হাতিরঝিল থানার ওসিসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা

আগের সংবাদ

জবিতে ছাত্রকল্যাণ সংগঠনে নিষেধাজ্ঞায় ক্ষোভ

পরের সংবাদ

সবার নজর টি-টোয়েন্টি সিরিজে

প্রকাশিত: মার্চ ১, ২০২২ , ৯:৪৯ অপরাহ্ণ আপডেট: মার্চ ১, ২০২২ , ৯:৪৯ অপরাহ্ণ
  • পরিসংখ্যানে আফগানিস্তান, আত্মবিশ্বাসে টাইগাররা এগিয়ে

মিরপুরের শের-ই বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার থেকে আফগানিস্তানের বিপক্ষে টাইগারদের দুই ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ মাঠে গড়াবে। ঢাকাতে দুই ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটি হবে ৩রা মার্চ ও দ্বিতীয় ম্যাচটি হবে ৫ মার্চ। দুটি ম্যাচই গ্যালারিতে বসে উপভোগ করতে পারবে দর্শকরা। এ সিরিজে সর্বনিম্ন টিকেটের মূল্য ১০০ টাকা এবং সর্বোচ্চ টিকেটের মূল্য ১ হাজার টাকা নির্ধারণ করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। চট্টগ্রামে ইতোমধ্যে আফগানদের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ শেষ করেছে টাইগাররা। ২-১ ব্যবধানে সিরিজ ধরে রেখেছে টাইগাররা।

প্রথম ম্যাচে ৪ উইকেটের শ্বাসরুদ্ধকর জয়ের পরে দ্বিতীয় ম্যাচে ৮৮ রানের বড় জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকেও সফরকারিদের হোয়াইটওয়াশ করতে ব্যর্থ হয়েছে স্বাগতিকরা। সম্প্রতি বিপিএল শেষ করার পরপরই ওয়ানডে সিরিজ ধরে রেখে বেশ ফুরেফুরে মেজাজে আছে সাকিব-তামিমরা। ওয়ানডে সিরিজ শেষে চট্টগ্রাম থেকে মঙ্গলবার ঢাকায় ফিরেছে দুই দল। টি-টোয়েন্টিতে আধিপত্য বিস্তার করার উদ্দেশ্যে বুধবার অনুশীলন করবে টাইগাররা। ক্রিকেটারদের মতো টি-টোয়েন্টি সিরিজ নিয়ে অধীর আগ্রহে মুখিয়ে আছে টাইগারদের ভক্তকুল।

সম্প্রতি শেষ হওয়া বিপিএলে ব্যাট-বলে দারুণ ছন্দে ছিলেন টাইগার ক্রিকেটাররা। প্রিমিয়ার লিগের এ আসরে হেসেছে ছিল তামিম ইকবালের ব্যাট। মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকার হয়ে মাত্র ৯ ম্যাচ খেলে ৫৮.১৪ গড়ে করেছিলেন ৪০৭ রান। ১৩২.৫৭ গড়ে ৪০৭ রান করে সর্বাধিক রান সংগ্রাহকদের মধ্যে তৃতীয় স্থানে ছিলেন টাইগারদের ড্যাশিং ওপেনার। তার থেকে ২ ম্যাচ বেশি খেলে মাত্র ৭ রান বেশি নিয়ে প্রথম স্থানে ছিলেন চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের উইলিয়াম জ্যাকস। যদিও আফগানদের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি খেলবেন না তামিম। তরুণদের সুযোগ করে দিতেই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। তামিম না খেললেও টি-টোয়েন্টি স্কোয়াডে আছেন সাকিব আল হাসান। টাইগারদের এ বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারও বিপিএলে দারুণ ছন্দে ছিলেন।

গ্রুপ পর্বের টানা পাঁচ ম্যাচে ম্যাচসেরার পুরস্কার অর্জন করে আরেকটি রেকর্ডে নাম যোগ করেছিলেন তিনি। ফরচুন বরিশালের হয়ে ১১ ম্যাচে ১৪৪.১৬ স্ট্রাইক রেটে ২৮৪ রান করেছিলেন তিনি। বোলিংয়েও বরাবরের মতো দ্যুতি ছড়িয়েছেন তিনি। ১১ ম্যাচে মাত্র ৫.৩৫ ইকোনমিতে ১৬ উইকেট শিকার করে সর্বাধিক উইকেট শিকারিদের তালিকায় ছিলেন তৃতীয় স্থানে। সবকিছু ছাড়িয়ে সবার নজর এখন বিপিএল মাতানো তরুণদের উপর। বিপিএলে অসাধারণ পারফরম্যান্স দেখিয়ে আফগানদের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের জন্য দলে ডাক পেয়েছেন মুনিম শাহরিয়ার, ইয়াসির আলী রাব্বি, শহিদুল ইসলাম। তিন ক্যাটাগরিতে তিনজনই বিপিএলে চমক দেখিয়েছিলেন।

