রবিবার থেকে সুপ্রিমকোর্টে কঠোর নিরাপত্তা

আগের সংবাদ

কর বাড়িয়ে তামাক ব্যবহার নিরুৎসাহিত করার আহ্বান

পরের সংবাদ

দুর্নীতির অভিযোগ

পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের ওপর চড়াও মাউশি সচিব

প্রকাশিত: মে ২৬, ২০২২ , ৭:০১ অপরাহ্ণ আপডেট: মে ২৬, ২০২২ , ৭:০৬ অপরাহ্ণ

দুর্নীতি নিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধিভুক্ত পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের (ডিআইএ) ওপর চড়াও হলেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের (মাউশি) সচিব মো. আবু বকর ছিদ্দীক। তিনি বলেন, বেসরকারি স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আর্থিক এবং প্রশাসনিক অনিয়ম ও দুর্নীতির তথ্য উদঘাটনের দায়িত্ব এই পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের। কিন্তু এই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধেই দুর্নীতির পঙ্কিলতায় নিমজ্জিত হওয়ার অভিযোগ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

এরপরই সচিব ডিআইএকে নির্দেশ দিয়ে বলেন, গত ১০ বছরে দুর্নীতি অনুসন্ধানে এ প্রতিষ্ঠান কার্যকর কি পদক্ষেপ নিয়েছে তার প্রতিবেদন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জমা দিতে হবে। সচিব শুধু ডিআইএয়ের ওপর চড়াও হয়েই থেমে থাকেননি, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের কোনো কোনো কর্মকর্তা বেনামে ঠিকাদারির সঙ্গে জড়িত, তার তথ্যও জানতে চেয়েছেন তিনি। পাঠ্যপুস্তক মুদ্রণের টেন্ডার প্রক্রিয়া, পাঠ্যবইয়ের পাণ্ডুলিপি কিছু প্রকাশকের নিকট অননুমোদিতভাবে সরবরাহসহ অবৈধ কোচিং বাণিজ্য বন্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়ারও নির্দেশ দেন তিনি।

প্রসঙ্গত, সচিব এই বিভাগে যোগদান করার মাস ছয়েক পরে এসে ডিআইএ নিয়ে কঠোর হলেন।

দুর্নীতি দমন কমিশন কতৃক দেয়া মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের দুর্নীতির প্রতিবেদন ও তা প্রতিরোধে করণীয় সংক্রান্ত সুপারিশমালার বিষয়ে করণীয় নির্ধারণে লক্ষ্যে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এক সভায় তিনি এসব নির্দেশ দেন।

বৃহস্পতিবার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আবু বকর ছিদ্দীকের সভাপতিত্বে সভায় মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও অধীনস্ত বিভন্ন দপ্তর সংস্থার প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন। সেবা গ্রহীতাদের হয়রানি বন্ধ এবং দুর্নীতি প্রতিরোধের লক্ষ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ (মাউশি) ও তার অধীন সব দপ্তর, সংস্থায় অভিযোগ বক্সগুলো সচল করার নির্দেশ দিয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আবু বকর ছিদ্দীক বলেছেন, এই অভিযোগ বক্সের চাবি থাকবে অফিসের প্রধানের কাছে। তিনিই মাসে একবার করে খুলবেন এই অভিযোগ বক্স এবং খোলার পরে বিশেষ কোনো চিরকুট না পড়েই সব অভিযোগ আগে রেজিস্ট্রারে লিপিবদ্ধ করতে হবে এবং প্রত্যেক মাসে অভিযোগের বিষয়ে কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে তা বিভাগের মাসিক সমন্বয় সভায় আলোচন করতে হবে বলে জানিয়েছেন সচিব।

মো. আবু বকর বলেন, শিক্ষা সব কিছুর ওপরে। আমরা শিক্ষা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা যদি আলোকিত না হই তাহলে অন্যরা কীভাবে আলোকিত হবে। আমাদের উদাহরণ স্থাপন করতে হবে। আমাদের সততা, নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করতে হবে। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের বিভিন্ন দপ্তর, সংস্থার দুর্নীতির বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দেয়া প্রতিবেদনের বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে আলোচনা করেন ও সংশ্লিষ্ট সংস্থা ও বিভাগকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন তিনি।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়