জবি ছাত্রলীগের সভাপতি ইব্রাহিম ফরাজী, সম্পাদক আক্তার হোসেন

আগের সংবাদ

পশ্চিমবঙ্গে সোমবার থেকে ধাপে ধাপে আসছে বিধিনিষেধ

পরের সংবাদ

সামাজিক আন্দোলনে নেতৃত্ব দিতে হবে তরুণদের: মেয়র আতিক

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১, ২০২২ , ৯:১৭ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১, ২০২২ , ৯:১৭ অপরাহ্ণ

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন-ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছেন, প্রতিটি তরুণই সম্ভবনাময়, প্রতিটি তরুণই চেইঞ্জ মেকার। তরুণরা রুখে দাঁড়ালেই সমাজ থেকে সকল অন্যায় ও অবিচার উঠে যাবে। তাই দেশ ও দশের কল্যাণে সামাজিক আন্দোলনে তরুণদেরকেই নেতৃত্ব দিতে হবে।

শনিবার (১ জানুয়ারি) বিকালে রাজধানীর বনানী বিটিসিএল মাঠে বিডি ক্লিন আয়োজিত ‘সেভ আর্থ, সেভ বাংলাদেশ’ প্রদর্শনীর সমাপনী অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তৃতায় ডিএনসিসি মেয়র একথা বলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম এমপি, বিশেষ অতিথি হিসেবে জাতীয় সংসদ সদস্য নাহিদ ইজাহার খান এবং ডিএনসিসির প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমোডর এস. এম. শরিফ-উল ইসলাম, স্থানীয় কাউন্সিলর মো. নাসির এবং বিডি ক্লিন এর প্রতিষ্ঠাতা ফরিদ উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।

তিনি স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে সাড়া দিয়েই দেশপ্রেমিক তরুণরা মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল, প্রিয় মাতৃভূমিকে করেছিল শত্রুমুক্ত, যার ফলে অর্জিত হয় লাল-সবুজের পতাকার স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র বাংলাদেশ।

মেয়র আতিক বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে পরিবেশ দূষণরোধে জনসচেতনতা তৈরীর লক্ষ্যে বিডি ক্লিন সদস্যরা সারাদেশের রাস্তাঘাট থেকে সংগৃহীত পরিবেশ দূষণকারী ৫ কোটি পরিত্যক্ত সিগারেট ফিল্টার এবং ৩০ লক্ষ প্লাস্টিক বোতল দ্বারা যে অভিনব প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে তা সত্যিই প্রশংসার দাবীদার।

মেয়র বলেন, ‘সেভ আর্থ, সেভ বাংলাদেশ’ শীর্ষক প্রদর্শনীটির স্লোগান হলো “প্লাস্টিক সামগ্রী ও ধূমপান পরবর্তী ফিল্টার দূষণরোধে হতে হবে সচেতন, চলুন মিলেমিশে গড়ি বাসযোগ্য বাংলাদেশ, করে অতীব যতন’ যা সময়োপযোগী ও অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। নিজেদের সুস্থ্যতার জন্যই ধূমপানকে নিরুৎসাহিত করতে তামাকজাত পণ্যের উপর কর বৃদ্ধি করতে হবে।

তিনি বলেন, প্রয়োজনের তাগিদে ব্যবহৃত প্লাস্টিকজাত পণ্য ব্যবহারের পর যত্রতত্র ফেলে দেয়ার কারণে তা পরিবেশ দূষণের পাশাপাশি জলাবদ্ধতারও কারণ হয়ে দাঁড়ায়, তাই উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকেই প্লাস্টিকজাত পণ্যের রিসাইক্লিং নিশ্চিত করতে হবে।

মেয়র আরো বলেন, ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তমিশ্রিত বাংলার পবিত্র মাটিকে যত্রতত্র ময়লা-আবর্জনা ফেলে অপরিচ্ছন্ন করা যাবেনা, নিজেদের ঘরবাড়ি ও আশেপাশের পরিবেশ পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে এবং সবাই মিলে সুস্থ, সচল ও আধুনিক ঢাকা গড়ে তুলতে হবে।

রি-আরজে/ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়