুমকি দেয়ার ঘটনায় ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. রেজাউল করিমের উদ্দেশ্যে হাইকোর্ট বলেন, আপনি যে আচরণ করেছেন তা সভ্য দেশের জন্য কলঙ্ক। আপনি একটা ছোট বিষয় হ্যান্ডেল করতে পারেন না। কীভাবে জনসেবা করবেন? একটি কথা মনে রাখবেন আইন আদালত আছে বলেই আপনি সম্মান পান। আপনি যদি আইন না মানেন আপনাকে কেউ মানবে না। আপনাকে ক্ষমা করলে আমরা আটকে যাব। সবার ওপরে আদালত। আদালতের আদেশ সবাইকে মানতে হয়।

মঙ্গলবার (২১ জুন) হাইকোর্ট ওই ইউএনওকে আরও জানান, আপনি আদালতের আদেশ মানেননি। আদালতের সমন নিয়ে নোটিশ জারিকারকরা আপনাদের কাছে গেছিল। আপনার তাকে ধন্যবাদ দেয়া উচিত ছিল। অথচ কী দুর্ব্যবহার না করলেন! কত অজুহাত দেখালেন!

নোটিশ জারি করতে যাওয়া আদালতের দুই কর্মচারী মো. কামাল হোসেন ও মেহেদী হাসান সঙ্গে দুর্ব্যবহার ও ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে বিচারের হুমকি দেয়ার ঘটনায় মঙ্গলবার হাইকোর্টে শুনানি হয়। শুনানি সময় বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ মন্তব্য করেন। আদালতে ইউএনও-নাজিরের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ ও ব্যারিস্টার মাহবুব শফিক। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়।

ইউএনও রেজাউল করিমকে উদ্দেশ্য করে হাইকোর্ট বলেন, আপনি একটি পক্ষ নিয়ে যে আচরণ করেছেন তা সভ্য দেশের জন্য একটি কলঙ্কজনক অধ্যায় হয়ে থাকবে। আপনি নিজের ভবিষ্যৎ নিজে নষ্ট করেছেন। আপনাকে আদালত অবমাননার ঘটনায় আদালতে আসতে হয়েছে। আপনার ক্যারিয়ারে একটি স্পট পড়ে গেল। আমরা যদি একটি লাইন লেখে দিই আপনার ক্যারিয়ার ধ্বংস হয়ে যাবে।

আদালত বলেন, আদালতের জারিকারকের সঙ্গে আপনাদের দুর্ব্যবহারের ঘটনা পত্রিকায় এসেছে। সাধারণ মানুষ কী ভাবছে জানেন? মানুষ ভাবছে বিচার বিভাগ আর নির্বাহী বিভাগের মধ্যে মারামারি লেগে গেছে। এটা শোভনীয় নয়। বিচার বিভাগ ও নির্বাহী বিভাগের মধ্যে সুসম্পর্ক থাকতে হবে। আদালত নাজির উকিল মিয়াকে উদ্দেশ করে বলেন, আপনি মূল অপরাধী। আপনি সিনক্রিয়েট করেছেন। খুব খারাপভাবে মিসগাইড করেছেন।

শুনানির শেষ পর্যায়ে আদালত ইউএনওকে আবার ডায়াসের সামনে আসতে বলেন। তাকে বলেন, ভবিষ্যতে এ ধরনের আচরণ করবেন না। আপনার দায়িত্ব-কর্তব্যের প্রতি নজর রাখবেন। আদালতকে সম্মান না করলে আপনি কখনও সম্মান পাবেন না।

পরে আদালত ইউএনও মো. রেজাউল করিম ও নাজির উকিল মিয়াকে ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি দেন। সেই সঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে জারি করা আদালত অবমাননার রুলের আদেশের জন্য আগামী রবিবার দিন ধার্য করেন।

নোটিশ জারি করতে যাওয়া আদালতের দুই কর্মচারীর সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগ বিষয়ে তার ভূমিকা কী ছিল সে বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে ইউএনও ও তার নাজির উকিল মিয়াকে গত ৭ জুন তলব করেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে রুলে তাদের বিরুদ্ধে কেন আদালত অবমাননার কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে না, তা জানতে চান হাইকোর্ট। সে বিষয়ে আজ শুনানি হয়। শুনানির শুরুতে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. রেজাউল করিম।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়