শুভ বারতা নিয়ে আসুক নতুন

আগের সংবাদ

দেশে ওমিক্রনের গুচ্ছ সংক্রমণ শুরু

পরের সংবাদ

স্বাগত ২০২২ : প্রতিটি দিন হোক সুন্দর ও কল্যাণময়

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১, ২০২২ , ৪:১১ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১, ২০২২ , ৪:১১ পূর্বাহ্ণ

বিদায় নিল ২০২১ সাল। অন্য যে কোনো বছরের চেয়ে আলাদা বছরটি বিশ্বজুড়ে কোভিড-১৯ জনিত রোগে মানুষের না ফেরার দেশে চলে যাওয়ার গভীর বেদনাদায়ক। বিশ্বে এখন পর্যন্ত করোনায় মোট আক্রান্ত হয়েছেন ২৮ কোটি ১৭ লাখ ২১ হাজার ৭৪৪ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৫৪ লাখ ২২ হাজার ১৯৬ জনের। এছাড়া বিশ্বজুড়ে কত ঘটনা, কত হাসি-কান্না, বিষাদ ও উত্তেজনা- সবকিছুকে ছাপিয়ে স্বপ্ন আর দিনবদলের অপরিমেয় প্রত্যাশার রক্তিম আলোয় উদ্ভাসিত ইংরেজি ক্যালেন্ডারের নতুন দিন আজ। নতুন বছর নতুন কল্যাণময়ে শুরু হোক আমাদের পথচলা। অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশও পার করেছে কঠিনতম বছর। করোনা ভাইরাসে বাংলাদেশে এ পর্যন্ত ২৮ হাজারেরও বেশি মানুষ মৃত্যুবরণ করেছে এবং ১৫ লাখ ৮৪ হাজারেরও বেশি লোক করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এ সময়ও থেমে ছিল না হত্যা, ধর্ষণের মতো অপরাধ। পরপর কয়েকটি ধর্ষণের বীভৎস ঘটনায় উত্তাল হয়েছে পুরো দেশ। পিছু ছাড়েনি দুর্ঘটনায় মৃত্যু। করোনা ভাইরাসের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত খাত হচ্ছে শিক্ষা খাত। ২০২০ সালের ১৮ মার্চ থেকে কার্যত বাংলাদেশে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়। প্রাথমিক, মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের সব প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়। সংক্রমণ সহনীয় পর্যায়ে আসায় এক পর্যায়ে ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দেয়া হয়। কিন্তু এর মধ্যে অনেকগুলো পাবলিক পরীক্ষা বাতিল করা হয়। ২০২০ ও ২০২১ সালে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাত একটা বড় ধরনের সংকটের ভেতর দিয়ে গেছে। বিদেশে বাংলাদেশের শ্রমবাজারে একটা বড় ধরনের ধস নেমেছে। কৃষকদের একাগ্র ভূমিকার ফলে কৃষি ও কৃষিজাত পণ্য উৎপাদন ছিল এ বছর আগের মতোই স্বাভাবিক, যা স্বস্তি বয়ে এনেছে অর্থনীতিতে। ২০২১ সাল বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর বছর পালন করেছে। ২০২০-২১ সাল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ‘মুজিববর্ষ’ উদযাপন করেছে। নতুন বছরের কাছে আরো অনেক প্রত্যাশার বীজ বুনে গেছে বিদায়ী বছর। বিগত বছরের ব্যর্থতা কাটিয়ে ওঠা আর সাফল্যকে সংহত করার প্রত্যয় নিয়ে আমরা বরণ করছি নতুন বছরকে। আমরা চাই, উন্নয়ন-অগ্রগতির ধারা অব্যাহত থাকুক। প্রত্যাশার জায়গাও কম নয়। ২০২২ সালে চালু হোক বহুল আলোচিত পদ্মা সেতু, যাত্রা করুক স্বপ্নের মেট্রোরেল, ক্রিকেটে একের পর এক পরাজয়ের চক্র ভেদ করে ক্রীড়াঙ্গনে ফিরে আসুক নতুন সাফল্য। বৈশ্বিক মহামারি করোনার দাপট এখনো চলছে। ওমিক্রন আক্রমণ করছে বিশ্বব্যাপী। আমরাও শঙ্কামুক্ত নই। প্রতিরোধী টিকা প্রদানের মধ্যে নতুন করে বিশ্ববাসীকে আশান্বিত করছে। আশা করছি, দ্রুত এমন অনিশ্চিত জীবনের অবসান হবে। ২০২২ সালের প্রতিটি দিন হোক সুন্দর ও কল্যাণময়।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়