সেলিনা হায়াৎ আইভীর হ্যাটট্রিক জয়

আগের সংবাদ

নিউজ ফ্ল্যাশ

পরের সংবাদ

কোহলি সম্পর্কে যা বললেন সৌরভ

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৬, ২০২২ , ৭:৩৩ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১৬, ২০২২ , ৭:৩৩ অপরাহ্ণ

ভারতীয় ক্রিকেটে এক সফল অধিনায়কের নাম বিরাট কোহলি। ২০১৪ সালের অস্ট্রেলিয়া সফরে অ্যাডিলেড টেস্টে মহেন্দ্র সিং ধোনির অনুপস্থিতিতে টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে তার যাত্রা শুরু হয়। তারপর ২০১৫ সালের শুরুতে আনুষ্ঠানিকভাবেই ভারতীয় টেস্ট দলের দায়িত্ব নেন বিরাট কোহলি। এরপর থেকেই আক্রমণাত্মক এক টেস্ট অধিনায়ককে দেখতে পায় ক্রিকেট বিশ্ব। ২০১৫ সালের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত টানা সাত বছর ভারতীয় টেস্ট দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন কোহলি। অবশেষে দক্ষিণ আফ্রিকা টেস্ট সিরিজ শেষে হঠাৎ করে ভারতীয় টেস্ট দলের অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন ভারতীয় ক্রিকেটের জীবন্ত কিংবদন্তি বিরাট কোহলি। একটু কালক্ষেপণ করে হলেও বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙ্গুলি এক বিবৃতিতে বলেছেন, ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক হিসেবে তার বিশাল অবদানের জন্য আমি ব্যক্তিগতভাবে বিরাটকে ধন্যবাদ জানাই। তার নেতৃত্বাধীন ভারতীয় ক্রিকেট দল সব ফরম্যাটের খেলায় দ্রুত উন্নতি সাধন করেছে। তার এই সিদ্ধান্ত একান্তই ব্যক্তিগত এবং বিসিসিআই তার সিদ্ধান্তকে সমর্থন করে। এই দলের খুব গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হিসেবে সে খেলবে এবং নতুন অধিনায়কের অধীনে ব্যাট হাতে অবদান রেখে এই দলকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাবে।

এর আগে গত অক্টোবরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ঠিক আগে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের নেতৃত্ব ছাড়ার ঘোষণা দেন বিরাট কোহলি। এ সময় সৌরভ জানান, কোহলিকে টি-টোয়েন্টির নেতৃত্ব না ছাড়তে অনুরোধ করেছিলেন তিনি। কিন্তু শোনেননি। আর বোর্ড সীমিত ওভারের দুই ফরম্যাটে আলাদা অধিনায়ক রাখার পক্ষে নেই। এরপর ওয়ানডে অধিনায়ক থেকে বিরাটকে প্রায় জোর করেই সরিয়ে দিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড (বিসিসিআই)। তবে এই বিষয়টি নিয়ে বেশ জল ঘোলা হয়েছে ভারতসহ বিশ্ব ক্রিকেটে। বোর্ড সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলির সঙ্গে বিতর্কেও জড়িয়ে গিয়েছিলেন বিরাট কোহলি।

বোর্ড সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি বলেছিলেন, তিনি নিজেই কোহলির সঙ্গে অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়ানো নিয়ে কথা বলেছিলেন এবং কোহলি সেখানে কোনো প্রকার আপত্তি জানায়নি। তারপর এক সংবাদ সম্মেলনে কোহলি জানান, দল নির্বাচনের মাত্র দেড় ঘণ্টা আগে তাকে ওয়ানডে নেতৃত্ব হারানোর সংবাদ দেয়া হয়।

ভারতীয় ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটের অধিনায়ক ক্রিকেট কিং বিরাট কোহলি গত অক্টোবর থেকে অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর প্রক্রিয়া শুরু করেন। টি-টোয়েন্টি, ওয়ানডে এবং সর্বশেষে এই জানুয়ারিতে সম্প্রতি শেষ হওয়া দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে জানিয়ে দেয় টেস্ট অধিনায়ক থেকে বিদায় বার্তা। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে প্রোটিয়াদের মাটিতে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ম্যাচে জয়লাভ করলেও ২-১ ব্যবধানে সিরিজে পরাজয় বরণ করে ভারত। এরপর বোর্ডের অপেক্ষা না করে দক্ষিণ আফ্রিকা বসেই দীর্ঘ সাত বছর ধরে নেতৃত্ব দেয়া সাম্রাজ্যের ইতি টানার ঘোষণা দেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

