রিয়াল মাদ্রিদ-লিভারপুল: প্যারিসে কার হাতে উঠবে শিরোপা

আগের সংবাদ

মিডল অর্ডারে অনবদ্য লিটন

পরের সংবাদ

কোয়ার্টার ফাইনালে লায়লা

প্রকাশিত: মে ২৭, ২০২২ , ১১:০২ অপরাহ্ণ আপডেট: মে ২৭, ২০২২ , ১১:০২ অপরাহ্ণ

ফ্রেঞ্চ ওপেনে শুক্রবার ক্যারোলিনা মুচনোভাকে ২-১ সেটে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছেন আমেরিকান টেনিসার আমান্ডা এনিসিমোভা। ২১ বছর বয়সি আমেরিকান এই টেনিসার বর্তমানে নারী টেনিসারদের র‌্যাঙ্কিংয়ে ২৮তম স্থানে আছেন। আমেরিকান এই টেনিসর ১৪ বছর বয়সে ফ্রেঞ্চ ওপেনের নারী এককের প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন। এরপর ২০১৯ সালে এই টুর্নামেন্টের সেমিফাইনালও খেলেছেন। ফ্রেঞ্চ ওপেনের নারী এককের তৃতীয় রাউন্ডে শুক্রবার ক্যারোলিনাকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে পদার্পণ করেছেন। প্রথম দুই রাউন্ডে সহজ জয় পেলেও তৃতীয় রাউন্ডে এসে প্রথম সেটেই বেশ ঘাম ঝরাতে হয়েছে তার। এরপরও ৭-৬ ব্যবধানে হেরেছেন মুভনোভার বিপক্ষে। এরপর দ্বিতীয় সেটে সমতায় ফিরেছেন আমান্ডা। মুচনোভাকে ৬-২ পয়েন্টের ব্যবধানে হারিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর পরের সেটেও আধিপত্য বজায় রেখেছেন আমান্ডা। তিন পয়েন্ট অর্জন করার পর আমান্ডাকে ওয়াকওভার দিয়ে দেন মুচনোভা। আমান্ডা ফ্রেঞ্চ ওপেনের এই আসরের প্রথম রাউন্ডে সাবেক নাম্বার ওয়ান টেনিসার নাওমি ওসাকাকে হারিয়েছেন। এরপর দ্বিতীয় রাউন্ডে দোন্না ভেকিচকেকে পরপর দুই সেটে হারিয়ে তৃতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করেছেন।

অন্যদিকে বেলিন্ডা বেনসিককে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছেন কানাডিয়ান টেনিসার লায়লা অ্যানি ফার্নান্দেজ। বেসিকের বিপক্ষে প্রথম সেটেই ৭-৫ ব্যবধানে জয় পায় ফার্নান্দেজ। তবে দ্বিতীয় সেটে সমতায় ফিরেন বেনসিক। ফার্নান্দেজকে হারিয়ে দেন ৬-৩ ব্যবধানে। এরপর সেট নির্ধারণী ম্যাচে আবারো ৭-৫ ব্যবধানে জয় তুলে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেন বেলিন্ডা বেনসিক।

ফরাসি ওপেনের তৃতীয় রাউন্ড থেকে ছিটকে গেছেন কাইয়া কানেপি। কোকো গফের বিপক্ষে পর পর দুই সেটে ৬-৩ ও ৬-৪ পয়েন্ট ব্যবধানে হেরে কোয়ার্টার ফাইনালে পদার্পণ করতে পারেননি তিনি।

দিনের অন্য ম্যাচে এলেনা ওস্তাপেনকে হারিয়ে তৃতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করেছেন অ্যালাইজ কর্নেট। ফরাসিদের লাল কোর্টে দুজনেই লড়াই করেছেন সমানে সমানে। প্রথম সেটে কর্নেটের ৬ পয়েন্টের বিপরীতে কোনো পয়েন্ট অর্জন করতে না পেরে পিছিয়ে যান এলেনা। তবে দ্বিতীয় সেটে কর্নেটকে হারিয়েছেন ৬-১ পয়েন্টের ব্যবধানে। সমতায় ফেরার এমন আধিপত্য তৃতীয় সেটে ধরে রাখতে চাইলেও শেষ পর্যন্ত পারেননি তিনি। অ্যালাইজ কর্নেটের ৬ পয়েন্টের বিপক্ষে মাত্র ৩ পয়েন্ট অর্জন করতে পেরেছেন। অ্যালাইজ কর্নেট ফ্রেঞ্চ ওপেনের ২০১৫ ও ২০১৭ সালের আসরেও কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছিলেন। ২০১৯ সালে না পারলেও এই আসারে তৃতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করে নিলেন তিনি।

ফ্রেঞ্চ ওপেনের পুরুষ একক থেকে সবার আগে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছেন আর্জেন্টাইন টেনিসার দিয়াগো শোয়ার্টজম্যান। গ্রিগর দিমিত্রভকে পরপর তিন সেটেই হারিয়েছেন তিনি। প্রথম সেটে ৬-৩, দ্বিতীয় সেটে ৬-১ ও তৃতীয় সেটে ৬-২ পয়েন্ট ব্যবধানে জয় পেয়েছেন দিয়াগো শোয়ার্টজম্যান।

