পাঁচ মাস পর করোনায় সর্বোচ্চ ৪৩ জনের মৃত্যু

আগের সংবাদ

ঢাকাকে ৩ রানে হারিয়ে চট্টগ্রামের নাটকীয় জয়

পরের সংবাদ

জামায়াত নেতার কাছে হারলেন সেতুমন্ত্রীর ভাগ্নে মঞ্জু

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২২ , ৪:৩২ অপরাহ্ণ আপডেট: ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২২ , ৪:৪১ অপরাহ্ণ

সপ্তম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ২ নম্বর চর পার্বতী ইউনিয়নে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ভাগ্নে, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল সমর্থিত আওয়ামী লীগ নেতা মাহবুবুর রশীদ মঞ্জুকে হারিয়ে বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছেন জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী মোহাম্মদ হানিফ।

মঙ্গলবার (৮ ফেব্রুয়ারি) সকালে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আরিফুল ইসলাম নির্বাচনের ফলাফলের তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, ২ নম্বর চর পার্বতী ইউনিয়নে মোহাম্মদ হানিফ মোটরসাইকেল প্রতীকে ৫৪২০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। মোজাম্মেল হোসেন কামরুল টেলিফোন প্রতীকে ৪২১৬ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় হয়েছেন এবং সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ভাগনে মাহবুবুর রশীদ মঞ্জু ৩৮৪৯ ভোট পেয়ে তৃতীয় হয়েছেন।

এছাড়া, উপজেলার ১নম্বর সিরাজপুর ইউনিয়নে নাজিম উদ্দিন মিকন, ৩ নম্বর চর হাজারী ইউনিয়নে মহি উদ্দিন সোহাগ, ৭ নম্বর মুছাপুর ইউনিয়নে আইয়ুব আলী বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। এরা তিনজনই সেতুমন্ত্রীর ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র কাদের মির্জার অনুসারী। অপরদিকে বেসরকারি ফলাফলে ৪ নম্বর চরকাঁকড়া ইউনিয়নে হানিফ সবুজ, ৫ নম্বর চর ফকিরা ইউনিয়নে জায়দল হক কচি, ৬ নম্বর রামপুর ইউনিয়নে সিরাজিস সালেকিন রিমন, ৮ নম্বর চর এলাহি ইউনিয়নে আবদুর রাজ্জাক নির্বাচিত হয়েছেন। এরা চারজন উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলের অনুসারী।

উপজেলার আট ইউনিয়নে ৩৯ জন চেয়ারম্যান, ৩০৫ জন সাধারণ সদস্য এবং ৭৯ জন সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। আট ইউনিয়নের ৭৮ টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ছিল সংখ্যা ১ লাখ ৮২ হাজার ৫২৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯৩ হাজার ৭৫৭ জন এবং নারী ভোটার ৮৮ হাজার ৭৭১ জন।

সপ্তম ধাপের এই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ থেকে এখানে কাউকে দলীয় প্রতীক নৌকা দেওয়া হয়নি। ফলে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই মেয়র আবদুল কাদের মির্জা এবং কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলের নেতৃত্বে আট ইউনিয়নে আলাদা প্রার্থী দেওয়া হয়েছে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়