কুসিক ভোট: ২১ প্রার্থী দেখলেন ইভিএম কাস্টমাইজেশন

আগের সংবাদ

ভোরের কাগজের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার দাবি, ক্ষেতলালে মানববন্ধন

পরের সংবাদ

সোহেল চৌধুরী হত্যা

মামলার কেস ডকেট দাখিলের নির্দেশ ট্রাইব্যুনালের

প্রকাশিত: মে ৩০, ২০২২ , ৬:০২ অপরাহ্ণ আপডেট: মে ৩০, ২০২২ , ৭:৩৮ অপরাহ্ণ

২৩ বছর আগে ১৯৯৮ সালের ১৮ ডিসেম্বর সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত নব্বই দশকের জনপ্রিয় চিত্রনায়ক সোহেল চৌধুরী হত্যা মামলার কেস ডকেট দাখিলের জন্য শেষবারের মতো সময় দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। সোমবার (৩০ মে) ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক জাকির হোসেন আগামী ১৫ জুন তারিখে অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ পরিদর্শক ফরিদ উদ্দিনকে মামলার কেস ডকেট দাখিলের জন্য আদেশ দেন। মূলত কেস ডকেট হলো মানচিত্র, সূচিপত্র, রাষ্ট্রপক্ষের ১৬১ ধারায় জবানবন্দির নথিসহ অন্যান্য কাগজপত্র।

আজ আদালতে মামলার কেস ডকেট দাখিল করার জন্য দিন ধার্য ছিল। তবে ফরিদ উদ্দিন দাখিল করতে না পারায় শেষবারের মতো সময় দেন আদালত। এছাড়া এদিন সোহেল চৌধুরী হত্যা মামলার এক নাম্বার আসামি আশিষ রায় চৌধুরী ওরফে বোতল চৌধুরী ও সানজিদুল ইসলাম ইমন জামিন চেয়ে আবেদন করেন। তবে তাদের জামিন নামঞ্জুর করেন বিচারক।

১৯৯৮ সালের ১৮ ডিসেম্বর বনানীর ১৭ নম্বর রোডের আবেদীন টাওয়ারে ট্রাম্পস ক্লাবের নিচে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত হন সোহেল চৌধুরী। ওই ঘটনায় তার ভাই তৌহিদুল ইসলাম চৌধুরী গুলশান থানায় হত্যা মামলা করেন। নেশার জগতের অপরাধীদের সঙ্গে দ্বন্দ্বের জেরে সোহেল চৌধুরী খুন হন বলে প্রাথমিক তদন্তে উঠে আসে। জানা যায়, সোহেল চৌধুরী ভালোবেসে ওই সময়ের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা পারভীন সুলতানা দিতিকে বিয়ে করেছিলেন। বিয়ের কিছুদিন পর সম্পর্কে ফাটল ধরলে মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে নেশার জগতে জড়িয়ে পড়েন সোহেল। সেই জগতের অপরাধীদের সঙ্গে দ্বন্দ্বের জেরেই খুন হন তিনি।

দীর্ঘ তদন্ত শেষে ১৯৯৯ সালের ৩০ জুলাই ডিবির সহকারী কমিশনার আবুল কাশেম ব্যাপারী ৯ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট জমা দেন। এ মামলায় ২০০১ সালের ৩০ অক্টোবর আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন।

রি-আরএ/ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়