সীতাকুণ্ড ট্রাজেডি: নিহত প্রতি পরিবার পাবে ২ লাখ টাকা

আগের সংবাদ

বাজেট অধিবেশন শুরু, সীতাকুণ্ড ট্রাজেডিতে সংসদের শোক

পরের সংবাদ

নিষিদ্ধ ও ভেজাল ওষুধ বিক্রয়: আড়াই কোটি টাকা জরিমানা আদায়

প্রকাশিত: জুন ৫, ২০২২ , ৬:২১ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ৫, ২০২২ , ৬:২১ অপরাহ্ণ

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছেন, জনস্বাস্থের নিরাপত্তার স্বার্থে ঔষধের গুনগত মান বজায় রাখা ও মান নিয়ন্ত্রণে সরকার সবসময় সচেতন রয়েছে। নকল, ভেজাল নিম্মমানের ঔষধ বিক্রয়, আনরেজিস্টার্ড ঔষধ উৎপাদন ও বাজারজাতকরণের সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে সরকার কঠোরতা অবলম্বন করেছে। এই ধারাবাহিকতায় ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তায় ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় নিয়মিতভাবে অভিযান পরিচালনা করে ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত মোবাইল কোর্টে ২ হাজার ৩৬টি মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং ২ কোটি ৬৭ লাখ ৫৪ হাজার ৩০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

রবিবার (৫ জুন) জাতীয় সংসদে ভোলা-৩ আসনের এমপি নুরুন্নবী চৌধুরীর লিখিত প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এ তথ্য জানান।

জাহিদ মালেক বলেন, এ সময়ে ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে ৯১টি এবং ড্রাগ কোর্টে ২১টি মামলা দায়ের করা হয়। ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে নভেম্বর মাস পর্যন্ত মোট ৪৬টি ঔষধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের উৎপাদন লাইসেন্স সাময়িক বাতিল করা হয়েছে।

এর মধ্যে হোমিওপ্যাথিক ঔষধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ১৭টি, হার্বাল ঔষধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ৪টি, এ্যালোপ্যাথিক ঔষধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ৫টি, ইউনানী ঔষধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ৬টি, আয়ুর্বেদিক ঔষধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ১৪টি। এছাড়া ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত মান-বহির্ভূত ও অন্যান্য অনিয়মের কারণে ১৩৬টি ঔষধের রেজিস্ট্রেশন সাময়িক বাতিল করা হয়েছে।

তিনি এছাড়াও ঔষধের অনিয়ম প্রতিরোধের লক্ষ্যে বিদ্যমান ঔষধ আইনকে আরো যুগোপযোগী ও কঠোর শাস্তির বিধান রেখে প্রস্তাবিত ঔষধ আইন-২০২১ অনুমোদনের জন্য প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানান তিনি।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়