জবিতে কাউন্সেলিং সেন্টার উদ্বোধন

আগের সংবাদ

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সৌন্দর্যবর্ধনের কাজ চলছে

পরের সংবাদ

মদনে এগিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা, নৌকার ভরাডুবির আশঙ্কা

প্রকাশিত: জানুয়ারি ৩, ২০২২ , ৩:৫৭ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ৩, ২০২২ , ৩:৫৭ অপরাহ্ণ

নেত্রকোনার মদনে পঞ্চম ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রচার প্রচারণা শেষ। প্রার্থীরা ভোটারদের পা ছুঁয়ে ভোট ভিক্ষা করছেন। ৫ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত হবে উপজেলার আটটি ইউনিয়নের এ নির্বাচন। নির্বাচনকে ঘিরে এখন ভোটাররা প্রার্থী বাছাইয়ে চুলছেড়া বিশ্লেষণ করছেন। দলীয় কোন্দল, বিদ্রোহী প্রার্থী, জনপ্রিয়তা কম এমন প্রার্থী হওয়ায় উপজেলার একাধিক ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা পিছিয়ে রয়েছেন। বিএনপি সরাসরি নির্বাচনে অংশ গ্রহণ না করলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রত্যেক ইউনিয়নে একাধিক প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

উপজেলার আটটি ইউনিয়ন থেকে এবার চেয়ারম্যান পদে ৩৯ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে তিনটি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের ৫ বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন। এসব বিদ্রোহী প্রার্থীই আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের বিজয়ের ক্ষেত্রে অন্তরায় হয়ে দাড়িঁয়েছেন।

উপজেলার মাঘান ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগ নেতা বর্তমান চেয়ারম্যান জি এম কায়কোবাদ চৌধুরী। এ ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে ভোট যুদ্ধে নেমেছেন ইউনিয়ন আওয়ামী নেতা প্রাক্তন চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হবি ও সাবেক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. জহিরুল ইসলাম মাসুদ। গত নির্বাচনে অল্পভোটের ব্যবধানে মাসুদ নৌকার প্রার্থীর নিকট হেরে যান। ফলে এবারের নির্বাচনে একটি বৃহৎ এলাকার ভোটারগণ তাকে সমর্থন দিচ্ছেন। নৌকার প্রার্থী বিগত নির্বাচনে জয়লাভ করার পর এলাকার বেশি না আসার কারণে এবার ভোটাররা তাকে সমর্থন দিচ্ছে না। এ ইউনিয়নে নৌকার বিদ্রোহী দুই প্রার্থীর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে ভোটারা আলোচনা করছেন। এখানে বিএনপির স্বতন্ত্র প্রার্থী মোস্তাক আহমেদ চৌধুরী ঘোড়া প্রাতীক নিয়ে নির্বাচনে লড়ছেন।

গোবিন্দশ্রী ইউনিয়নে নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা একে এম নূরুল ইসলাম ছদ্দু মাস্টার। একই গ্রামে নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী আনারস প্রতীকে এম এ মালেক মাস্টার ও বিএনপি স্বতন্ত্র প্রার্থী চশমা প্রতীক মোবারক হোসেন থাকায় জনমত জরিপে নৌকার প্রার্থী কোনঠাসা হয়ে পড়েছেন। এছাড়া এ ইউনিয়নে একটি বৃহৎ অংশে ভোটারগণ আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মাইদুল ইসলাম খান মামুন (ঘোড়া)কে সমর্থন দেওয়ায় তার অবস্থান ভালো।

তিয়শ্রী ইউনিয়নে এবার নৌকার প্রার্থী হয়েছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মুজিবুর রহমান মাস্টার। গত নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সামান্য ভোটের ব্যবধানে হেরে যান। এবার প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে ভোটারদের ব্যাপক সাড়া পাওয়ায় তার জয় প্রায় সুনিশ্চিত। এ ইউনিয়নে এবার নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন পদত্যাগ করা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা তাঁতী লীগের সভাপতি তোফায়েল আহমেদ(চশমা)। তিনি নৌকার সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বলে এলাকার ভোটারদের ধারণা। এ ইউনিয়নে বিএনপির চার নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ভোট যুদ্ধে রয়েছেন।

