দুই বাংলা নিয়ে আসিফ-নচিকেতার সওয়াল-জবাব (ভিডিও)

আগের সংবাদ

মেয়েবন্ধুকে কটূক্তি করায় ঢাকা-আইডিয়াল কলেজ শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষ

পরের সংবাদ

আমি বিশ্রাম নেব না, তৃতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হতে চান মোদি

প্রকাশিত: মে ১৪, ২০২২ , ২:১৭ অপরাহ্ণ আপডেট: মে ১৪, ২০২২ , ২:১৭ অপরাহ্ণ

বয়স হয়ে গেছে। এই অজুহাত দেখিয়ে লালকৃষ্ণ আদবানি থেকে মুরলীমনোহর যোশিসহ দলের প্রবীণ নেতাদের রাজনীতির বানপ্রস্থে পাঠিয়েছেন তিনি। অথচ ‘আপনি আচরি ধর্ম পরেরে শিখাও’ এই আপ্তবাক্য নিজের ক্ষেত্রে মানতে নারাজ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। যেখানে দল ও সরকারে নতুন প্রজন্মকে তুলে আনার বার্তা দেয়া হচ্ছে সেখানে নরেন্দ্র মোদি ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচন জিতে এলেও প্রধানমন্ত্রীর আসন ছেড়ে দিতে নারাজ।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নানা সভা-সমাবেশে বলে থাকেন, আমার পদের কোনো লোভ নেই। যে কোনো সময় কাঁধে ঝোলা নিয়ে বেরিয়ে পড়বো। কিন্তু দেখা যাচ্ছে, কথার সঙ্গে বাস্তবের কোনো মিল নেই। এবার তিনি বুঝিয়ে দিলেন, ২০২৪ সালেও তিনি প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে অবসর নিচ্ছেন না। নিজের অভিজ্ঞতা বর্ণনার আড়ালে দল এবং যোগী আদিত্যনাথকেও বার্তা দিলেন তিনি। তৃতীয়বার প্রধানমন্ত্রী পদের দৌঁড় থেকে সরে যাওয়ার কোনো পরিকল্পনা মোদির নেই। খবর হিন্দুস্তান টাইমসের।

ঠিক কী বলেছেন প্রধানমন্ত্রী?‌ গুজরাতে ‘উৎকর্ষ সমারোহ’ অনুষ্ঠানে ভাষণের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী সাধারণ মানুষের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলেন। সেখানেই তিনি বলেন, আমাকে বিরোধী দলের এক নেতা বলেছেন, আপনি দুইবার প্রধানমন্ত্রী পদে মনোনীত হয়েছেন, এরপর আর কী চান? আসলে ওই বিরোধী নেতার মনোভাব হল, দুইবার প্রধানমন্ত্রী হলেই সব চাহিদা শেষ হয়ে যায়। কিন্তু সেই ধরনের মানুষ নই আমি। সব জনস্বার্থবাহী প্রকল্প যতক্ষণ না ১০০ শতাংশ বাস্তবায়িত হচ্ছে, ততক্ষণ বিশ্রাম নেব না। এই মন্তব্যের পরই তিনি প্রধানমন্ত্রী থাকতে চান স্পষ্ট হয়ে ওঠে।

আগামী ২০২৪ সালে প্রধানমন্ত্রীর বয়স হবে ৭৩ বছর। আর দেখা যাচ্ছে, কেন্দ্র ও রাজ্য বিভিন্ন সিনিয়র, প্রবীণ বিজেপি নেতাকে প্রত্যক্ষ রাজনীতি থেকে সন্ন্যাস দেয়া হয়েছে। কেউ চলে গিয়েছেন বানপ্রস্থে। কেউ রাজ্যপাল হয়েছেন। সেখানে মোদি নিজেই বার্তা দিলেন, ২০২৪ সালে বিজেপি জয়ী হলে প্রধানমন্ত্রী হবেন তিনিই। অর্থাৎ ২০২৯ সাল পর্যন্ত তিনি প্রধানমন্ত্রীর পদে থাকবেন। তখন তার বয়স হবে ৭৮ বছর! স্বাধীন ভারতে তিনবার টানা প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন একমাত্র জওহর লাল নেহরু।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়