সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্ত মেয়র তাপস

আগের সংবাদ

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা

পরের সংবাদ

প্রশাসন কখনো হাতের মুঠোয় ছিল না, নেয়ার চেষ্টাও করিনি: আইভী

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৩, ২০২২ , ৬:৩২ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১৩, ২০২২ , ৬:৩২ অপরাহ্ণ

নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পুলিশ হয়রানি করছে: তৈমুর

নির্বাচনী প্রচারণার জন্য আর মাত্র ১টি দিন পাচ্ছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। ইতোমধ্যে মেয়র প্রার্থীরা তাদের বড় ধরনের শোডাউন শেষ করেছেন। কয়েকজন কাউন্সিলরও শো ডাউন করেছেন।

বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী এবং স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী বিএনপি চেয়ারপারসনের সাবেক উপদেষ্টা তৈমুর আলম খন্দকার গণসংযোগ করেছেন।

আইভী সকালে নিজ এলাকা দেওভোগে ১৬ নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ চালান এবং ১২ নং ওয়ার্ডে শহরের কিল্লারপুর এলাকায় প্রচারণা চালান তৈমুর। গণসংযোগকালে আইভী বলেন প্রশাসন কখনো আমার হাতের মুঠোয় ছিল না, নেওয়ার চেষ্টাও করিনি। অন্যদিকে তৈমুর অভিযোগ করে বলেন, তার নির্বাচনী এজেন্ট ও যারা তার সমর্থনে কাজ করেন তাদের বাড়ি বাড়ি পুলিশ গিয়ে হয়রানি করছে।

বৃহস্পতিবার সকালে নারায়ণগঞ্জ শহরের দেওভোগ এলাকায় ১৬ নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ করেন আওয়ামী লীগ দলীয় মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী। তৈমুরের নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার ও হয়রানির অভিযোগ প্রসঙ্গে আইভী বলেন, আমি জানি না কাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের নাম বলুক। আমি একজনকে গ্রেপ্তারের কথা জানি, যাকে হেফাজতের নাশকতার মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। আর কাকে ধরেছে, কী করেছে, সেটি আমি জানি না। জানার ব্যাপারও না।

তিনি বলেন, প্রশাসন কখনো আমার হাতের মুঠোয় ছিল না, নেয়ার চেষ্টাও করিনি। আমি সব সময় জনগণের দোড়গোড়ায় যাওয়ার চেষ্টা করেছি, সরকারী দলের প্রার্থী হিসেবে বাড়তি সুবিধা পাইনি, নেয়ার চেষ্টাও করি না। তিনি বলেন, জনগণ যেহেতু আমার পাশে আমি কেন বাড়তি সুবিধা নিতে যাব।

আইভী বলেন, আমি তো জনবিচ্ছিন্ন কেউ না, কেউ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটানোর চেষ্টা করলে সেটি নিশ্চয় প্রশাসন দেখবে। আমার তো সেটা দেখার সময় নেই। আমার জনগণের কাছে যেতে হবে, জনতার কাছে ভোট চাইতে হবে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যদি কোনো সমস্যা হয় তারা দেখবে।

উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটারদের ভোট দিতে যাওয়ার আহবান জানিয়ে আইভী বলেন, বিগত দুটি সিটি নির্বাচন ও পৌরসভা নির্বাচনের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ওই নির্বাচনে টানটান উত্তেজনা ছিল। কিন্তু রাত শেষে সকালে ভোটাররা শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট দিয়েছে। পরিবেশ সুন্দর ছিল। তিনি প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে বলেন, নারায়ণগঞ্জের নির্বাচনের পরিবেশ যেন সুন্দর থাকে সেই ব্যবস্থা যেন তারা করেন। তিনি বলেন, নতুন প্রজন্ম মনে করেন, আমার সততা ও ঈমানের সহিত আমি দলের একজনকর্মী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। একই সঙ্গে দলমতের উর্ধ্বে উঠে নারায়ণগঞ্জবাসীর সেবা করেছি। নতুন ভোটাররা এইগুলো পছন্দ করেন বলে উল্লেখ করেন তিনি। আইভী বলেন, পরিস্কার, স্বচ্ছ কথা বলি, কখনো মিথ্যার আশ্রয় নিই না।

