করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে যেভাবে সফল বাংলাদেশ

আগের সংবাদ

মানিকগঞ্জে স্ত্রী ও দুই মেয়েকে গলা কেটে হত্যা, স্বামী আটক

পরের সংবাদ

হজ ফ্লাইট নিয়ে সংশয়, ঘোষণা হয়নি প্যাকেজ

প্রকাশিত: মে ৮, ২০২২ , ৮:৪৭ পূর্বাহ্ণ আপডেট: মে ৮, ২০২২ , ৮:৪৭ পূর্বাহ্ণ

৬৫ বছরের বেশি বয়সি কেউ এবার হজ করতে পারবেন না। তবে বয়সের সীমা পেরোনো এমন কোনো নিবন্ধিত ব্যক্তির পরিবারের সদস্য তার পরিবর্তে হজে যেতে পারবেন। এমন শূন্য কোটায় হজে যেতে হলে প্রাক-নিবন্ধন সম্পন্ন করে আগামী ১০ মের মধ্যে আবেদন করতে হবে। এ বিষয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে ৩১ মের মধ্যে হজ ফ্লাইট চালু করা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এখনো ঘোষণা করা হয়নি হজ প্যাকেজ।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, রাজকীয় সৌদি সরকারের সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে ১৪৪৩ হিজরি (২০২২ সাল) হজে ৬৫ বছরের (পাসপোর্ট অনুযায়ী যাদের জন্ম ১৯৫৭ সালের ১ জুলাই এবং এরপর) কম বয়সি ব্যক্তিই শুধু হজ পালনের জন্য যোগ্য বলে বিবেচিত হবেন। ফলে ১৯৫৭ সালের ১ জুলাইয়ের আগে যাদের জন্ম তারা এ বছর হজে যেতে পারবেন না। তবে যেসব হজযাত্রী ২০২০ সালের হজে যাওয়ার জন্য নিবন্ধন করেছেন এবং বয়স এরই মধ্যে ৬৫ বছর অতিক্রম করছে, তার পরিবর্তে তার পরিবারের একজন সদস্য (৬৫ বছরের কম বয়সি) এ শূন্য কোটায় হজে যাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এমন শূন্য কোটায় হজে যেতে আগ্রহী ব্যক্তিকে বেসরকারি এজেন্সির ক্ষেত্রে নিজ নিজ এজেন্সির মাধ্যমে এবং সরকারি ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে সরকারি ব্যবস্থাপনায় দ্রুত প্রাক-নিবন্ধন করে আগামী ১০ মের মধ্যে প্রাক-নিবন্ধনের ট্র্যাকিং নম্বর এবং যার পরিবর্তে হজে যেতে চান তার ট্র্যাকিং নম্বর স্লিপসহ ঢাকার আশকোনায় হজ অফিসের পরিচালকের কাছে সরাসরি বা ই-মেইলের মাধ্যমে লিখিতভাবে আবেদন করতে হবে। ওই সময়ের পর আর কোনো আবেদন গ্রহণযোগ্য হবে না।

এদিকে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী, আগামী ৩১ মে থেকে হজ ফ্লাইট শুরু নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছে হজ এজেন্সিজ এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব)। হাব সভাপতি এম. শাহাদাত হোসাইন তসলিম গত ২৭ এপ্রিল ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীকে জরুরি ভিত্তিতে হজ প্যাকেজ ঘোষণা ও যথাসময়ে অন্যান্য কার্যক্রম শেষ করতে চিঠি দেন। সেই চিঠিতে বলা হয়, হজ একটি বিশাল কর্মযজ্ঞ। এর মধ্যে প্যাকেজ ঘোষণা, হজযাত্রী নিবন্ধন, লিড এজেন্সি ও মোয়াল্লেম নির্ধারণ, হজযাত্রীদের সৌদি আরবে আবাসন এবং মোয়াল্লেম ফি ও অন্যান্য খরচের অর্থ পাঠানোসহ বিভিন্ন কার্যক্রম শেষ করা হয়। হজের প্যাকেজ ঘোষণার পর পর্যায়ক্রমে এ কাজগুলো শেষে ভিসা ইস্যু করে দিতে হয় হজ ফ্লাইট।

চিঠিতে আরো বলা হয়, কিন্তু সময় স্বল্পতার কারণে এ বছর হজ ব্যবস্থাপনা যথাসময়ে শেষ করা চ্যালেঞ্জিং হয়ে দাঁড়িয়েছে। সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে হজ ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য দ্রুত হজ প্যাকেজ নির্ধারণ করা জরুরি। ৩১ মে থেকে হজ ফ্লাইট শুরু করা কিছুতেই সম্ভব নয়। কারণ হজ প্যাকেজ ঘোষণার পর খরচ বাড়া সাপেক্ষে অনেকে নাও যেতে পারেন, সেক্ষেত্রে হজে যারা যেতে রাজি আছেন তাদের তালিকা করতে হবে। আবার ৬৫ বছরের বেশি বয়সি ১০ হাজার ৪৪১ জন এবার হজে যেতে পারবেন না। ফলে তারা ছেলেমেয়ে বা অন্য কাউকে পাঠাবেন কিনা, নাকি টাকা তুলে নেবেন- এসব ঠিক করতে সময় লাগবে। এরপর মোয়াল্লেম ঠিক করা। সেই মোয়াল্লেম আবার সৌদিতে গিয়ে বাড়ি ভাড়া, যাতায়াত ও খাওয়া-দাওয়া ইত্যাদি ঠিক করে দেশে ফিরে পাসপোর্ট ও ভিসার জন্য সৌদি দূতাবাসে পাঠাবেন। এসব কারণেই ৩১ মের মধ্যে ফ্লাইট চালু করা সম্ভব হবে না।

অন্যদিকে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, ঈদের ছুটির কারণে প্যাকেজ ঘোষণা করা যায়নি। অন্যান্য বছর হজ প্যাকেজ মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের প্রয়োজন হলেও এবার তা হবে না। নতুন হজ আইন অনুসারে হজ কার্যক্রম পরিচালনার জন্য জাতীয় ও নির্বাহী দুটি কমিটি করা হয়েছে। জাতীয় কমিটির প্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ কমিটিতে একাধিক মন্ত্রী, সচিব ও হাবের শীর্ষ নেতারা আছেন। আর নির্বাহী কমিটির প্রধান হলেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান। তাই মন্ত্রিসভার অনুমোদন ছাড়াই খুব দ্রুত হজ প্যাকেজ ঘোষণা করা হবে।

উল্লেখ্য, চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ৯ জুলাই সৌদি আরবে পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হতে পারে। চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে ৫৭ হাজার ৮৫৬ জন হজে যেতে পারবেন।

ডি-ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়