বাজেট বাস্তবায়নে চাই সর্বোচ্চ আন্তরিকতা

আগের সংবাদ

ভারতের সঙ্গে বহুমাত্রিক সম্পর্ক নিয়ে সতর্ক ঢাকা

পরের সংবাদ

আলামত সংরক্ষণ আইন সংশোধন জরুরি

প্রকাশিত: জুন ১৪, ২০২২ , ২:৪৬ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জুন ১৪, ২০২২ , ২:৪৬ পূর্বাহ্ণ

অপরাধ প্রমাণের জন্য যে কোনো মামলায় জব্দ করা আলামত খুবই গুরুত্বপূর্ণ। জব্দ তালিকায় থাকা সাক্ষীরা আদালতে সাক্ষ্য দিতে এসে আলামতগুলো শনাক্ত করেন। এ ক্ষেত্রে আলামত যদি নষ্ট হয়ে যায় অপরাধ প্রমাণ করা যাবে না। অথচ দেশের থানা ও আদালত চত্বরের খোলা আকাশের নিচে, বারান্দায় রাখা হয়েছে বিভিন্ন মামলায় জব্দ করা আলামত। মালখানায় স্থান সংকুলান না হওয়ায় এভাবে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে আলামত। চুরি হচ্ছে আলামত (জব্দ করা গাড়ির যন্ত্রাংশ)। দীর্ঘ সময় ধরে উন্মুক্ত স্থানে পড়ে থাকায় অনেক আলামত (গাড়ি) নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এসবই বিচারাধীন বিভিন্ন মামলার গুরুত্বপূর্ণ আলামত। মামলার দীর্ঘসূত্রতায় বছরের পর বছর পড়ে থেকে সঠিক সংরক্ষণের অভাবে এমন অবস্থা বলে গণমাধ্যমে খবর আসছে। জানা গেছে, দেশে মোট থানা ৬৬৪টি। এসব থানা নিজস্ব জমি ও স্থাপনার পাশাপাশি অনেক থানার কার্যক্রম চলছে ভাড়া করা বাড়িতে। থানাগুলোতে যে পরিমাণ জমি ও স্থাপনা রয়েছে তা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল হওয়ায় মালখানা বা আলমত সংগ্রহে রাখার জায়গা একেবারেই অপর্যাপ্ত। সড়ক দুর্ঘটনা, চোরাই পণ্য, মাদকদ্রব্য বহনসহ বিভিন্ন অভিযোগে পুলিশ জব্দ করে মোটরসাইকেল, ট্রাক, বাস, প্রাইভেটকার, সিএনজিচালিত অটোরিকশা, মাইক্রোবাস প্রভৃতি। জব্দ করার পর মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত এসব যানবাহন অযতেœ পড়ে থাকে থানা চত্বরে। মামলার দীর্ঘসূত্রতাই আমাদের সবচেয়ে বড় সমস্যা। মামলা নিষ্পত্তি হতে লাগে ১০-১২ বছর। এরপর চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে আদালত হয় গাড়ি মালিকের কাছে ফিরিয়ে দিতে বলেন, না হয় নিলামে বিক্রির আদেশ দেন। তাই আলামত সংরক্ষণের বিকল্প চিন্তা বের করতে হবে। গতকাল ভোরের কাগজে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে আইন, বিচার ও সংসদবিষয়কমন্ত্রী আনিসুল হক বলছেন, মামলার আলামত সংরক্ষণের জন্য আইন সংশোধনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। আইন পরিবর্তনের কাজ চলছে। এখন ডিজিটাল যুগ, আলামত হিসেবে কিছু জিনিস ভিডিও করে বা স্ট্রিল ছবি তুলে বা অন্য কোনোভাবে নমুনা রেখে বাকিগুলোর পরবর্তী কার্যক্রম সম্পন্ন করার কথা ভাবছে সরকার। এছাড়া আলামতগুলো নষ্ট হয়ে গেলে, মামলা নিষ্পত্তির পর নিলামে বিক্রি করা হলে উপযুক্ত মূল্য পাওয়া যাবে না। এতে সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এই আইনটি যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সংশোধন করে যুগোপযোগী করার বিষয়ে সরকারকে উদ্যোগী হতে হবে। এতে করে থানা ও আদালত চত্বরের সৌন্দর্য ফিরে আসবে। পাশাপাশি বিচারের ক্ষেত্রে আলামত নষ্ট হওয়ার শঙ্কাও দূর হবে। মামলার কাজও দ্রুত নিষ্পত্তি হবে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়