মদন ইউনিয়নে এবার নৌকার সঙ্গে বি,এন,পির প্রার্থীর লড়াই হবে। তবে বি,এন,পির প্রার্থীরা সুষ্ঠু ভোট নিয়ে সংশয় প্রকাশ করছেন। আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের খাইরুল ইসলামের সঙ্গে পৌর বি,এন,পির সভাপতি সাইদুর রহমান সম্রাট ঘোড়া প্রতীকের হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে। এখানে প্রাক্তন বিএনপি চেয়ারম্যান রহিছ মিয়া , সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা এম এ আহাদ চশমা ভোট যুদ্ধে রয়েছেন।

চানগাঁও ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক পেয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মজিবুর রহমান বিল্লাল। এ ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি নূরুল আলম তালুকদার(আনারস) এর সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। এখানে আওয়ামী লীগ সমর্থক এ কে এম শোয়েব উদ্দিন মিন্টু (ঘোড়া) ও জয়নাল আবেদিন তালুকদার জয় (মোটর সাইকেল) নিয়ে মাঠে রয়েছেন।

কাইটাইল ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা সাফায়েত উল্লাহ রয়েলের (নৌকা) সঙ্গে বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু তাহের আজাদ (আনারস) এর লড়াই হবে। জাতীয় পার্টির খায়রুল ইসলাম লাঙ্গল নিয়ে মাঠে আছেন।

নায়েকপুর ইউনিয়নে নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী না থাকলেও মাঠে রয়েছেন একাধিক বিএনপির স্বতন্ত্র প্রার্থী। এ ইউনিয়নে ভোটযুদ্ধ হবে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে। আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেয়েছেন প্রাক্তন চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ মোছলেহ উদ্দিন ভূঞা। বি,এন,পির প্রার্থীদের মধ্যে বিএনপি নেতা হাবিবুর রহমান হবু (চশমা), বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আতিকুর রহমান রোমান (মোটরসাইকেল), প্রাক্তন চেয়ারম্যান বি,এন,পি নেতা কামরুজ্জামান তালুকদার হিরা (ঘোড়া), বি,এন,পি নেতা ফখরুল ইসলাম খান হেভেন (আনারস) স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন। বি,এন,পির প্রার্থী হাবিবুর রহমান হবু মনে করেন, ভোট সুষ্ঠু হলে বিজয় তার সুনিশ্চিত।

ফতেপুর ইউনিয়নে নৌকা পেয়েছেন উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা মো. জহিরুল ইসলাম চৌধুরী (জোয়াদ মিয়া)। জনপ্রিয়তা কম থাকায় এ ইউনিয়নে বিএনপির একাধিক স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে বিএনপির প্রার্থীরা মনে করেন। বিএনপি নেতা সামিউল হায়দার সফি (চশমা), ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আলী হায়দার তালুকদার (আনারস), বিএনপি নেতা ও বর্তমান চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম চৌধুরী (মোটর সাইকেল), খোকন তালুকদার (অটোরিক্সা), এজাজুর তালুকদার চন্দন (ঘোড়া), বীর মুক্তিযোদ্ধা মতিউর রহমান কাঞ্চন (টেবিল ফ্যান) ভোট যুদ্ধে রয়েছেন।

উপজেলা রিটার্নিং অফিসার ও ইউএনও বুলবুল আহমেদ জানান, এ উপজেলার আটটি ইউনিয়নে এক লাখ সাত হাজার ৮৮৬ জন ভোটার রয়েছেন। আটটি ইউনিয়নে ৭৩টি কেন্দ্রের মধ্যে ২৪টিই ঝুঁকিপূর্ণ রয়েছে। নিরপেক্ষ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করতে সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়