কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েও ফিরতে পারেনি ভারতীয় ৫ নাগরিক

আগের সংবাদ

শিল্পকলায় বঙ্গবন্ধু ও রূপসী বাংলা আলোকচিত্র প্রদর্শনী

পরের সংবাদ

মতবিনিময় সভায় বায়রা নেতৃবৃন্দ

২৫ জনের সিন্ডিকেটের কব্জায় মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার

প্রকাশিত: মে ৩১, ২০২২ , ৮:৫৪ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ১, ২০২২ , ১২:০২ পূর্বাহ্ণ

মালয়েশিয়ায় জনশক্তি রপ্তানিতে ২৫ জনের সিন্ডিকেটকে সুযোগ দেওয়া হলে দুই সহস্রাধিক রিক্রুটিং এজেন্সির মালিক কাফনের কাপড় পরে প্রবাসী কল্যাণ ভবন এর সামনে অবস্থান নেবে। এই বাজার সিন্ডিকেট মুক্ত হলে ১ লাখ ২০ হাজার টাকায় সবাই জনশক্তি রপ্তানি করতে পারবে। আর সিন্ডিকেটের কব্জায় গেলে শ্রমিকদের গুনতে হবে চার থেকে সাড়ে চার লাখ টাকা। ২ জুন জয়েন্ট ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করতে হবে। বৈঠকে মালয়শিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী দাতুক সেরি এম সারাভানান এবং বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ ও কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহ্মেদ নেতৃত্ব দিবে। রিক্রুটিং এজেন্সি মালিকরা ওই বৈঠকে সিন্ডিকেট মুক্ত মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার সবার জন্য উন্মুক্ত করার দাবি জানান।

মঙ্গলবার (৩১ মে) সন্ধ্যায় হোটেল শেরাটনে বায়রা সিন্ডিকেট বিরোধী মহাজোট এক মতবিনিময় সভার আয়োজন করে। স্বল্প ব্যয়ে মর্যাদাপূর্ণ অভিবাসনের জন্য সকল বৈধ রিক্রুটিং এজেন্সির মাধ্যমে মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার মুক্ত করার জন্য এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বায়রার সাবেক সভাপতি আবুল বাশার এর সভাপতিত্বে এ সময় বক্তব্য রাখেন পার্লামেন্টারি ককাস ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী এমপি, সংসদ সদস্য সৈয়দা রুবিনা আক্তার মীরা, সাবেক সংসদ সদস্য সেক্রেটারি পার্লামেন্টারি ককাস মেহজাবিন খালেদ, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, বায়রার সাবেক সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা নূর আলী, বায়রার সাবেক মহাসচিব আলী হায়দার চৌধুরী, শামিম আহ্মেদ চৌধুরি নোমান, সেন্টার ফর এনআরবি চেয়ারম্যান এস এম সেকিল চৌধুরী, রামরুর নির্বাহী পরিচালক সি আর আবরার, রামরুর চেয়ারম্যান ড. তাসনিম সিদ্দিকী, অভিবাসন বিশেষজ্ঞ শরিফুল হাসান, বায়রার সাবেক সিনিয়র ভাইস-প্রেসিডেন্ট শাহাদাত হোসেন, ওয়ারবীর চেয়ারম্যান সাইফুল হক প্রমুখ। বক্তারা সিন্ডিকেটের নায়ক দাতু শ্রী আমিন এবং বাংলাদেশি অংশীদার রুহুল আমীন স্বপনের বিচার চান। তারা অন্য ১৩টি সোর্স কান্টির মতো বাংলাদেশের সবার জন্য উন্মুক্ত করার দাবি করা হয়। যারা সিন্ডিকেট করছেন যারা দেশ বিরোধী কাজ করছে উল্লেখ করে বলা হয়, এর সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তার করতে হবে। এই ২৫ জনকে কারা প্রশ্রয় দিচ্ছে তাদের চিহ্নিত করার দাবি জানানো হয়।

মালয়েশিয়ার বাজার সিন্ডিকেট মুক্ত না হলে প্রয়োজনে বাজার বন্ধ রাখার আহ্বান জানানো হয়। এর সঙ্গে মালয়েশিয়ার যারা জড়িত তাদেরকে চিহ্নিত করার দাবি জানিয়ে বায়রা নেতৃবৃন্দ বলেন, সেখানে কোনো সিন্ডিকেট নেই অথচ এখানে করা হচ্ছে সিন্ডিকেট। এই চক্র ইতিমধ্যেই ইন্দোনেশিয়ায় পিছু হটেছে। সেন্টিকেট করা হলে মালয়শিয়ায় বাংলদেশি শ্রমিকদের যে চাহিদা রয়েছে তা কখনোই পূরণ হবে না।

সিন্ডিকেট করা হলে দেশের সুনাম নষ্ট হবে, শ্রমবাজারে দেখা দিবে অস্থিরতা এবং অভিবাসন ব্যয় বাড়বে। সামনের মালয়েশিয়া নির্বাচন, এর আগেই সিন্ডিকেট মুক্ত বাজার উন্মুক্ত করতে হবে। ২ জুনের জয়েন্ট ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকের আগেই বায়রা নেতৃবৃন্দ সার্বিক পরিস্থিতি জানিয়ে প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী সঙ্গে দেখা করে বৈঠক করবেন।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়