মোহাম্মদপুর চেস ক্লাবের প্রথম আন্তর্জাতিক দাবা প্রতিযোগিতা

আগের সংবাদ

জাতীয় প্রেসক্লাবের অভ্যন্তরে সন্ত্রাসী তৎপরতা বন্ধের আহবান

পরের সংবাদ

সীতাকুণ্ড ট্র্যাজেডি

এখনও নিভেনি আগুন, ৪৯ নিহতের মধ্যে শনাক্ত ২৩, হবে ডিএনএ পরীক্ষা

প্রকাশিত: জুন ৫, ২০২২ , ১০:০৩ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ৫, ২০২২ , ১০:৩০ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে ভয়াবহ আগুন ও বিকট বিস্ফোরণের পর অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ফায়ার সার্ভিসের ১০ কর্মীসহ অন্তত ৪৯ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ৪ শতাধিক। এছাড়া এক পুলিশ কনস্টেবলের পা বিচ্ছিন্নসহ অন্তত ১৫ জন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। এখনও নেভেনি আগুন। তবে সেনাবাহিনী আশা করছে দ্রুতই আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হবে। এর মধ্যে এখন পর্যন্ত ২৩ জনের লাশ শনাক্ত করা হয়েছে। ৯ জনের লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে। গুরুতর আহত ৭ জনকে হেলিকপ্টারে করা ঢাকায় আনা হয়েছে। এদিকে আগামীকাল সোমবার থেকে পরিচয় শনাক্তের জন্য নিহতদের ডিএনএ পরীক্ষা শুরু হবে।

এ প্রতিবেদন লেখার সময়ে আগুন রবিবার (৫ জুন) রাত সাড়ে ৯ টা পর্যন্ত জ্বলছিল।

অন্যদিকে দগ্ধ ও আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছে প্রায় ২০০ মানুষ।

ফায়ার সার্ভিস বলছে, লাশের সারি আরও দীর্ঘ হতে পারে। আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা।

রবিবার (৫ জুন) সন্ধ্যায় ৪৯ জন মৃত্যুর বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াস চৌধুরী। তিনি জানান, আহত অনেকের অবস্থা গুরুতর, মৃত্যুর সংখ্যা আরও বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

শনিবার (৪ জুন) রাত সাড়ে ৯টার দিকে লাগা আগুন রবিবার (৫ জুন) রাত সাড়ে ৯ টা পর্যন্ত জ্বলছিল। আগুন নেভাতে সেনাবাহিনী ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা একযোগে কাজ করছেন। সেনাবাহিনীর ২৪ পদাতিক ডিভিশনের আরবান সার্চ অ্যান্ড রেসকিউ টিমের প্রধান আরিফুল ইসলাম হিমেল বলেন, সকাল থেকেই আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছি। এখনও পুরোপুরি নেভেনি। কিছু কনটেইনারে এখনও আগুন জ্বলছে। সেনাবাহিনীর প্রায় ২০০ জনবল এখানে কাজ করছে।

নিহতদের মরদেহের পরিচয় শনাক্তে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার হচ্ছে বলে জানিয়েছেন পিবিআই পুলিশ পরিদর্শক মো. মনির হোসেন। তিনি বলেন, প্রযুক্তির সহায়তায় লাশগুলোর পরিচয় শনাক্ত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। আঙুলের ছাপের মাধ্যমে পরিচয় শনাক্তের চেষ্টা চলছে। ইতোমধ্যে ২৩ জনের পরিচয় শনাক্ত হয়েছে। যাদের আঙুলের ছাপ নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না তাদের ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে শনাক্ত করা হবে। এ পরীক্ষা আগামীকাল সোমবার থেকে শুরু হবে।

ভয়াবহ এ দুর্ঘটনায় নিহত ২৩ জনের নাম জানা গেছে। তারা হলেন : বাঁশখালী উপজেলার মুবিনুল হক (২৪), মো. মহিউদ্দিন (৩৪), দক্ষিণ বালিয়াপাড়ার হাবিবুর রহমান (২৩), চালিয়াপাড়ার রবিউল আলম (১৯), তোফায়েল আহমেদ (২৩), মো. আলাউদ্দিন (৩৫), মো. সুমন (২৪), ইব্রাহিম (২৭), মো. নয়ন (২২), দক্ষিণ হালিশহর এলাকার হারুনুর রশিদ (৩৫), সামসুল হকের ছেলে মনিরুজ্জামান (৩২), ফারুক জমাদার (৫৫), শাহাদাত উল্লাহ (৩০), শাহাদাত হোসেন (২৯), তৌহিদুল হাসান (৪১), রিদুয়ান আহমেদ (২৪), শাকিল তরফদার (২২), নিপন চাকমা (৪৫), শাহাদাত উল্লাহ জমাদার (৩৬), কামরুল মিয়ার ছেলে রানা মিয়া (২২), আফজাল (২০) ও সালাউদ্দিন কাদের (৫০)।

পরিচয় মিলেছে ফায়ার সার্ভিসের ৪ কর্মীর : বিস্ফোরণের ঘটনায় নিহত ফায়ার সার্ভিসের ৭ সদস্যের মধ্যে ৪ জনের পরিচয় শনাক্ত হয়েছে। আগ্রাবাদ ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার শহিদুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। শনাক্তকৃতরা হলেন- লিডার নিপুন চাকমা, নার্সিং অ্যাটেনডেন্ড মনিরুজ্জামান, ফায়ার ফাইটার আলাউদ্দীন ও শাকিল।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়