পোশাক শিল্পে সুযোগ কাজে লাগাতে সরকারি সহায়তা জরুরি

আগের সংবাদ

টেকসই উন্নয়নে চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে অসংক্রামক ব্যাধি: হু প্রধান

পরের সংবাদ

অসংক্রামক রোগ স্বাস্থ্যঝুঁকি ও উদ্বেগের কারণ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৬, ২০২২ , ৮:১৩ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ২৬, ২০২২ , ৮:১৩ অপরাহ্ণ

অসংক্রামক রোগ (এনসিডি) বাংলাদেশের জন্য ক্রমবর্ধমাণ স্বাস্থ্যঝুঁকি ও উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। বুধবার (২৬ জানুয়ারি) রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে ‘১ম ইন্টারন্যাশনাল এনসিডিস কনফারেন্স-২০২২ বাংলাদেশ’ এর প্রথম দিনে দ্বিতীয় অধিবেশনে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ৬৭ শতাংশ মৃত্যুর জন্য এনসিডি দায়ী। বাংলাদেশের ২০% মানুষ উচ্চ রক্তচাপ, ১০% ডায়বেটিস ও ২০ লাখ মানুষ ক্যান্সারে ভোগে। প্রতি বছর এ তালিকায় ৫০ হাজার যোগ হয়। জীবন যাত্রার পরিবর্তন, খাদ্যাভাসে পরিবর্তন, ওবিসিটি, তামাকের ব্যবহার, পরিবেশ দূষণ, অপর্যাপ্ত কায়িক পরিশ্রম, ওষুধের অপব্যবহারের কারণে এনসিডি বাড়ছে। এনসিডি প্রতিরোধে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে হবে। রেগুলার চেকআপ ও আর্লি ডিটেকশন এনসিডি কন্ট্রোলে গুরুত্বপূর্ণ। ট্রিটমেন্ট ফ্যাসিলিটি বাড়ানো ও প্রশিক্ষিত জনবল প্রয়োজন। সরকার এনসিডি প্রতিরোধে সেক্টর ভিত্তিক প্রোগ্রাম নিয়েছে। দেশের আট বিভাগে ক্যান্সার, কিডনি ও হৃদরোগের হাসপাতাল স্থাপন করা হচ্ছে। দেশের সব জেলা হাসপাতালে ১০ বেডের ডায়ালাইসিস ও আইসিইড বেড স্থাপন করা হচ্ছে। উপজেলা হজাসপাতালসহ দেশের সব হাসপাতালে এনসিডি কর্নার করা হয়েছে।

জাহিদ মালেক বলেন, হাসপাতালগুলো কোভিড রোগী দিয়ে ভর্তি হওয়ায় এনসিডি রোগীরা সেবা বঞ্চিত হয়েছে। দেরিতে সেবা নেয়ায় মৃত্যু বেড়েছে। এখন দেশে কোভিড পজিটিভিটি রেট ৩২%, দিনে ১৫ হাজারের বেশি রোগী শণাক্ত হচ্ছে। সংক্রমণ রোধে সবাইকে মাস্ক পরতে, জনসমাগম এড়ানো ও টিকা নেয়ার আহ্বান জানান মন্ত্রী।

রি-এসডি/ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়