দুই প্রার্থী কে কোথায় ভোট দিবেন

আগের সংবাদ

করোনায় আক্রান্ত রাসিক মেয়র লিটন

পরের সংবাদ

নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হবে: জেলা প্রশাসক

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৫, ২০২২ , ৯:১৩ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১৫, ২০২২ , ৯:৪৬ অপরাহ্ণ

নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ বলেছেন, আমরা সবাইকে আশ্বস্ত করতে চাই আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কাজ করছে। আমাদের গোয়েন্দা নজরদারি অব্যাহত রয়েছে। নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হবে। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের অভিযোগ প্রসঙ্গে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ বলেছেন, আমরা স্বতন্ত্র প্রার্থীর কাছ থেকে লিখিত, ফোনে বা অন্য কোনো মাধ্যমে অভিযোগ পাইনি। আমরা নির্বাচনের রুটিন ওয়ার্ক করছি। তিনি বলেন, দাগী আসামিদের বিরুদ্ধেই অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।

শনিবার (১৫ জানুয়ারি) দুপুরে নিজ কার্যালয়ে নাসিক নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সাংবাদিকদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ বলেন, আমরা ভোটের সব সরঞ্জাম পৌঁছে দিয়েছি। আমাদের ৯ জন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে নয়টি টিম আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় কাজ করছেন। আগামীকাল আরও ৩০ জন ম্যাজিস্ট্রেটসহ ৩৯টি টিম কাজ করবে। আমাদের পুলিশে ৭৬টি টিম ও ৬৫টি র‌্যাবের টিম মাঠে থাকবে। বিজিবির ১৪ টি দল মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে। আগামীকাল বিজিবি’র আরো ৬ টি দলসহ মোট ২০ টি দল কাজ করবে। এর বাইরে আমাদের আরও ৬জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাজ করবে। কেন্দ্রগুলোতে ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ এবং বিজিবি কাজ থাকবে। আমাদের পুলিশ সুপার এবং র‌্যাব কর্মকর্তারাও আছেন। আমাদের গোয়েন্দা নজরদারি অব্যাহত রয়েছে। নির্বাচনের জন্য যারা হুমকি হতে পারে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থাা নেয়া হয়েছে। আশা করি সুষ্ঠু পরিবেশে ভোটাররা ভোট দিতে পারবেন।

সিসি ক্যামেরা খুলে ফেলা প্রসঙ্গে মোস্তাইন বিল্লাহ তিনি বলেন, আমরা সবাইকে আশ্বস্ত করতে চাই আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কাজ করছে। আমাদের গোয়েন্দা নজরদারি অব্যাহত রয়েছে। নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে হবে। জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ বলেন, আমরা এখন পর্যন্ত ২০০ মামলা করেছি, একজনকে কারাদÐ দেওয়া হয়েছে এবং লক্ষাধিক টাকা জরিমানা করেছি নির্বাচনের আচরণবিধি লঙ্ঘনের জন্য।

বহিরাগতদের অবস্থান নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকারের অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের কথা জানি না সেটা সরকারি প্রতিষ্ঠান নয়। এছাড়া কোনো সরকারি বাসস্থানে প্রশাসনের লোক ছাড়া কাউকে স্থান দেওয়া হয়নি। আমরা সব সেন্টারকে গুরুত্ব সহকারে দেখছি। সবাই নির্বিঘেœ ভোটকেন্দ্রে এসে ভোট দিতে পারবেন।

তিনি বলেন, স্বাস্থবিধি মেনে ভোট দিতে হবে। ভোটকেন্দ্রে সুরক্ষাসামগ্রী থাকবে। আমরা সে ব্যাপারে সচেতন আছি। আমরা প্রার্থীদের প্রতি আহ্বান জানাবো সবাইকে সচেতন করার। এতদিন সবাই শান্তিপূর্ণভাবে প্রচারণা চালিয়েছেন। আশাকরি ভোটের দিনও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ আপনারা বজায় রাখবেন।

এদিকে প্রেস ব্রিফিংয়ে র‌্যাব-১১’র অধিনায়ক (সিও) লেঃ কর্ণেল তানভীর মাহমুদ পাশা বলেন, নির্বাচনের পরিবেশ সুন্দর রাখার জন্য সর্বত্র চেষ্টা রয়েছে। যারা ভোটার আছেন তারা যেন নির্বিঘ্নে ও নিশ্চিন্তে উৎসব মুখর পরিবেশে ভোট কেন্দ্রে আসতে পারে তার সর্বত্র চেষ্টা রয়েছে। তিনি বলেন, যারা প্রার্থী এবং প্রার্থীর সমর্থকরা আছেন তারা যেন সুন্দর আরচরণ করেন এবং বিধিগুলো মেন চলেন। তিনি বলেন, শুধু আমরা ভোট কেন্দ্রকেই টার্গেট করছি না। আমাদের প্রত্যেকটি ওয়ার্ড ও এলাকা এবং একজন ভোটার যেন তার নিজেদের বাড়ি থেকে ভোট কেন্দ্রে আসতে পারে এবং ভোট দিয়ে যেন নিশ্চিন্তে বাড়ি ফিরে যেতে পারে আমরা সকল বাহিনী মিলে সেই ব্যবস্থা করব। শুধু তাই নয় নির্বাচনের ফলাফল হওয়ার পরও কেউ যাতে অশান্তি সৃষ্টি করতে নার পারে এবং কোন সংঘাত সৃষ্টি করতে না পারে যে ব্যবস্থা আমরা দেখব। ভোটের পরদিনও আমাদের একই ব্যবস্থা থাকবে।

বিজিবি’র লেঃ কর্ণেল আল-আমিন বলেন, আমরা র‌্যাব পুলিশসহ অন্যান্য বাহিনীর সঙ্গে মিলে আমাদের টিম কাজ করছে। আমরা আপনাদের আশ^স্ত করতে চাই নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু করার জন্য যা কিছু দরকার আমরা তার করবো। সুন্দর পরিবেশ অব্যাহত রাখবো।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়