ফরাসি ওপেনের এই আসরের নারী একক থেকে ইতোমধ্যে জনপ্রিয় টেনিসারদের মধ্যে বিদায় নিয়েছেন নাওমি ওসাকা ও এমা রাদুকানু। নাওমি ওসাকা ছিলেন সাবেক নাম্বার ওয়ান টেনিসার। অন্যদিকে এমা রাদুকানু টেনিস জগতে আলোড়ন সৃষ্টিকারী ইংলিশ তরুণী। আলেকসান্দ্রা সাসনোভিচের বিপক্ষে প্রথম সেটে জয় পেয়েও দ্বিতীয় রাউন্ড থেকেই বিদায় নিয়েছেন রাদুকানু। ফরাসি ওপেনে এটিই ছিল তার অভিষেক আসর। ২০০৪ সালে মারিয়া শারাপোভার পর এমা রাদুকানু সর্বকনিষ্ঠ নারী টেনিস তারকা হিসাবে গ্র্যান্ড স্লাম চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন। ২৯১০ পয়েন্ট নিয়ে র‌্যাঙ্কিং টেবিলের ১২তম স্থানে অবস্থান করছে। ২০২০ সালের ডিসেম্বরে এলটিএ ব্রিটিশ ট্যুর মাস্টার্স শিরোপা জিতেছেন। ২০২১ সালে ইউএস ওপেন জয় করেছেন। একই বছরের জুন মাসে তার অভিষেক হয় ওয়াইল্ডকার্ডে উইম্বলডন চ্যাম্পিয়নশিপে। উদীয়মান এই অসাধারণ টেনিসার এমা রাদুকুনু ১৩ নভেম্বর ২০০২ সালে কানাডার টরেন্টোতে জন্মগ্রহণ করেছেন।

এই টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় রাউন্ড জয়ের মাধ্যমে গ্র্যান্ড স্লাম টুর্নামেন্টের ৩০০তম ম্যাচ জয় করেছেন রাফায়েল নাদাল। চলতি বছরের শুরুতেই অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে তিনি জিতেছেন ক্যারিয়ারের ২১তম গ্র্যান্ড স্লাম। ছেলেদের এককে সর্বোচ্চ ২১ গ্র্যান্ড স্লামজয়ী নাদাল রোঁলা গাঁরো থেকেই তুলে নিয়েছেন ১৩টি শিরোপা।

ফ্রেঞ্চ ওপেনে ২০০৫, ২০০৬, ২০০৭, ২০০৮, ২০১০, ২০১১, ২০১২, ২০১৩, ২০১৪, ২০১৬, ২০১৭, ২০১৯, ২০২০ সালে অনুষ্ঠিত টুর্নামেন্টগুলোতে চ্যাম্পিয়ন হয়ে ১৩টি গ্র্যান্ড স্লাম নিয়েছে। ২০০৯ সালে অস্ট্রেলিয়ার ওপেনে প্রথম গ্র্যান্ড স্লাম জয় করেছে। এরপর চলতি বছর শেষ হওয়া আসরে দ্বিতীয়বার অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জিতেছেন। অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের শুরু থেকেই তিনি ফেভারিট হয়ে খেলেছেন। তার দুই চিরপ্রতিদ্বন্দী রজার ফেদেরার চোটের কারণে এই আসরে অংশগ্রহণ করেননি। নোভাক জোকোভিচ করোনা ভ্যাকসিনেশন জটিলতায় দুইবার ভিসা বাতিলের কবলে পড়ে অস্ট্রেলিয়া ত্যাগ করতে হয়েছে। তারা তিনজনই ২০টি করে গ্র্যান্ড স্লাম জয় করে ইতিহাসের পাতায় যৌথভাবে অবস্থান করছিলেন। অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ফাইনালে ইতিহাস রচনা করে রেকর্ডের একক অধিকারী এখন শুধু রাফায়েল নাদাল। আগামী সপ্তাহে ছত্রিশে পা রাখতে যাওয়া নাদালের চেয়ে গ্র্যান্ড স্লামে ছেলেদের এককে বেশি ম্যাচ জিতেছেন শুধু রজার ফেদেরার ও নোভাক জোকোভিচ। ৩৬৯ ম্যাচ জিতেছেন সুইস কিংবদন্তি ফেদেরার, জোকোভিচের জয় ৩২৫টি। ছেলে ও মেয়ে মিলিয়ে টেনিস ইতিহাসে মাত্র পাঁচজন খেলোয়াড় চারটি গ্র্যান্ড স্লাম টুর্নামেন্টের এককে অন্তত তিনশ ম্যাচ জিতেছেন। বাকি দুজন নারী কিংবদন্তি সেরেনা উইলিয়ামস ও মার্টিনা নাভ্রাতিলোভা।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়