খারকিভে জয় ইউক্রেনের, দাবি জেলেনস্কির

আগের সংবাদ

হজে প্যাকেজে লাখ টাকার বেশি খরচ বেড়ে ৪ লাখ ৬২ হাজার

পরের সংবাদ

হেফাজত-জামাত প্রচুর মানি লন্ডারিং করেছে: বিচারপতি মানিক

প্রকাশিত: মে ১১, ২০২২ , ২:২৩ অপরাহ্ণ আপডেট: মে ১১, ২০২২ , ২:২৬ অপরাহ্ণ

আপিল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এবং মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস তদন্তে গণকমিশনের সভাপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বলেন, ওয়াজ ব্যবসায়ী, ধর্মান্ধ গোষ্ঠী হেফাজত, জামাতসহ মৌলাবাদী সংগঠনগুলো প্রচুর মানি লন্ডারিং করেছে। সেই তথ্য প্রমান আমরা পেয়েছি। সেই জন্য আমরা দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কাছে শ্বেতপত্র জমা দিয়েছি, যাতে তারা যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করে।

বুধবার (১১ মে) মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস তদন্তে গণকমিশন তদন্ত শেষে ২২ শ’ পৃষ্ঠার তদন্ত রিপোর্ট দুর্নীতি দমন কমিশনকে জমা দেওয়া শেষে এ সব কথা বলেন তিনি।

বিচারপতি বলেন, আমরা দুদকের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছি। দুদক আমাদের বলেছে, তারা আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিবে। উনার এখতিয়ারের বাহিরে যেটা আছে সেটা অন্যান্য সংস্থা যেমন সিআইডির কাছে পৌঁছে দিবে।

তিনি আরো বলেন, মুমিনুল হকসহ যারা ওয়াজ ব্যবসায়ী এরকম কয়েক শ’ জনের নাম এসেছে। তারা ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করছে। অন্য ধর্মের বিরুদ্ধে ঘৃণা ছড়াচ্ছে। মহিলাদের বিরুদ্ধে আজে বাজে কথা বলেছে। মহিলারা যাতে চাকরিতে যেতে না পারে সে ব্যাপারে কথা বলছে। ওয়াজ ব্যবসায়ীরা প্রতিদিন অপরাধ করছে। কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না। মুমিনুল হকের মতো একজন আসামি তার বিরুদ্ধে ঝুমন দাস বললো। অথচ ঝুমন দাসকে কারাগারে যেতে হলো, মুমিনুল হকের বিরুদ্ধে মামলা করা হলো না।

তিনি বলেন, শুধু ওয়াজ ব্যবসায়ী নয়, সাম্প্রদায়িক হামলার সময় যেসব ডিসি, ওসি ও প্রশাসনিক কর্মকর্তা যুক্ত এবং সাহায্য করেছে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করা হয়।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন তদন্ত কমিশনের সদস্য শাহারিয়ার কবির, ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ প্রমুখ।

রি-এইউ/ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়