বরিশাল ভারসাম্যপূর্ণ দল: সাকিব

আগের সংবাদ

নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন দুটি হল চালু

পরের সংবাদ

নগরকান্দায় কুমার নদ খননের নামে বালু বাণিজ্য

প্রকাশিত: জানুয়ারি ২০, ২০২২ , ৫:১৭ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ২০, ২০২২ , ৫:২০ অপরাহ্ণ

ফরিদপুরের নগরকান্দায় কুমার নদ খননের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে নদীর তীরবর্তী শত পরিবার। দীর্ঘদিন ধরে শুরু হয়েছে কুমার নদ খননের কাজ। নদী খননের কাজটি করছে বেঙ্গল গ্রুপ নামে একটি প্রতিষ্ঠান।

বেঙ্গল গ্রুপের পক্ষে স্থানীয়ভাবে নদী খনন কাজটি দেখভাল করছেন সালাম নামের এক ব্যক্তি। সালাম এলাকায় সিন্ডিকেট তৈরি করে নদী খননের মাটি স্থানীয় জনসাধারণের মাঝে চড়া মুল্যে বিক্রি করেছে।

 

জনশ্রুতি রয়েছে, প্রতি ঘনফুট মাটি মাত্র ৪৮ পয়সা হারে রাজস্ব জমা দিয়ে প্রয়োজনে সংগ্রহ করা যাবে। তবে খননের মাটি নদীর দুই পাড়ে জমা থাকার কথা থাকলেও সালাম বিভিন্ন মানুষের সঙ্গে চুক্তি করে প্রতি ঘনফুট মাটি ৭/৮ টাকা হারে বিক্রি করে পাইপের মাধ্যমে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দিয়েছে।

অতি মুনাফার আশায় নদীর একই স্থান থেকে অতিরিক্ত বালু উত্তোলনের কারণে নদীর দুই পাড়ের বসত বাড়ি ঝুঁকির মধ্যে পড়ে ভাঙ্গন সৃষ্টি হয়েছে।

এতে সম্পূর্ণ ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে নগরকান্দা হাসপাতাল, সরকারি এমএন একাডেমি, থানা ভবন, বাজারসহ নদী তীরবর্তী বসতবাড়ি ও স্থাপনা।

সোমবার (১৭ জানুয়ারি) ধ্বসে পড়েছে নগরকান্দা গাংজগদিয়া ৫ নং ওয়ার্ডের প্রায় ১০ টি পরিবারের ঘরবাড়ি। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন নগরকান্দা পৌরসভার গাংজগদিয়া ৫ নং ওয়ার্ডের উজ্জ্বল মালো, আনন্দ মালো, ডেজেন মালোসহ আরও অনেকেই। পৌরসভার কেন্দ্রীয় কালি মন্দিরের একাংশ ধ্বসে পড়ায় বিপাকে রয়েছেন হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। নদীর পানি যতই কমতে থাকবে ততই ভাঙ্গনের তীব্রতা বৃদ্ধি পাবে বলে এলাকাবাসীর ধারণা।

স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, বালু বাণিজ্য করতে গিয়ে অতিরিক্ত খনন করার প্রভাব পড়েছে নদীর তীরবর্তী খেটে খাওয়া মানুষের উপর।

এ ব্যাপারে নগরকান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেতী প্রু বলেন, নদী ভাঙ্গনের বিষয়ে আমি জেলার সমন্বয় মিটিংয়ে উপস্থাপন করেছি। পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী (সমন্বয়) মিটিংয়ে জানিয়েছেন, অতি দ্রুত সমস্যাটি সমাধানের পদক্ষেপ নেয়া হবে।

ফরিদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী পার্থ প্রতিম সাহা সংবাদমাধ্যমকে জানান, আমি ঘটনাস্থলে গিয়েছি এবং উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেছি, খুব শীঘ্রই আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব। নদী খননের কাজ চলমান থাকবে কী না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নদী খননের কাজ চলমান থাকবে তবে যেখানে বাড়ি-ঘর রয়েছে সেখানে আমরা বিষয়টি মাথায় রেখে কম খনন করব।

টিআই

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়