কুসিক নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হয়েছে: সিইসি

আগের সংবাদ

সাংবাদিকদের জন্য নতুন আইন হচ্ছে না : তথ্যমন্ত্রী

পরের সংবাদ

ঢাবিতে ‘আষাঢ় পার্বন ১৪২৯’ উৎসবমুখর পরিবেশে উদযাপিত

প্রকাশিত: জুন ১৫, ২০২২ , ৭:২০ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ১৫, ২০২২ , ৭:২০ অপরাহ্ণ

বর্ষা ঋতুকে বরণ করে নিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক সংসদের উদ্যোগে দিনব্যাপী কারুশিল্প মেলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ‘আষাঢ় পার্বন-১৪২৯’ উৎসবটি উৎসবমুখর পরিবেশে উদযাপিত হয়েছে।

বুধবার (১ লা আষাঢ় ১৪২৯) বিকেল পাঁচটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) মিলনায়তনে উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ প্রধান অতিথি এবং প্রখ্যাত নাট্য ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব জনাব ম হামিদ উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক সংসদের মডারেটর এবং গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সাবরিনা সুলতানা চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রদানকালে উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ বলেন, বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গল্প, কবিতা ও উপন্যাস থেকে আমরা নানাভাবে বর্ষা ঋতুর রূপ, বৈচিত্র ও সৌন্দর্য অনুধাবন করতে পারি। রবীন্দ্রনাথ বর্ষা নিয়ে যেসব লেখাজোকা করেছেন তার সবই রোমান্টিকধর্মী। বর্তমানে যারা শহরে জন্মগ্রহণ করেছে তাদের পক্ষে রবীন্দ্রনাথের সময়ের সেই গ্রামের দৃশ্য কল্পনা করা সম্ভব না। কারণ, যখন হীন ঘন বর্ষায় মেঘ অন্ধকার হয়ে নেমে আসে তখন সূর্য দেখা যায় না তখন শুধু মন খোলা যায়। এমন দৃশ্য এখন আর দেখা যায় না, তবে তার সামন্যটুকু দেখা মেলে গ্রামে।

এসময় তিনি আরো বলেন, আমরা আবহমান বাংলার সংস্কৃতিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি প্রধান দায়িত্ব। কারণ এদেশে মৌলবাদ, জঙ্গিবাদ, অসাম্প্রদায়িকতা, ধর্মাসক্তিপূর্ণ লোক এখনও রয়েছে। অসাম্প্রদায়িক মূল্যবোধ চর্চায় এবং দেশ ও সমাজে সম্প্রীতি বজায় রাখতে সংস্কৃতিচর্চার গুরুত্ব অপরিসীম।

অনুষ্ঠানে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুস, বিশিষ্ট নৃত্যশিল্পী ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শর্মিলা বন্দোপাধ্যায়, ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. সিকদার মনোয়ার মুর্শেদ, রিভাইভাল টি-এর ব্যাবস্থাপনা পরিচালক রাহাতুল আশেকিন এবং সাংস্কৃতিক সংসদের সভাপতি সাদিয়া আশরাফী থিজবী ও সাধারণ সম্পাদক জয় দাস বক্তব্য রাখেন।

উল্লেখ্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক সংসদ প্রথমবারের মত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও কারুশিল্প মেলা আয়োজনের মাধ্যমে আষাঢ় পার্বন উৎসবটি উদযাপন করেছে।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়