সংসদীয় সীমানা পুনর্বিন্যাসের জন্য প্রস্তুতি নিতে ডিসিদের চিঠি

আগের সংবাদ

ঢাবি শিক্ষক রহমত উল্লাহকে অব্যাহতির সিদ্ধান্ত স্থগিত

পরের সংবাদ

স্কয়ারের অঞ্জন চৌধুরীর জামিন আপিল বিভাগে বহাল

প্রকাশিত: জুন ৮, ২০২২ , ৪:১৩ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ৮, ২০২২ , ৪:১৩ অপরাহ্ণ

চাল মজুতের মামলায় স্কয়ার গ্রুপের স্বত্বাধিকারী অঞ্জন চৌধুরীকে ছয় সপ্তাহের আগাম জামিন আপিল বিভাগেও বহাল রয়েছে। বুধবার (৮ জুন) আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম এ আদেশ দেন।

আদালতে অঞ্জন চৌধুরীর পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মোমতাজ উদ্দিন ফকির, অ্যাডভোকেট সাঈদ আহমেদ রাজা। তাদের সহযোগিতা করেন ব্যারিস্টার বিভূতি তরফদার। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মেহেদী হাছান চৌধুরী।

গত সোমবার বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি সাহেদ নুরউদ্দিনের হাইকোর্ট বেঞ্চ আগাম জামিন আদেশ দিয়েছিলেন। গত ১ জুন দিনাজপুর সদরে স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজের গুদামে অভিযান চালিয়ে ৫ হাজার ১২৪ টন আতপ চাল জব্দ করে প্রশাসন। এ ঘটনায় করা মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে মিলের ইনচার্জকে।

দিনাজপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মর্তুজা আল মঈদ বলেন, উপজেলার ১ নম্বর চেহেলগাজী ইউনিয়নের গোপালগঞ্জ বাজারে কোম্পানিটির ছয়টি গুদামে গত ৩১ মে বিকেল থেকে রাত আড়াইটা পর্যন্ত এই অভিযান চালানো হয়। এ সময় মিলের ছয়টি গুদামে ৫ হাজার ১২৪ টন আতপ চাল পাওয়া যায়। তবে মিলের অনুমোদন রয়েছে মাত্র ৩১২ টন। সে হিসেবে মিলে বেশি মজুত ছিল চার হাজার টনের বেশি চাল।

কাগজপত্র ও মিলে চাল মজুতের হিসাব চাওয়া হলে মিলের ইনচার্জ জায়েদ হোসেন এ সময় কালক্ষেপণ করতে থাকেন। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত চলাকালে বৈদ্যুতিক সংযোগ বন্ধ করে মিলের কর্মকর্তারা পালানোর চেষ্টা করেন।

পুলিশ সদস্যরা তাদের ধরে নিয়ে আসেন। পরে রাত আড়াইটার দিকে মিলের ছয়টি গুদামে রাখা চাল উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের জিম্মায় দেয়া হয়। এ ব্যাপারে দিনাজপুর সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক বিপ্লব কুমার সিংহ রায় বাদী হয়ে মিলের স্বত্বাধিকারী অঞ্জন চৌধুরী ও মিলের ইনচার্জ জায়েদের নামে একটি অভিযোগ দিয়েছেন। মিলের ইনচার্জকে পুলিশে দেয়া হয়েছে। এত চাল জব্দ হওয়ায় এটির বিচার ভ্রাম্যমাণ আদালতে করা সম্ভব নয়। অভিযোগটি কোতোয়ালি থানায় নিয়মিত মামলা হিসেবে রেকর্ড করার জন্য পাঠানো হয়েছে। এছাড়া মিলের ইনচার্জ জায়েদকে পুলিশের হেফাজতে নেয়া হয়েছে। জব্দ চালের বাজার মূল্য প্রায় ৪১ কোটি টাকা।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়