গতকাল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে এ ঘোষণা দিতে গিয়ে কোহলি লিখেন, ‘সাত বছরের কঠোর পরিশ্রম, দলকে সঠিক পথে চালাতে নিরলস প্রচেষ্টা। আমি এই কাজটা অত্যন্ত সততার সঙ্গে ও কোনো কিছুই বাকি না রেখে করেছি। সবকিছুরই শেষ আছে। ভারতের টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে আমার জন্য সেই সময়টা এখনই। এখানে অনেক উত্থান-পতন ছিল। কিন্তু কখনোই এখানে প্রচেষ্টা বা বিশ্বাসের কমতি ছিল না। আমি সব সময়ই যা কিছুই করেছি নিজের ১২০ শতাংশ দিয়ে চেষ্টা করেছি। তবে এখন আমার মনে হয়েছে সেটা আমি পারছি না। দলের প্রতি আমি এমন অসৎ হতে পারি না।’

বিসিসিআইকে ধন্যবাদ দিয়ে কোহলি লিখেন, ‘আমি বিসিসিআইকে ধন্যবাদ দিতে চাই লম্বা সময় ধরে দেশকে নেতৃত্ব দেয়ার সুযোগ করে দেয়ায়। তার চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ আমার সতীর্থরা, যারা প্রথম দিন থেকে আমার স্বপ্নের অংশ আর কোনো পরিস্থিতিতেই ভেঙে পড়েনি। তোমরা আমার যাত্রাকে অনেক বেশি সুন্দর করেছ।’

এক প্রজন্মে একবারই আসা অনন্য বিরাট কোহলির টেস্ট অধিনায়কত্ব ছাড়ার ঘোষণা দেয়ার পর তার ব্যক্তিগত সিদ্ধান্তকে শ্রদ্ধা জানিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট নিয়ন্ত্রণ বোর্ড (বিসিসিআই)।

বিসিসিআই সেক্রেটারি জয় শাহ বলেছেন, ‘বিরাট কোহলি ভারতীয় ক্রিকেট দলের সর্বকালের সেরা অধিনায়কদের একজন। একজন নেতা হিসেবে দলে তার রেকর্ড ও অবদান দ্বিতীয় কারো নেই। ৪০ টেস্টে জয়ই প্রমাণ করে দুর্দান্তভাবে দলকে নেতৃত্ব দিয়েছে। ভবিষ্যতের জন্য অনেক শুভকামনা জানাই আমরা এবং আশা করব ভারতীয় ক্রিকেট দলের জন্য মাঠে স্মরণীয় অবদান রাখবে।’

ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে সেরকম বড় কোনো অর্জন না থাকলেও গত সাত বছরে ৬৮টি টেস্টে ভারতকে নেতৃত্ব দিয়ে জয় ছিনিয়ে নিয়েছে ৪০টিতে। বাকি ২৮টি ম্যাচের মাঝে ড্র হয়েছে ১১টি এবং পরাজয় বরণ করেছে ১৭টিতে। ভারতীয় অধিনায়ক হিসেবে ৫৮.৮২ শতাংশ জয়লাভ করা বিরাটের থেকে অনেক পিছিয়ে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে আছে মহেন্দ্র সিং ধোনি (৬০ টেস্টে ২৭ জয়) এবং সৌরভ গাঙ্গুলি (৪৯ টেস্টে ২১ জয়)। এই হিসাব-নিকাশের তালিকায় পুরো বিশ্ব টেস্ট ক্রিকেট বিশ্বে সর্বকালের অন্যতম এক সেরা অধিনায়ক বিরাট কোহলি।

কোহলির অধীনেই টেস্ট ক্রিকেটের সর্বোচ্চ আসনে অধিষ্ঠিত হয়েছিল ভারত, সেই সঙ্গে অর্জন করেছিল টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ।

গত দুই বছরে একটিও আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরি না করলেও ৫৪.৮’র গড়ে মোট ৫৮৬৪ টেস্ট রান করেছেন বিরাট, রয়েছে ২০টি শতরানও। এত সব অর্জন থাকা সত্ত্বেও ভারতীয় ক্রিকেট কিংয়ের দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে ব্যর্থতার মাধ্যমে অধিনায়কত্ব সফর শেষ হয়েছে।

রি-এসএস/ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়