নাটোরে ত্রিমুখী সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ১০

আগের সংবাদ

সিনেমার গল্পকেও হার মানায় যে খুন

পরের সংবাদ

করোনা সংক্রমণের রেড জোন ঢাকা ও রাঙ্গামাটি

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১২, ২০২২ , ৯:২৬ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১২, ২০২২ , ১১:৩৮ পূর্বাহ্ণ

দেশে করোনা সংক্রমন ক্রমশই ঊর্ধ্বমুখী হচ্ছে। ওমিক্রনের সংক্রমণ নিয়েও বাড়ছে উদ্বেগ। এরইমধ্যে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য বলছে সংক্রমনের রেড জোন ঢাকা ও রাঙ্গামাটি অঞ্চল।

এই দুই অঞ্চলে করোনা সংক্রমনের হার ১০ থেকে ২০ শতাংশের মধ্যে। আর ৮ থেকে ৯ শতাংশের মধ্যে সংক্রমণের হার রয়েছে দেশের যে কয়টি অঞ্চলে সেগুলো হলো রাজশাহী, নাটোর, লালমনিরহাট, যশোর, দিনাজপুর ও রংপুর এলাকা।

ক্ষীণ ঝুঁকিতে থাকা জেলাগুলো হলো- চট্টগ্রাম, বগুড়া, গাজীপুর, কক্সবাজার, কুষ্টিয়া, নীলফামারী, বরগুনা, শেরপুর, মেহেরপুর, ঠাকুরগাঁও, ফেনী, সিরাজগঞ্জ, জামালপুর, পিরোজপুর, বাগেরহাট, নারায়ণগঞ্জ, নওগাঁ, ঝালকাঠি, খুলনা, পটুয়াখালী, কুড়িগ্রাম, জয়পুরহাট, ফরিদপুর, বরিশাল, চুয়াডাঙ্গা, মানিকগঞ্জ, চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর, ময়মনসিংহ, রাজবাড়ী, সিলেট, সাতক্ষীরা, গোপালগঞ্জ, মৌলভীবাজার, নোয়াখালী, কিশোরগঞ্জ, গাইবান্ধা, শরীয়তপুর, মুন্সীগঞ্জ, নরসিংদী, খাগড়াছড়ি, ঝিনাইদাহ, পাবনা, মাদারীপুর, মাগুরা, সুনামগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, কুমিল্লা, নেত্রকোনা, ভোলা, টাঙ্গাইল, হবিগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়ীয়া, নড়াইল।

বাংলাদেশের করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতিতে বিভিন্ন এলাকাকে রেড, ইয়েলো ও গ্রিন বা লাল, হলুদ ও সবুজ – এই তিন ভাগে ভাগ করে থাকে স্বাস্থ্য অধিদফতরের ওয়েবসাইটে।

এদিকে রেড জোন বা উচ্চ ঝুঁকি মানেই রেড অ্যালার্ট জারি নয় বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা মাইদুল ইসলাম প্রধান। তিনি বলেন, একটি টেলিভিশনসহ কয়েকটি পত্রিকায় রেড অ্যালার্টের খবরে আমি স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালকসহ সবাইকে জিজ্ঞেস করেছি, কেউই বলতে পারছে না যে তারা রেড অ্যালার্ট জারি করেছেন।

মাইদুল ইসলাম বলেন, আমাদের ভালো করে বুঝতে হবে যে, ঝুঁকিতে থাকা আর রেড অ্যালার্ট জারি করা একই ব্যাপার নয়।

এদিকে গতকাল মঙ্গলবার করোনা নমুনা পরীক্ষায় ২ হাজার ৪৫৮ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। সরকারি, বেসরকারি স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠানে ২৭ হাজার ৩৯৯ টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় করোনা শনাক্তের হার ৮ দশমিক ৯৭ শতাংশ। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২ জন। তাদের নিয়ে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ২৮ হাজার ১০৭ জনে। এ সময়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২৭৪ জন।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়