নাসির-তামিমার বিয়ে: মামলার অভিযোগ গঠনের আদেশ ৯ ফেব্রুয়ারি

আগের সংবাদ

শেষ ম্যাচে হেরে গেল বাংলাদেশের মেয়েরা

পরের সংবাদ

কালীগঞ্জ থানায় জিডি করেও শেষ রক্ষা হলো না পির আলীর

প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৪, ২০২২ , ২:৪৪ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ২৪, ২০২২ , ২:৫৩ অপরাহ্ণ

প্রাণনাশের ভয়ে থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছিল পির আলী। জিডি করার ২০ দিন পর ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলায় কাষ্টভাঙ্গা ইউনিয়নের নলভাঙ্গা গ্রামের ছামছুলের ছেলে পির আলীর (৩৩) লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

সোমবার (২৪ জানুয়ারি) সকাল সাতটার দিকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। তিনি কালীগঞ্জের কাস্ট ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী ছিলেন।

রবিবার রাত আটটার দিকে বাড়ি থেকে বের হয় পির আলী। এরপর আর ফিরে আসেনি সে। সকালে পথচারীরা বাড়ির পাশ্ববর্তী নলভাঙ্গা খালের ধারে মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশকে খবর দেয় তারা। স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, ২০১৬ সালের নলভাঙ্গা গ্রামে মেয়েকে উত্যক্তের প্রতিবাদ করায় শাহিনুর রহমানের পা কেটে ফেলে স্থানীয় সন্ত্রাসীরা। এরপর বিভিন্ন দৈনিকে সংবাদ প্রকাশের পর আদালত থেকে নিজেই মামলা করা হয়। সেই মামলায় ঢাকা হাইকোর্ট থেকে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে আসামিদের আত্মসমর্পনের নির্দেশ দেন। এর প্রেক্ষিতে তারা আত্মসমর্পণ করে।

সেই সময় থেকে পরবর্তী ছয় মাস শাহিনুরের বাড়িতে পুলিশী নিরাপত্তা ব্যবস্থা রাখা ছিল। এই মামলার ১ নম্বর সাক্ষী ছিল নিহত পির আলী। আসামিরা জেল থেকে বেরিয়ে এসে পীর আলীকে নানাভাবে হুমকি দিতে থাকে। এ কারণে সপ্তাহখানেক আগে পির আলী নিজের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে কালীগঞ্জ থানায় জিডি করেছিলেন। ধারনা করা হচ্ছে এ ঘটনার জেরে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হতে পারে।

কালীগঞ্জ বারো বাজার পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ মোখলেছুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মৃতদেহটি একটি কড়ই গাছের ভাঙা ডালের সাথে নিচে পড়ে ছিল এবং তার গলায় রশি পেচানো অবস্থায় পড়েছিল। তবে গায়ে তেমন কোন আঘাতের চিহ্ন নেই। তাই এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা সেটি নিশ্চিত হওয়ার জন্য ময়নাতদন্ত করা হচ্ছে। এরজন্য, মৃতদেহটি ঝিনাইদহ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়