তিস্তার দু'পাশে সাড়ে আট হাজার কোটি টাকার কাজ হবে: বাণিজ্যমন্ত্রী

আগের সংবাদ

খালেদার স্বাস্থ্য আর তারেকের শাস্তি নিয়েই বিএনপি’র রাজনীতি

পরের সংবাদ

সেই ঝুমন দাস ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী হচ্ছেন

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৫, ২০২১ , ৬:৩৩ অপরাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ৫, ২০২১ , ৭:০৪ অপরাহ্ণ

হেফাজতের বির্তকিত নেতা মামুনুল হককে সমালোচনা করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে জেলে যাওয়া ঝুমন দাস এবার শাল্লার হবিবপুর ইউপি (ইউনিয়ন পরিষদ) নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে লড়বেন। রবিবার (৫ ডিসেম্বর) তিনি উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার আলমগীর কবীর খান এর কাছ থেকে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন।

এ বিষয়ে ঝুমন দাস ভোরের কাগজ লাইভকে বলেন, আজ থেকে ১০ বছর আগে থেকেই আমি নির্বাচন করার প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর অনুপ্রেরণায় আমি পথ চলি। আমাদের জাতির পিতা তিন হাজার তিপান্ন দিন জেলে ছিলেন। সেখান থেকেই আমার আর্দশের সূত্রপাত। জাতির পিতা রাজনীতি করে মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়েছিলেন। এখান থেকেই অনুপ্রেরণা নিয়ে মানুষের জন্য কাজ করছি আমি।

এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলছেন ঝুমন দাস। ছবি: ভোরের কাগজ

শাল্লার হবিবপুর ইউনিয়নে মোট ভোটার ২১ হাজার ৯১২ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ১১ হাজার ২৩ জন ও নারী ভোটার ১০ হাজার ৮৮৯ জন।

চতুর্থ দফায় ইউপি (ইউনিয়ন পরিষদ) নির্বাচনে শাল্লা উপজেলার ৪টি ইউনিয়নে নির্বাচন আগামী বছরের ৫ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত হবে। রিটার্নিং অফিসারের কাছে মনোনয়ন পত্র দাখিলের শেষ তারিখ ৯ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার। মনোনয়নপত্র বাছাই ১২ ডিসেম্বর, আপিল ১৩- ১৫ ডিসেম্বর, আপিল নিষ্পত্তি ১৮ ডিসেম্বর, প্রার্থীতা প্রত্যাহার ১৯ ডিসেম্বর ও প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে ২০ ডিসেম্বর।

ঝুমন দাস বলেন, গতবার স্থানীয় ইউপি নির্বাচনে একজন প্রার্থীর হয়ে মাঠে কাজ করেছি। তখন সাধারণ মানুষকে অনেক প্রতিশ্রুতি দিয়েছি- এই প্রার্থীকে নির্বাচিত করলে যেকোনো সমস্যার সমাধান করে দেয়া হবে। নির্বাচনের পাঁচ বছরে মানুষকে যে কথা দিয়েছিলাম তা করতে পারিনি। কারণ আমি চেয়ারম্যান ছিলাম না। তাই আমার দেয়া প্রতিশ্রুতির অসমাপ্ত কাজগুলো এবার নিজে চেয়ারম্যান হয়ে পূরণ করতে চাই।

তিনি বললেন, আজকে (রবিবার) উপজেলায় এসে চালান ফরম কিনে ৫ হাজার পাঁচশ টাকা সোনালী ব্যাংকে জমা দিয়েছি। এরপর সমবায় অফিস থেকে আমার প্রার্থীতার জন্য নমিনেশন ফরম কিনে এনেছি। এর আগে ইউনিয়ন পরিষদে বাড়িসহ সকল টেক্স পরিশোধ করেছি। নমিনেশন ফরম পূরণ করে নিদিষ্ট সময়ের মধ্যেই জমা দেবো।

ঝুমন দাস আরও বলেন, লোকমুখে শুনেছি আমার নমিনেশন বাতিল করবার জন্য একটি মহল কাজ করে যাচ্ছে। আমাকে বাঁধা দেয়ার কোনো কারণ দেখছি না। নিরাপত্তাজনিত কারণে নমিনেশন বাতিল হওয়ার কোনো কারণ হতে পারে না। কারণ নির্বাচন করার অধিকার আমার নাগরিক অধিকার।

শাল্লা উপজেলা নির্বাচন অফিসার মো. রেজাউল করিম বললেন, নির্বাচনে সকল প্রার্থী আমাদের কাছে সমান। যারা নমিনেশন ফরম সংগ্রহ করেছেন বিধি অনুযায়ী তাদের আগামী ৯ ডিসেম্বরের ভেতর জমা দিতে হবে।

স্থানীয়দের সঙ্গে ঝুমন। ছবি: ভোরের কাগজ

গত ১৫ মার্চ সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে ‘শানে রিসালাত সম্মেলন’ নামে একটি সমাবেশের আয়োজন করে হেফাজতে ইসলাম। এতে হেফাজতের তৎকালীন আমির জুনায়েদ বাবুনগরী ও যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক বক্তব্য দেন।
এই সমাবেশের পরদিন ১৬ মার্চ মামুনুল হকের সমালোচনা করে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন দিরাইয়ের পার্শ্ববর্তী উপজেলা শাল্লার নোয়াগাঁওয়ের যুবক ঝুমন দাস। স্ট্যাটাসে তিনি মামুনুলের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টের অভিযোগ আনেন।

মামুনুলের সমালোচনাকে ইসলামের সমালোচনা বলে এলাকায় প্রচার চালাতে থাকেন তার অনুসারীরা। এতে এলাকাজুড়ে উত্তেজনা দেখা দেয়। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে নোয়াগাঁও গ্রামের বাসিন্দারা গত ১৬ মার্চ রাতে ঝুমনকে পুলিশের হাতে তুলে দেন।

পরদিন বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর সকালে কয়েক হাজার লোক লাঠিসোঁটা নিয়ে মিছিল করে হামলা চালায় নোয়াগাঁও গ্রামে। তারা ভাঙচুর ও লুটপাট করে ঝুমন দাসের বাড়িসহ হাওরপাড়ের হিন্দু গ্রামটির প্রায় ৯০টি বাড়ি, মন্দির। ঝুমনের স্ত্রী সুইটিকে পিটিয়ে আহত করা হয়।

এরপর গত ২২ মার্চ ঝুমনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করে শাল্লা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবদুল করিম।

শাল্লায় হামলার ঘটনায় শাল্লা থানার এসআই আব্দুল করিম, স্থানীয় হবিবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিবেকানন্দ মজুমদার বকুল ও ঝুমন দাসের মা নিভা রানী তিনটি মামলা করেন। তিন মামলায় প্রায় ৩ হাজার আসামি। পুলিশ নানা সময়ে শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে। তারা সবাই জামিন পান।
শুধু জামিন পাচ্ছিলেন না ঝুমন দাস। বিচারিক আদালতে কয়েক দফা জামিন নাকচের পর গত ২৩ সেপ্টেম্বর জামিন পান ঝুমন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়