নারীর ক্ষমতায়নে শীর্ষে বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী

আগের সংবাদ

এক কোটিরও বেশি মেয়ে স্কুল থেকে ঝরে পড়ার ঝুঁকিতে

পরের সংবাদ

রাতে মেসি-নেইমারদের বাঁচা-মরার ম্যাচ

প্রকাশিত: মার্চ ৮, ২০২২ , ৯:২৩ অপরাহ্ণ আপডেট: মার্চ ৯, ২০২২ , ১১:১৭ পূর্বাহ্ণ

ফুটবল বিশ্বে অন্যতম দুই ক্লাব ফ্রান্সের প্যারিস জার্মেইন সেইন্ট (পিএসজি) ও স্পেনের রিয়াল মাদ্রিদ। তারকা ফুটবলারদের উপস্থিতিতে দুই ক্লাবের সাক্ষাৎ সবসময়ই উৎসবমুখর হয়ে উঠে ফুটবলপ্রেমীদের কাছে। উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলোর দ্বিতীয় লেগে বুধবার রাত ২টায় রিয়াল মাদ্রিদের মুখোমুখি হবে জনপ্রিয় ফরাসি ক্লাব প্যারিস সেইন্ট জার্মেইন (পিএসজি)। স্বাগতিক রিয়াল মাদ্রিদের ঘরের মাঠ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে আগামীকাল বুধবার রাত ২টায় বেনজেমাদের প্রতিপক্ষ মেসি, নেইমার ও এমবাপ্পেরা। ম্যাচটি সরাসরি সনি টেন-২ থেকে সম্প্রচার করা হবে। রিয়াল মাদ্রিদের টিকে থাকার দিনে আরেক ম্যাচে ম্যানচেস্টার সিটির মুখোমুখি হবে স্পোর্টিং সিটি লিসবন।

নতুন বছরে বড় আলোড়ন দিয়ে ফিরেছিল উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ। পিএসজি ও রিয়াল মাদ্রিদের ম্যাচের জন্যই শেষ ষোলোর প্রতি ফুটবলপ্রেমীরা একটু বেশি সম্পৃক্ত হয়েছে। প্রথম লেগে পুরো বিশ্বের চোখ ছিল পার্ক দে প্রিন্সেসে কিন্তু বুধবার আবারো পুরো বিশ্বের চোখ থাকবে সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে। ২০১৭-১৮ মৌসুমে এই রিয়াল মাদ্রিদের কাছেই হেরে বিদায় নিতে হয়েছিল পিএসজিকে। এবার পুরনো প্রতিশোধ নিতে একধাপ এগিয়ে আছে পিএসজি। কেননা প্রথম লেগে পিএসজির ঘরে ১-০ গোলে হেরেছিল সফরকারিরা। ম্যাচের অন্তিম মুহূর্তে পিএসজির জয়সূচক গোলটি করেছিলেন এমবাপ্পে। ৬১ মিনিটে কিলিয়ান এমবাপ্পেকে দানি কারভাহাল ফাউল করলে রেফারি পেনাল্টির সিদ্ধান্ত জানিয়েছিলেন।

স্পট কিক থেকে আর্জেন্টাইন তারকার শট ফিরিয়ে দেন রিয়াল গোলরক্ষক থিবো কর্তোয়া। পেনাল্টি মিসের পর ইনজুরি থেকে ফিরে আসা নেইমারকে মাঠে নামান পচেত্তিনো। তারপর শেষ মুহূর্তে তার ঝলকেই পিএসজি পায় গোল। নেইমারের ব্যাকহিল পাসের বল বক্সের ভেতর খুঁজে পায় এমবাপ্পেকে। ফরাসি তারকা এরপর দুটো চ্যালেঞ্জ এড়িয়ে এগিয়ে যান বাইলাইনের কাছে। সেখান থেকে নিচু এক শটেই পরাস্ত করেন রিয়াল গোলরক্ষককে। পুরো ম্যাচে ছড়ি ঘোরানো পিএসজি শেষ মুহূর্তের গোলে পায় দারুণ এক জয়। বুধবার বার্নাব্যুতে জয় না ধরে রাখতে পারলেও অত্যন্ত ড্র করলেও প্রতিশোধের পূর্ণতা দিতে পারবে মেসি-নেইমাররা।

