জামিন মেলেনি অভিযান-১০ লঞ্চের তিন মালিকসহ সাতজনের

আগের সংবাদ

ভিসির অপসারণ দাবিতে আমরণ অনশনে শাবির ২৪ শিক্ষার্থী

পরের সংবাদ

শাবি ভিসির অডিও ফাঁস, জাবি ছাত্রীদের নিয়ে কটূক্তি

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৯, ২০২২ , ৩:১৮ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১৯, ২০২২ , ৩:৫৮ অপরাহ্ণ

সম্প্রতি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমদের একটি অডিও ক্লিপকে ঘিরে চলছে বিতর্ক ও সমালোচনা। সেই ক্লিপে তাকে বলতে শোনা গেছে, ‘জাহাঙ্গীরনগরের মেয়েদের সহজে কেউ বউ হিসেবে চায় না’।

ক্যাম্পাসে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমদকে অপসারণের দাবিতে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করছেন। এরমধ্যে, এ অডিও ক্লিপ ফাঁসের মধ্য দিয়ে আগুনে ভালোমতোই ঘি পড়েছে। তবে ক্লিপটি ২০১৯ সালের বলে ক্যাম্পাস সংশ্লিষ্টরা নিশ্চিত করেছেন।

অডিওতে শোনা যায়, ‘যারা এই ধরনের দাবি তুলেছে, যে বিশ্ববিদ্যালয় সারারাত খোলা রাখতে হবে, এইটা একটা জঘন্য রকম দাবি। আমরা মুখ দেখাইতে পারতাম না। এখানে আমাদের ছাত্রনেতা বলছে যে, জাহাঙ্গীরনগরের মেয়েদের সহজে কেউ বউ হিসেবে চায় না। কারণ সারারাত এরা ঘোরাফেরা করে। বাট আমি চাই না যে আমাদের যারা এত ভালো ভালো স্টুডেন্ট, যারা এত সুন্দর, এত সুন্দর ডিপার্টমেন্টগুলো, বিখ্যাত সব শিক্ষক… তারা যাদের গ্র্যাজুয়েট করবে, এরকম একটা কালিমা লেপুক তাদের মধ্যে।

অডিও শুনতে ক্লিক করুন: শাবি ভিসির অডিও

‘ওই জায়গাটা কেউ চায় না, কোনো গার্ডিয়ানও চান না কিন্তু। এখন আমরা যদি কোনো মেয়েকে বলি তোমার বাবা-মা কাউকে ফোন করবো… তখন তোমরাই তো এতে বাধা দিবা… না না না এইটা হবে না, দেখ হয়রানি করতেছে। কিন্তু এইটা তো প্রত্যেকের নৈতিক দায়িত্ব। তোমাদেরও নৈতিক দায়িত্ব যে, এই মেয়ে কেন রাতের বেলা সোয়া দশটা পর্যন্ত স্যাররে সময় দিসে?’

ওই ক্লিপে আরও শোনা যায়, ‘আমি মাঝে মাঝে ঢাকা থেকে যখন আসি, রাতে ১২টা-একটা বেজে যায়। আমি দেখি যে আমাদের ওয়ান কিলোমিটার রাস্তা দিয়া ছেলে-মেয়ে হাত ধরাধরি করে কনসালটিং করতাছে। একটা অঘটন ঘটে গেলে দায়দায়িত্ব ভাইস চ্যান্সেলরকে নিতে হবে। যত দোষ, নন্দ ঘোষ। ভাইস চ্যান্সেলর দায়ী সে জন্য।’

শিক্ষার্থীদের প্রতিক্রিয়া

ফাঁস হওয়া অডিও ক্লিপটির বিষয়ে একাধিক ছাত্রী জানান, ২০১৯ সালে হলের গেট রাত ১০টা পর্যন্ত খোলা রাখার দাবিতে ২০১৯ সালে ছাত্রীরা আন্দোলন করেছিলেন। তখন আন্দোলনকারী ছাত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে এ ‘কুরুচিপূর্ণ’ মন্তব্য করেন তিনি।

এ বিষয়ে এখনও পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বক্তব্য সংগ্রহ করা সম্ভব হয়নি। তার সঙ্গে ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি রিসিভ করেননি।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়