ইউক্রেন নিয়ে জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্রের বিতর্ক, সংলাপে রাজি রাশিয়া

আগের সংবাদ

মামলার পরদিনই গুরুদাসপুরে ধর্ষক আটক

পরের সংবাদ

খাঁচা ভেঙে রক্ষীকে মেরে সিংহকে সঙ্গে নিয়ে পালাল সিংহী

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ১, ২০২২ , ১২:৩৩ অপরাহ্ণ আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১, ২০২২ , ১২:৩৩ অপরাহ্ণ

জোর করে খাঁচায় বন্দি রাখা হয়েছিল তাকে আর তার সঙ্গীকে। মন থেকে মানতে পারেনি সে। খাঁচায় কতক্ষণই বা মন টেকে! এ ভাবেই কেটেছে এক বছরেরও বেশি সময়। শেষ পর্যন্ত দ্বাররক্ষীকে মেরে সঙ্গীকে নিয়ে চম্পট দিয়েছে। না, কোনো মানব যুগলের কথা হচ্ছে না। হচ্ছে পশুরাজ সিংহ ও তার সঙ্গিনীর কথা। ইরানের একটি চিড়িয়াখানায় এমনই কাণ্ড ঘটেছে।

বৈজ্ঞানিক পর্যালোচনা বলে, দৈনিক ১৬ থেকে ১৮ ঘণ্টা ঘুমায় এক একটি পূর্ণবয়স্ক সিংহ। কিন্তু সিংহীরা কতক্ষণ ঘুমায় জানা নেই। ইরানের আরাক শহরের চিড়িয়াখানায় কয়েক বছর ধরে একটি খাঁচায় রাখা হয়েছিল একটি সিংহ ও একটি সিংহীকে। সারা দিন ঘুমোতে পেরে সিংহ বিশেষ উচ্চবাচ্য না করলেও সিংহী প্রথম থেকেই হুঙ্কারে গর্জনে পাড়া মাথায় করতে থাকে। বনের রানিকে কি খাঁচায় আটকে রাখা চাট্টিখানি কথা! এভাবেই কাটে একটি বছর। কিন্তু হাল ছাড়েনি সিংহী। এক দিন সুযোগ পেয়ে দ্বাররক্ষীর ঘাড়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে সে। থাবার অভিঘাতের অনিবার্য পরিণতি অনায়াস মৃত্যু। অতঃপর, ভিতরে ঘুমে কাদা সঙ্গীকে তুলে মুহূর্তে উধাও যুগল। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।

এ দিকে খাঁচা ভেঙে রক্ষীকে মেরে সিংহ-সিংহী পালিয়েছে শুনেই আরাক শহরে লাল সতর্কতা জারি করা হয়। সিংহ যুগলের খোঁজে বেরিয়ে পড়ে বন্যপ্রাণ বিভাগের দল। ছুট লাগায় পুলিশও। অনেক খোঁজাখুঁজির পর অবশেষে আরাক শহরের একেবারে প্রান্তিক এলাকায় খোঁজ মেলে তাদের। আবার খাঁচাবন্দি হয় সিংহ যুগল।

টিআই

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়