দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়রের ক্ষমতা পেলেন জুয়েল

আগের সংবাদ

চবি কটেজ থেকে শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

পরের সংবাদ

লক্ষ্মীপুরে যুবদল নেতাকে হত্যা, ৭ জনের যাবজ্জীবন

প্রকাশিত: জানুয়ারি ৩, ২০২২ , ৩:২৮ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ৩, ২০২২ , ৩:৩৮ অপরাহ্ণ

লক্ষ্মীপুরের যুবদল নেতা আনোয়ার হোসেন হত্যা মামলায় সাত আসামির যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এ মামলায় আরও ১১ জনকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (৩ জানুয়ারি) দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ রহিবুল ইসলাম এ রায় ঘোষণা করেন।

রায়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন লক্ষীপুর সদর উপজেলার দত্তপাড়া ইউনিয়নের সাবেক সদস্য আজিজ মেম্বার ও তার ছেলে সবুজ, বিল্লাল হোসেন বিপ্লব, ইব্রাহিম, মানিক, ইসমাইল হোসেন এবং আবুল কাশেম মেম্বার। এ সময় দণ্ডপ্রাপ্ত ইসমাইল ও আবুল কাশেম মেম্বার উপস্থিত থাকলেও বাকি আসামিরা পলাতক রয়েছেন।

জেলা জজ আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট জসিম উদ্দিন রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, প্রত্যেকের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধি ৩০২/১০৯ ধারায় অপরাধী সাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড এবং ১০ হাজার টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে আরও এক বছর বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

নিহত আনোয়ার হোসেন লক্ষীপুরের দত্তপাড়া ইউনিয়নের শ্রীরামপুর গ্রামের মৃত আবদুল বাতেনের ছেলে এবং প্রয়াত ইউপি চেয়ারম্যান নুর হোসেন শামীমের ছোটভাই। তিনি ঐ ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি ছিলেন। তার ভাই চেয়ারম্যান শামীমও সন্ত্রাসীদের হাতে খুন হয়েছিলেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, আনোয়ার হোসেন ২০১১ সালের ৪ জুন দত্তপাড়া বাজারে তার ভাইয়ের নির্বাচনি অফিসে বসে ছিলেন। এ সময় আসামিরা নির্বাচনি অফিসে হামলা করে আনোয়ারের বুকে অস্ত্র ঠেকিয়ে গুলি করে হত্যা করে। পরের দিন তার বড়ভাই মো. আশেক ই এলাহী ওরফে বাবুল বাদী হয়ে লক্ষীপুর সদর থানায় ২৫ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ১০-১২ জনের নামে হত্যা মামলা করেন।

পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) মামলাটি তদন্ত করে ২০১৫ সালের ১০ জানুয়ারি অভিযুক্ত ১৮ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করে। দীর্ঘ শুনানি শেষে ১৪ জনের সাক্ষ্যগ্রহণের পর আদালত সাতজনের যাবজ্জীবন ও ১১ আসামিকে খালাস দেন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়