করোনায় আক্রান্ত সৃজিত মুখার্জি

আগের সংবাদ

মাইন বিস্ফোরণে ৩ বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী আহত

পরের সংবাদ

অপ্রতিরোধ্য ম্যান সিটি

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১, ২০২২ , ১০:৫১ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ১, ২০২২ , ১০:৫১ অপরাহ্ণ

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে টানা ১১ জয় তুলে নিল ম্যানচেস্টার সিটি। বছরের প্রথম ম্যাচে শনিবার আর্সেনালকে তারা হারিয়েছে ২-১ গোলের ব্যবধানে। গানারদের হয়ে গোল করে দলকে লিড এনে দেন বুকায়ো সাকা। এরপর পেনাল্টি থেকে গোল করে দলকে সমতায় ফেরান রিয়াদ মাহরেজ। ম্যাচের যোগ করা সময়ে রদ্রির গোলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে পেপ গার্দিওয়ালার শিষ্যরা। এ জয়ে লিগ শিরোপার পথে আরো একধাপ এগিয়ে গেল দলটি। এদিকে লা লিগায় রিয়াল মাদ্রিদ, বুন্দেসলিগায় বায়ার্ন মিউনিখ, সিরি’আতে ইন্টার মিলান ও ফ্রেঞ্চ লিগে পিএসজি চ্যাম্পিয়নের পথে এগিয়ে আছে।

এমিরাত স্টেডিয়ামে শনিবার নিজেদের ঘরের মাঠে ম্যান সিটির বিপক্ষে ম্যাচের ৩১তম মিনিটে দলকে লিড এনে দেন ইংলিশ ফরোয়ার্ড বুকায়ো সাকা। প্রতি আক্রমণে মাঝমাঠ থেকে কয়েকবার অদল-বদল শেষে বল যায় স্কটিশ ফুটবলার টিয়ার্নের পায়ে। সেখান থেকে তিনি ম্যান সিটির রক্ষণভাগকে ফাঁকি দিয়ে বল পাঠান ডি বক্সে জায়গা করে নেয়া সাকার উদ্দেশে। তার বাড়ানো শট এডারসন হাতের নাগালে না পেলে ১-০ তে এগিয়ে যায় গানাররা। প্রথমার্ধে বল দখলে এগিয়ে থাকলেও জায়ান্টরা শটে ছিল পিছিয়ে। এমনকি আর্সেনালের যেখানে ২টি শট ছিল লক্ষ্যে, সেখানে তারা জালের উদ্দেশে একটি শটও নিতে পারেননি। ফলে প্রথমার্ধ পিছিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় ম্যান সিটি।

ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে ভাগ্যের জোরে গোল সমতায় ফিরেছিল গার্দিওয়ালার শিষ্যরা। ম্যাচের ৫৫তম মিনিটে গানার মিডফিল্ডার গ্রানিত জাকা নিজেদের ডি বক্সে বের্নার্দো সিলভাকে ফাউল করে বসে। রেফারির নিকট আবেদন করে ভিআর চেকে পেনাল্টি আদায় করে নেয় ম্যান সিটি। ৫৭তম মিনিটে ক্লিন শটে দলকে সমতায় ফেরান রিয়াদ মাহরেজ। এর দুই মিনিট পর আর্সেনাল ডিফেন্ডার গ্যাব্রিয়েল ম্যাচে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়ে। মুহূর্তে ১০ জনের দলে পরিণত হয়ে চাপে পড়ে গানাররা। তবে ১০ গানারের পরীক্ষা নিতে ম্যাচের অতিরিক্ত সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয় সিটির ফুটবলারদের। যোগ করা সময়ে গোল করে দলের জয় নিশ্চিত করেন স্প্যানিশ মিডফিল্ডার রদ্রি।

