যেভাবে ধরা পড়ল সিরিয়াল কিলার ফকির সেলিম

আগের সংবাদ

মার্কিন গণতন্ত্র ধ্বংসের ঝুঁকিতে মনে করেন ৫৮ শতাংশ আমেরিকান

পরের সংবাদ

জেএমবির দিনাজপুর ও নীলফামারী শাখার প্রধান গ্রেপ্তার

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৩, ২০২২ , ১:৫৬ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১৩, ২০২২ , ১:৫৬ অপরাহ্ণ

নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশের (জেএমবি) দিনাজপুর ও নীলফামারী জেলার দাওয়াহ শাখার অন্যতম প্রধানকে গ্রেপ্তার করেছে অ্যান্টি টেররিজম ইউনিট (এটিইউ)। গ্রেপ্তার জেমবি সদস্যের নাম হাফেজ মো. ওয়াহিদুল ইসলাম (৩৮)।

অ্যান্টি টেররিজম ইউনিট দাবি করছে, শিক্ষকতার আড়ালে ওয়াহিদুল দিনাজপুর ও নীলফামারি জেলার জেএমবি’র দাওয়াহ শাখার অন্যতম প্রধান হিসেবে দাওয়াতি ও সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিলেন।

বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) অ্যান্টি টেররিজম ইউনিটের পুলিশ সুপার (মিডিয়া অ্যান্ড অ্যাওয়ারনেস) মোহাম্মদ আসলাম খান এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, গত ৪ ডিসেম্বর নীলফামারী জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জেএমবির পাঁচজন সক্রিয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারদের বিরুদ্ধে নীলফামারী সদর থানায় মামলা হয়। পরবর্তীতে গ্রেপ্তারকৃতদের পুলিশ হেফাজতে এনে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

গ্রেপ্তারদের দেয়া তথ্যের ভিত্তি করে অ্যান্টি টেররিজম ইউনিটের একটি গোয়েন্দা দল নীলফামারী ও দিনাজপুর অঞ্চলের সক্রিয় জেএমবি সদস্যদের গ্রেপ্তারের জন্য ধারাবাহিক অভিযান পরিচালনা করতে থাকে। সেই অভিযানের অংশ হিসেবে গত ১১ ডিসেম্বর এটিইউ নীলফামারী জেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে জেএমবি’র তিন জন সক্রিয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করে এবং নীলফামারী সদর থানার ওই মামলায় আদালতে সোপর্দ করে।

এতে করে এলাকার সক্রিয় সদস্যরা ঢাকা এবং চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় আত্মগোপনে চলে যায়। এটিইউ’র একটি গোয়েন্দা দল নিজস্ব তথ্যের ভিত্তিতে বুধবার রাতে ঢাকায় আত্মগোপনে থাকা দিনাজপুর ও নীলফামারি জেলার দাওয়াহ বিভাগের অন্যতম প্রধান হাফেজ ওয়াহিদুল ইসলামকে গাবতলী আরিচা হাইওয়ের এসএস ফিলিং স্টেশনের সামনে থেকে গ্রেপ্তার করে।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আসলাম খান বলেন, হাফেজ ওয়াহিদুল ইসলাম দিনাজপুরের খানাসামা থানাধীন মন্ডলের বাজার কুমুড়িয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার হেফজখানার হাফেজ শিক্ষক। শিক্ষকতার আড়ালে তিনি দিনাজপুর ও নীলফামারি জেলার জেএমবি’র দাওয়াহ শাখার অন্যতম প্রধান হিসেবে দাওয়াতি ও সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিলেন।

গ্রেপ্তারের সময় তার কাছ থেকে অ্যান্টি টেররিজম ইউন্টি একটি মোবাইল সেট ও দুইটি সিম কার্ড জব্দ করেছে। গ্রেপ্তারকৃত হাফেজ ওয়াহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়