মুনিম শাহরিয়ারের উদ্বোধনী ঝড়ে পাওয়ার প্লে ওভারগুলোতে দ্রুত রান পেয়েছিল বরিশাল। মুনিম শাহরিয়ার বিপিএলের এ আসরে বরিশালের হয়ে মাত্র ছয়টি ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছিল। ফাইনালে জ্বলে উঠতে না পারলেও বাকি পাঁচটি ম্যাচেই দ্রুত রান তুলে সবার নজর কেড়েছেন। ছয় ম্যাচ খেলে ১৫২.১৩ স্ট্রাইক রেটে ২৯.৬৬ গড়ে করেছেন ১৭৮ রান। সিলেট সানরাইজার্সের বিপক্ষে ১৮২.১৪ স্ট্রাইক রেটে ২৮ বলে ৫১ রানের ব্যক্তিগত সর্বোাচ্চ ইনিংস খেলেছেন তিনি। মিডল অর্ডারে খুলনা টাইগার্সকে দারুণ সাপোর্ট দিয়েছিলেন ইয়াসির আলী রাব্বি। অন্যজন হলেন বিপিএলের ফাইনাল ম্যাচের শেষ ওভারের নায়ক শহিদুল ইসলাম। গ্রুপ পর্বেও বেশ ধারাবাহিক ছিলেন তিনি। মাত্র ৮ ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়ে ১৪ উইকেট নিয়ে সর্বাধিক উইকেট সংগ্রাহকদের মধ্যে ষষ্ঠ স্থানে ছিলেন এ তরুণ পেসার।

উদীয়মান তরুণদের সঙ্গে আরেকটি নাম হলো শরিফুল ইসলাম। চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের হয়ে ১২ ম্যাচে তিনিও পেয়েছিলেন ১৪টি উইকেট। তার আগ্রাসী বলে যে কোনো ব্যাটারই আত্মসম্পন্ন করতে বাধ্য হয়। তবে শুধু তরুণরাই নন, দলের সিনিয়র ক্রিকেটাররাও ছিলেন বেশ ছন্দে। টাইগারদের পেস আক্রমণের সেরা বোলার মোস্তাফিজুর রহমান ছিলেন সর্বাধিক উইকটে শিকারের প্রথম। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে ১১ ম্যাচে মাত্র ৬.৬২ ইকোনমিতে উইকেট শিকার করেছেন ১৯টি। সিলেট সানরাইজার্সের হয়ে তাসকিন আহমেদও ফিরে এসেছিলেন অসাধারণ বোলিং অ্যাকশন নিয়ে। আফগানদের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে স্লোয়ার, সুইং ও বাউন্সে দারুণভাবে নাস্তানাবুদ করেছিলেন তিনি।

সার্বিক দিক থেকে টি-টোয়েন্টি সিরিজে আফগানদের বিপক্ষে বেশ আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে খেলতে পারবে টাইগাররা। যদিও নবীদের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি ম্যাচের পরিসংখ্যান টাইগারদের প্রতিকূলে। এ পর্যন্ত ৬ বার আফগানদের মুখোমুখি হয়েছিল টাইগাররা। প্রথম ম্যাচে জয় পেলেও পরবর্তী চার ম্যাচেই আফগানদের বিপক্ষে হেরেছিল টাইগাররা। তবে সর্বশেষ দেখায় চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সফরকারিদের বিপক্ষে ৪ উইকেটের জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার আফগানিস্তানের বিপক্ষে সপ্তম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলতে নামবে টাইগাররা। করোনা মহামারির জন্য আরোপিত বিধিনিষেধ উঠে যাওয়ায় মিরপুরের গ্যালারিতে বসেই ম্যাচ উপভোগ করতে পারবে ক্রিকেটভক্তরা।

বিপিএলে সব ম্যাচ গ্যালারিতে বসে দর্শকরা উপভোগ করতে না পারলেও আফগানদের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ তাদের জন্য সুবর্ণ সুযোগ। আফগানদের বিপক্ষে টাইগারদের টি-টোয়েন্টি সিরিজের টিকেটকে ৫ ক্যাটাগরিতে ভাগ করেছে বিসিবি। বুধবার সকাল ৯টা থেকে মিরপুরের শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে পাঁচ ক্যাটাগরিরই টিকেট বিক্রি শুরু হবে। টিকেটগুলোর মধ্যে সর্বনিম্ন ক্যাটাগরির মূল্য মাত্র ১০০ টাকা ও সর্বোচ্চ ক্যাটাগরির টিকেটের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১ হাজার টাকা। সর্বনিম্ন ১০০ টাকায় পাওয়া যাবে ইস্টার্ন গ্যালারির সুযোগ, নর্থ ও সাউথ স্ট্যান্ডের জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১৫০ টাকা, ক্লাব হাউসের জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৩০০ টাকা, ভিআইপি স্ট্যান্ডের জন্য লাগবে ৫০০ টাকা এবং গ্র্যান্ড স্ট্যান্ডের জন্য সর্বোচ্চ মূল্য ১০০০ টাকা নির্ধারণ করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড।

রি-এসএস/ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়