ইউরোপের শীর্ষস্থানীয় লিগ ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ, লা লিগা, বুন্দেসলিগা, ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ান এবং সিরি’আ। এসব লিগ প্রতিযোগিতায় অর্ধেক মৌসুম প্রায় শেষের পথে। যখন কোনো লিগের প্রায় অর্ধেক ম্যাচ শেষ হয়ে যায়, তখন অনেকটাই ধারণা করা যায়, কে পরতে যাচ্ছে শিরোপার মুকুট। ইউরোপের শীর্ষ পাঁচ লিগের ভেতর কোন দলগুলো ব্যর্থতাকে পেছনে ফেলে নতুন মৌসুমে দারুণ ছন্দে এগিয়ে যাচ্ছে, কারাই বা লিগ চ্যাম্পিয়ন হতে যাচ্ছে তা তুলে ধরা হলো- ফুটবলে ইউরোপের জনপ্রিয় লিগগুলোর অন্যতম ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ। গত বারের শিরোপাধারী ম্যানচেস্টার সিটি চলতি বছরেও লিগ শিরোপা জয়ের পথে বেশ এগিয়ে আছে। আর্সেনালের বিপক্ষে গত রাতের ম্যাচ দিয়ে লিগে ২১ ম্যাচ খেলেছে তারা। যেখানে ১৭ জয় ও ২ ড্রয়ে ৫৩ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষস্থান দখলে রেখেছে রাহিম স্টার্লিংরা। লিগের দ্বিতীয় স্থানে থাকা চেলসির তুলনায় তারা ১১ পয়েন্ট ব্যবধানে এগিয়ে আছে। লিগে বাকি থাকা ১৮ ম্যাচে পেপ গার্দিওয়ালার শিষ্যরা সাফল্যের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারলে টানা দ্বিতীয় লিগ শিরোপা তাদের ঘরে উঠবে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা চেলসি লিভারপুলের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে ম্যান সিটির সমানসংখ্যক ম্যাচ খেলে ১২ জয় ও ৬ ড্রয়ে ৪২ পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে। অন্যদিকে ২০১৯-২০ মৌসুমের লিগ চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল ১৯ ম্যাচে ১২ জয় ও ৫ ড্রয়ে ৪১ পয়েন্ট নিয়ে লিগ পয়েন্ট টেবিলের তিনে অবস্থান করছে।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে শনিবার আর্সেনালের বিপদ সীমানায় বল নিয়ে ছুটছেন ম্যানসিটির রহিম স্টালিং

পৃথিবীর সবচেয়ে জনপ্রিয় লিগের তালিকায় এক সময় আধিপত্য করতো স্প্যানিশ লা লিগা। তবে শতাব্দীর দুই সেরা তারকা ফুটবলার ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো ও লিওনেল মেসির বিদায়ের পরে এই লিগটি কিছুটা জৌলুস হারিয়েছে। লা লিগায় চলতি আসরে শিরোপার দৌড়ে এগিয়ে আছে রিয়াল মাদ্রিদ। ১৯ ম্যাচে ১৪ জয় ও ৪ ড্রয়ে ৪৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষস্থান আছে জায়ান্টদের দখলে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা সেভিয়ার সঙ্গে তাদের পয়েন্ট ব্যবধান ৮। ১৮ ম্যাচে ১১ জয় ও ৫ ড্রয়ে ৩৮ পয়েন্ট সেভিয়ার। সমান ম্যাচে ১০ জয় ও ৩ ড্রয়ে ৩৩ পয়েন্ট নিয়ে লিগের তিনে অবস্থান করছে রিয়াল বেটিস। গত আসরের চ্যাম্পিয়ন অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদ ১৮ ম্যাচে ৮ জয় ও ৫ ড্রয়ে ২৯ পয়েন্ট নিয়ে আছে লিগ টেবিলের পাঁচে। আর লা লিগার জায়ান্ট ক্লাব বার্সেলোনা সমানসংখ্যক ম্যাচে সমান ৭ জয় ও ড্রয়ে ২৮ পয়েন্ট নিয়ে আছে টেবিলের সাতে।

