দক্ষিণ আফ্রিকায় ওমিক্রনে আক্রান্ত হচ্ছে ৪ বছরের শিশুরাও

আগের সংবাদ

রামপুরায় শিক্ষার্থীর মৃত্যু: সুপারভাইজার-হেলপারের দোষ স্বীকার

পরের সংবাদ

গুলি ও ইয়াবাসহ সম্রাটের দুই সহযোগী গ্রেপ্তার

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৩, ২০২১ , ৯:৪২ অপরাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ৩, ২০২১ , ৯:৪২ অপরাহ্ণ

রাজধানীর পল্টন এলাকা থেকে বিদেশি পিস্তল, গুলি ও ইয়াবাসহ দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গ্রেপ্তার হওয়া আসামিরা হলেন, মো. মেহেদী আলম (৪২) ও তার সহযোগী যুবরাজ খান (৩২)।

শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) ভোরে র‌্যাব-৩ এর একটি দল রাজধানীর পল্টন এলাকার একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে।

র‌্যাব জানায়, মতিঝিল এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী মেহেদী ও তার সহযোগী যুবরাজ। তাদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। মেদেহী এর আগে গ্রেপ্তার ও যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী ওরফে সম্রাটের অন্যতম সহযোগী ছিলেন।

র‌্যাব-২ এর সহকারী পুলিশ সুপার স্টাফ অফিসার (অপস ও ইন্ট শাখা) ফারজানা হক জানান, বেশ কিছু সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে র‌্যাব জানতে পারে, যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী ওরফে সম্রাটের সহযোগী শীর্ষ সন্ত্রাসী মেহেদীর নেতৃত্বে পল্টন, মতিঝিল, শাহজাহানপুর ও তার আশপাশের এলাকায় সন্ত্রাসী কার্যকলাপ করছে। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে র‌্যাব-৩ ছায়া তদন্ত শুরু করে ও জড়িতদের আইনের আওতায় আনতে গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করে। এরই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) ভোরে র‌্যাব-৩ এর একটি দল রাজধানীর পল্টন এলাকার একটি বাসায় অভিযান পরিচালনা করে মেহেদী আলম ও সহযোগী যুবরাজকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এ সময় ওই বাসা ও গ্রেপ্তার দুজনের দেহ তল্লাশি করে ১টি বিদেশি পিস্তল, ১টি ম্যাগজিন, ২ রাউন্ড গুলি, ৩০০ পিস ইয়াবা, ১টি চাইনিজ কুড়াল, ১টি চাপাতি, ৫টি ছুরি, ১টি সুইস গিয়ার চাকু, ২টি প্লাস, ৬টি কাচি, ১টি স্ক্রু-ডাইভার, ৪টি অ্যান্টিকাটার, ১টি হাতুড়ি, ২টি পাসপোর্ট, ১০টি নকল সিল, ১৪টি চাঁদা আদায়ের রশিদ বই এবং ২টি প্রেস আইডি কার্ড জব্দ করা হয় বলে দাবি করেন ফারজানা।

ফারজানা হক বলেন, র‌্যাব-৩ জিজ্ঞাসাবাদে জানতে পেরেছে, পল্টন, মতিঝিল, শাহজাহানপুর ও তার আশপাশের এলাকায় আধিপত্য বিস্তার, মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড পরিচালনা করার কাজে অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার করে আসছিল তারা। মেহেদীর নেতৃত্বে তার সহযোগীরা অস্ত্র প্রদর্শন করে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করত এবং সাধারণ জনগণকে নির্যাতন ও হয়রানি করত। তারা পুলিশ পরিচয় দিয়ে রাস্তায় পথচারীদের আটক করে মোবাইল ফোন, মানিব্যাগসহ মূল্যবান জিনিসপত্র ছিনতাই করত।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়