অপরদিকে রিয়ালকে টুর্নামেন্টে টিকে থাকার লড়াইয়ে ঘরের মাঠে ২ গোলের ব্যবধানে হারাতে হবে সফরকারিদের। অন্যথায় টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে যেতে হবে কার্লো আনচেলত্তির শিষ্যদের। তবে ঘরের মাঠে রিয়াল কতটুকু শক্তিশালী তার প্রমাণ দিয়েছে গত ম্যাচেই। ১২০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে রিয়াল সোসিয়েদাদকে বড় ব্যবধানে হারিয়ে পিএসজিকে প্রায় সতর্কবার্তাই দিয়ে রেখেছে বেনজেমা-মদরিচরা। করিম বেনজেমা, লুকা মদরিচ, এদুয়ার্দোদ কামাভিঙ্গা এবং অ্যাসেনসিওর গোলে ৪-১ গোলে জিতেছিল আনচেলত্তির শিষ্যরা। রিয়াল শিবিরে দুঃসংবাদ হলো রিয়ালের খেলায় ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার ক্যাসেমিরো ও মেনদি একাদশে থাকতে পারবে না। প্রথম লেগে হলুদ কার্ড পাওয়ার কারণে একাদশ থেকে ছিটকে গিয়েছেন তিনি।

ঐদিনই প্রতিপক্ষের মাঠে মৌসুমের দ্বিতীয় ম্যাচ হেরেছিল পিএসজি। রিয়ালের বিপক্ষে খেলার জন্য ফরাসি তারকা কিলিয়ান এমবাপ্পেকে বিশ্রামে রেখে একাদশ সাজিয়েছিলেন পচেত্তিনো। দুই আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসি ও আনহেল দি মারিয়াসহ, ব্রাজিলিয়ান স্টার ফুটবলার নেইমার জুনিয়র ছিলেন দলে। এরপরও লিগ ১ এর ম্যাচে নিসের মাঠে ১-০ গোলে হেরেছে পিএসজি। এদিক থেকে কিছুটা পিছিয়ে আছে পিএসজি। দলের অন্যতম তারকা লিওনেল মেসিও আপন ছন্দের খুঁজে পাচ্ছেন না। রিয়ালের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে পেনাল্টি থেকে গোল করতে না পারলেও মেসিভক্তরা প্রত্যাশার কমতি রাখছে না কোনোভাবেই। প্রথম লেগে হারলেও এখনো পরিসংখ্যানে এগিয়ে আছে রিয়াল মাদ্রিদ।

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন লিগে এ পর্যন্ত এ দুই দলের দেখা হয়েছে মোট ৭ বার। তন্মধ্যে পিএসজির ২ জয়ের বিপরীতে রিয়াল মাদ্রিদ জিতেছে ৩টি। তবে পিএসজির দুই জয়ের দুইটিই পেয়েছে ঘরের মাঠে। রিয়ালের মাঠে এ পর্যন্ত একটি ম্যাচও জিততে পারেনি তারা। তবে তাদের জন্য আশার বাণী হলো যে দুই ম্যাচে ড্র করেছিল এই পিএসজি তার একটি ঘরের মাঠে হলেও অপরটি ছিল বার্নাব্যুতে। চলতি আসরের প্রথম লেগ অনুষ্ঠিত হওয়ার আগে ২০১৯ সালের নভেম্বরে বার্নাব্যুতে ২-২ গোলে ড্র করেছিল পিএসজি। বুধবার জয় ধরে রাখার উদ্দেশেই দল সাজাবে পচেত্তিনো। শেষ আটের লড়াইয়ে পচেত্তিনো একাদশে গোলরক্ষক হিসেবে রাখতে পারেন ইতালিয়ান গোলরক্ষক ডোনরুম্মাকে।

এছাড়া রক্ষণভাগে থাকতে পারে থিলো কেহরের, মার্কুইনহোস, কিম্পেম্বে ও নুনু মেনডিস। মাঝমাঠের জন্য থাকতে পারেন দানিলো পেরেইরা, ইদ্রিসা গুয়ে ও মার্কো ভেরাত্তি। আক্রমণভাগের জন্য পিএসজির লাইন আপে আছেন লিওনেল মেসি, নেইমার জুনিয়র, কিলিয়ান এমবাপ্পে ও আনহেল দি মারিয়া। দ্বিতীয় লেগে পিএসজির বিপক্ষে ক্যাসেমিরো ও ফার্ল্যান্ড মেনদি নিষিদ্ধ হওয়ায় কার্লো আনচেলত্তি টনি ক্রুস ও মার্সেলোকে একাদশে রাখার জন্য ভাবছেন। জার্মান ফুটবলার টনি ক্রুস ইনজুরির কারণে রিয়াল সোসিয়েদাদের বিপক্ষে ছিলেন না একাদশে। ফেডেরিকো ভালভার্দেও খেলার জন্য প্রায় প্রস্তুত। এরপরও যদি কেউ এখান থেকে ছিটকে যান তাহলে লুকা মদরিচের সঙ্গে মাঝমাঠের সঙ্গী হবেন কামাভিঙ্গা। রিয়াল মাদ্রিদের একাদশে থাকতে পারেন কর্তোয়া, ভাজকুয়েজ, মিলিতাও, আলাবা, মার্সেলো, লুকা মদরিচদ, ভালভের্দে, টনি ক্রুস, অ্যাসেনসিও, বেনজেমা ও ভিনিসিয়ুস জুনিয়র।

রি-এসএস/ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়