থ্যালাসেমিয়া বাহকদের নাম এনআইডিতে যুক্ত করতে আইনি নোটিশ

আগের সংবাদ

বিনিয়োগে সহায়তায় রিসার্চ নির্ভর ব্যবসা করবে ক্যাল সিকিউরিটজ

পরের সংবাদ

ইভিএমে কারচুপি অসম্ভব, ইসির সংলাপে বিশেষজ্ঞরা

প্রকাশিত: মে ২৫, ২০২২ , ৩:৫৯ অপরাহ্ণ আপডেট: মে ২৫, ২০২২ , ৫:০৭ অপরাহ্ণ

আগামী দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করার বিষয়ে রাজনৈতিক দল ও বিভিন্ন মহলের নানান মত রয়েছে। তাই এই মেশিনটির কারিগরি বিষয় নিয়ে মতবিনিময় করতে বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে বৈঠক করেন কাজী হাবিবুল আউয়াল কমিশন।

বুধবার (২৫ মে) সকাল ১০টায় আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠান শেষে বিশেষজ্ঞরা জানান, ইভিএম যদি সঠিকভাবে পরিচালনা করা হয়, তাহলে এ মেশিনে কারচুপি অসম্ভব। তবে এটিকে আরো প্রযুক্তিগতভাবে পরীক্ষা করার কথা বলেছেন সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল। তিনি বলেছেন, ইভিএম নিয়ে আমরা আরো পরীক্ষা নিরীক্ষা করবো।

নির্বাচন কমিশনে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল, নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আহসান হাবিব খান (অব.), বেগম রাশেদা সুলতানা, মো. আলমগীর, মো. আনিছুর রহমান, শিক্ষাবিদ ও গবেষক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল, ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক এম কায়কোবাদ ও বুয়েটের মতিন সাদ আবদুল্লাহ, বুয়েটের ড. মো. মাহফুজুল ইসলাম, এশিয়া প্যাসিফিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অলোক কুমার সাহা, বিএমটিএফ-এর পরিচালক মেজর জেনারেল সুলতানুজ্জামান মো. সালেহ উদ্দিন, সেনা কল্যাণ সংস্থার চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম, ইসির অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ, জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক একেএম হুমায়ূন কবীর, আইডিয়া-২ প্রকল্পের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবুল কাশেম মো. ফজলুল কাদেরসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে ইভিএমের কারিগরি বিষয়ে দক্ষতা রয়েছে এমন বিশেজ্ঞদের আমন্ত্রণ জানানো হয়। তারা ইভিএমের সমস্যার বিষয়গুলো উত্থাপন করেন, আলোচনা করে মতামত দেন। কমিশন (ইভিএমের কারিগরি) বিষয়টা বুঝতে চাচ্ছেন।পর্যায়ক্রমে সংশ্লিষ্ট আরও অনেকের সঙ্গে বসাতে চায়। তবে আজকের বৈঠকে বিশেষজ্ঞদের অধিুকাংশই মনে করেন ইভিএম যদি প্রযুক্তিগতভাবে উন্নত হয় , তাহলে ইভিএমে কারচুপি অসম্ভব।

বৈঠকে ইভিএম বিশেষজ্ঞরা তাদের মতামত ও যন্ত্রটিকে আরো অত্যাধুনিক কিভাবে করা যায়, তা নিয়ে নিজেদের মতামত তুলে ধরেন। তারা বাইরের যে সব দেশ ইভিএমে ভোট করে সে সব দেশের ইভিএম পদ্ধতি পর্যালোচনা করার সুপারিশও করেন। প্রয়োজনে সে সব দেশ থেকে বিশেষজ্ঞ এনে আমাদের ইভিএম পরীক্ষা নিরীক্ষার কথা বলেন।

নতুন কমিশন দায়িত্ব নেওয়ার এক মাসের মাথায় দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচননে সামনে রেখে বিভিন্ন অংশীজনদের সঙ্গে সংলাপ শুরু করে। ২৩ মার্চ থেকে ১৮ এপ্রিল চার ধাপের সংলাপ হয়েছে। সংলাপে ইভিএমের পক্ষে বিপক্ষে বেশকিছু মতামত আসে।

ইভিএমের বিষয়ে মঙ্গলবার সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, আমরা চার-পাঁচটা মিটিং করেছি, এখনো পুরোপুরি আস্থাভাজন হতে পারিনি। আরও মিটিং হবে। সেখানে পর্যালোচনা করব। তিনি বলেন, আমরা বলেছি, ইভিএম নিয়ে সবার আস্থা অর্জন করতে চাই। কালকেও কারিগরি মিটিং হবে। আরও কয়েকটি বৈঠকে সকলের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে ইভিএম নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এর আগে গত ১০ মে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, যেটি স্পষ্ট করে বলতে চাচ্ছি, অনেকে ইচ্ছা পোষণ করতে পারেন, সদিচ্ছা ব্যক্ত করতে পারেন। ইভিএমে ভোট দেওয়ার বিষয়ে আমরা এখনো কোনো চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারিনি। ইতিমধ্যে আমরা নিজেরা অনেকগুলো সভা করেছি, আগামীতে আরও সভা করা হবে। তারপর সিদ্ধান্ত হবে আমাদের। ভোট স্বাধীনভাবে আমরা পরিচালনা করবো যতদূর সম্ভব। এটা আমাদের এখতিয়ারভুক্ত, পদ্ধতিও আমাদের এখতিয়ারভুক্ত।

সাংবাদিকদের আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সিদ্ধান্ত আমাদের উপরেই থাকবে। মতামত আমরা বিবেচনায় নিতে পারি। আপনিও মতামত দিতে পারেন, রাস্তায় কেউ মতামত দিতে পারেন, রাজনৈতিক দলগুলো মতামত দিতে পারবেন। আল্টিমেটলি আমরা পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবো ভোট কোন পদ্ধতি ও কেমন হবে। সেটি আমাদের বিষয়। এই বিষয়ে আমরা স্বাধীন।

সিইসি আরও বলেন, সব আসনে ইভিএমে ভোট করার মত এখন আমাদের সামর্থ নেই। ৩০০ আসনের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত আমরা এখনো নেইনি। ভোট ব্যালটে হবে না ইভিএমে, কতটি আসনে ইভিএমে হবে এই বিষয়ে কমিশন এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। এটি পর্যালোচনাধীন রয়েছে।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়