এদিকে বুন্দেসলিগায় একক আধিপত্য জার্মান জায়ান্ট ক্লাব বায়ার্ন মিউনিখের। টুর্নামেন্টে ইতোমধ্যে রেকর্ড টানা নয়বারের চ্যাম্পিয়ন তারা। চলতি আসরেও লিগ শিরোপা জয়ের পথে বেশি এগিয়ে আছে রবার্ট লেভানদোভস্কিরা। ১৭ ম্যাচে ১৪ জয় ও ১ ড্রয়ে ৪৩ পয়েন্ট নিয়ে লিগের সেরা দল বায়ার্ন মিউনিখ। সমানসংখ্যক ম্যাচে ১১ জয় ও ১ ড্রয়ে ৩৪ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলের দুইয়ে অবস্থান করছে আরেক জার্মান জায়ান্ট বরুশিয়া ডর্টমুন্ড। লিগে এখনো ১৭ ম্যাচ বাকি দলগুলোর। তবে এই ম্যাচগুলোতে বায়ার্নকে টপকে যাবে ডর্টমুন্ড এমনটা ভাবা কঠিন। কারণ চলতি আসরে শক্তিমত্তার লড়াইয়ে একবারের দেখায় জয় তুলে নিয়েছিল বায়ার্নই। দ্বিতীয় দেখায় কে জয় তুলে নেয় সেটাই এখন দেখার বিষয়। আগামী ২৩ এপ্রিল লিগ ম্যাচে দুদল পরস্পরের মুখোমুখি হবে। তবে রেকর্ড টানা দশম বুন্দেসলিগা শিরোপা বায়ার্ন জিততে চলেছে তা পরখ করেই বলা যায়।

এদিকে ইতালির সিরি’আ লিগে টানা দ্বিতীয় লিগ শিরোপার দৌড়ে এগিয়ে চলেছে ইন্টার মিলান। তবে লিগের এখনো ১৯ ম্যাচ বাকি থাকায় লড়াইয়ে ফিরতে পারে টেবিলের দুইয়ে থাকা এসি মিলান ও তিনে থাকা নাপোলি। ১৯ ম্যাচে ১৪ জয় ও ৪ ড্রয়ে ৪৬ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষ দল ইন্টার মিলান। সমানসংখ্যক ম্যাচে ১৩ জয় ও ৩ ড্রয়ে ৪২ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলের দুইয়ে অবস্থান করছে এসি মিলান। ১৯ ম্যাচে ১২ জয় ও ৩ ড্রয়ে ৩৯ পয়েন্ট নিয়ে তিনে আছে নাপোলি। লিগের বাকি ম্যাচগুলোতে ইন্টার মিলান ভুল করলে যথাক্রমে সুযোগ আসবে এসি মিলান ও নাপোলির সামনে।

ফ্রেঞ্চলিগ ওয়ানে শিরোপার দৌড়ে কে এগিয়ে আছে? এমন প্রশ্নে পরখ করে বলা যেতে পারে এবারের লিগ চ্যাম্পিয়ন হতে যাচ্ছে প্যারিসের ক্লাব পিএসজি। হবেই না বা কেন? লিওনেল মেসি, কিলিয়ান এমবাপ্পে, নেইমার জুনিয়র, সার্জিও রামোস, জুয়ানলুইজি ডোনারুম্মাদের মতো তারকা ফুটবলারের এমন সমারোহ পৃথিবীর আর কোনো ক্লাবে নেই। ১৯ ম্যাচে ১৪ জয় ও ৪ ড্রয়ে ৪৬ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষস্থান তাদের দখলে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা নিসের সঙ্গে তাদের পয়েন্ট ব্যবধান ১৩। পিএসজির সমানসংখ্যক ম্যাচে ১০ জয় ও ৪ ড্রয়ে নিসের পয়েন্ট ৩৩। ১৮ ম্যাচে ৯ জয় ও ৬ ড্রয়ে ৩৩ পয়েন্ট নিয়ে লিগের তিনে আছে মার্সেই। অপরিকল্পনীয় ব্যর্থতার সাগরে না ডুবলে এবারের লিগ ওয়ানে দশম শিরোপা জিততে চলেছে পিএসজি।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়