তিনি বলেন, শহরে যদি কোনো বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয় সেটি দেখভালের দায়িত্ব প্রশাসনের। আমি কোনো সহিংসতার সঙ্গে জড়িত না। আমি কাউকে বলিও নাই, ওকে ধরেন। আমি চাই, আমার ভোটাররা যাতে ভোট কেন্দ্রে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট দিতে যেতে পারে। কোনো সন্ত্রাসী যেন ঝামেলা পাকাতে না পারে, প্রশাসনকে সেই পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে।

আইভী বলেন, নারায়ণগঞ্জে নৌকার গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। তারা নৌকায় ভোট দেবেন এবং মানুষ সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন তারা কাকে ভোট দেবেন। জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী তিনি।

অন্যদিকে গণসংযোগকালে তৈমুর অভিযোগ করেন, তার নির্বাচনী এজেন্ট ও যারা তার সমর্থনে কাজ করেন তাদের বাড়ি বাড়ি পুলিশ গিয়ে হয়রানি করছে। বুধবার রাতে ১০/১৫ জন পুলিশ তার বাড়ির সামনে অবস্থান নিয়েছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা এমনিতেই বিরোধী দলের প্রার্থী, বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে গায়েবী মামলা তো আছেই। এখনও গায়েবী মামলার হয়রানি কাটেনি।

সুষ্ঠু নিবার্চন নিয়ে তৈমুর আলম খন্দকার শঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, সরকারী দলের প্রার্থী হয়ে তার দলের নেতাকর্মী গ্রেপ্তার ও হয়রানি বন্ধ করা না হলে সুষ্ঠু ভোটের পরিবেশ নষ্ট হবে। তিনি অভিযোগ করেন, গত কয়েকদিনে জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহবায়কসহ ১৭ জনকে আটক করা হয়েছে। তিনি বলেন, পুলিশ রাতে বাড়ি বাড়ি গিয়ে খোজাখুঁজি করলে মানুষের মানসিক অবস্থা কী দাড়ায়?

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও পুলিশ সুপারকে উদ্দেশ্য করে বলেন, নির্বাচনের আগে হয়রানি বন্ধ করুন। ভোটের উৎসবমুখর পরিবেশ নষ্ট করবেন না, ভোটারদের মধ্যে আতঙ্ক তৈরী করবেন না।

নির্বাচনে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা ও বিদেশী দূতাবাসের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তৈমুর বলেন, বিদেশী দূতাবাসে যারা আছেন, তাদের প্রতি অনুরোধ করব, আপনারা নির্বাচনের দিন মাঠে থাকেন। দেশী ও বিদেশী মিডিয়ার উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করেন। পুলিশকে জিজ্ঞাসা করেন, কেন তার দলের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের হয়রানি করা হচ্ছে। তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

তিনি প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, আমি আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলতে চাই, আপনার পুলিশ হয়রানি করছে, ১৬ তারিখে ভোটের পর আপনি আইন যা বলে আপনি তা করবেন। কিন্তু নির্বাচনটা সুষ্ঠুভাবে হতে দেন। সুষ্ঠুভাবে যে নির্বাচন হচ্ছিল সেটা বাধাগ্রস্থ হতে দিবেন না।

নগরবাসীকে উদ্দেশ্য করে তৈমুর বলেন, আপনারা ভোট কেন্দ্রে আসুন, ভোট দিন। নতুন ইভিএম পদ্ধতি প্রদান করে পদ্ধতিটাকে জানুন। তিনি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, আগামী ১৬ জানুয়ারী জনগণ ভোট দেবে, জনগণের রায়ে তিনি জয়ী হবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

টিআই

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়