ফাইল ছবি

টাঙ্গাইল-৭ এর উপ নির্বাচনের তফসিল মঙ্গলবার

আগের সংবাদ

নিউজ ফ্ল্যাশ

পরের সংবাদ

সীমান্ত অপরাধের তথ্য বিনিময়ে সম্মত বিএসএফ-বিজিবি

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৯, ২০২১ , ৭:৫৫ অপরাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২৯, ২০২১ , ৮:১৭ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে বিদ্রোহ, চোরাচালান এবং অন্যান্য সীমান্ত অপরাধের বিরুদ্ধে বিদ্যমান প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা জোরদার করতে তথ্য বিনিময়ে সম্মত হয়েছে বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এবং ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স (বিএসএফ)।

সোমবার (২৯ নভেম্বর) ভারতের শিলংয়ে বাহিনী দুটির মহাপরিদর্শক (আইজি) পর্যায়ে আয়োজিত তিন দিনব্যাপী সীমান্ত সমন্বয় সম্মেলনের সমাপনী দিনে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এদিন সীমান্ত বাহিনীর প্রতিনিধিদল ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছে। খবর নর্থইস্ট টুডের।

ভারতের শিলংয়ে ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ ও বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবির মহাপরিদর্শক পর্যায়ে চলছে সীমান্ত সমন্বয় সম্মেলন

সম্মেলনে বিএসএফের পক্ষে যোগ দেন বিএসএফ ত্রিপুরা ফ্রন্টিয়ারের মহাপরিদর্শক সুশান্ত কুমার নাথ এবং বাংলাদেশের পক্ষে দক্ষিণ পূর্ব অঞ্চলের অঞ্চল কমান্ডার অতিরিক্ত মহাপরিচালক তানভীর গণি চৌধুরী। তারা একটি জয়েন্ট রেকর্ড অফ ডিসকাশন (জেআরডি) সই করেছেন। বিএসএফ মেঘালয় ফ্রন্টিয়ার ইন্সপেক্টর জেনারেল ইন্দ্রজিৎ সিং রানা এবং মৃদুল সোনোয়াল, এম অ্যান্ড সি ফ্রন্টিয়ারের প্রতিনিধি সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন। পরবর্তী সমন্বয় সম্মেলন বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হবে।

পরে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে তারনভীর গণি চৌধুরী বলেন, সীমান্তের আন্তঃসীমান্ত অপরাধ দমনে গুরুত্বপূর্ণ সীমান্ত সংক্রান্ত বিষয়ে গভীর আলোচনা হয়েছে। অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য তাদের শূন্য সহনশীলতা রয়েছে বলে যোগ করে তিনি বলেন, বিদ্রোহ, মানব পাচার এবং চোরাচালান প্রতিরোধে বিদ্যমান প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা জোরদার করার জরুরিতার উপর জোর দেন।

বিএসএফ, বিজিবি বোর্ডিং জনসংখ্যাকে আরো সংবেদনশীল করতে এবং ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় সতর্কতা বাড়াতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে সম্মত হয়েছে। মাদকদ্রব্য ও অস্ত্র সম্পর্কিত বিষয়ের উপর আমাদের মূল্যবান তথ্য শেয়ার করতে হবে। এটি একটি দল হিসাবে আমাদের জন্য একটি ভাল ফলাফল দেবে, তিনি বলেন, সতর্ক পরিকল্পনার মাধ্যমে উভয় সীমান্ত বাহিনী উভয়ের মধ্যে সুসম্পর্ক এবং বিশ্বাস গড়ে তুলতে সচেষ্ট হবে।

বিজিবির অতিরিক্ত মহাপরিচালক বলেন, আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে এই ধরনের সম্মেলন আমাদের পক্ষে কাজ করবে এবং আমাদের দুই বাহিনীর মধ্যে বিদ্যমান ও ঐতিহ্যগত সম্পর্ককে দৃঢ় করবে।

ভারতের শিলংয়ে ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ ও বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবির দুই মহাপরিদর্শক

বিএসএফ-এর পক্ষ থেকে, সীমান্তে বিএসএফ সদস্য এবং নিরস্ত্র ভারতীয় বেসামরিক নাগরিকদের উপর হামলা এবং বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া ভারতীয় বিদ্রোহী গোষ্ঠী (আইআইজি) এর মতো বিষয়গুলির উপর জোর দেয়া হয়েছিল। বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স বাংলাদেশে আইআইজি হাইডআউট ক্যাম্পের বিবরণ, বেড়া লঙ্ঘনের সাথে জড়িত বাংলাদেশী অপরাধীদের তালিকা, গবাদি পশু পাচারকারী, জাল ভারতীয় মুদ্রার (এফআইসিএন) কারসাজি, মাদক ও মানব পাচারের সাথে জড়িত বাংলাদেশিদের তালিকা সহ পরিসংখ্যান সরবরাহ করেছে। ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজি), বিএসএফ রিজিয়ন কমান্ডার, বিজিবিকে উল্লিখিত বিষয়গুলি খতিয়ে দেখার এবং অপরাধীদের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন।

জবাবে বিজিবি প্রতিনিধি দল কীভাবে ভারতীয় নাগরিক বা বিএসএফ বাংলাদেশি নাগরিকদের উপর পাল্টা আঘাত করে তার ওপর জোর দিয়েছিল। এর মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশি নাগরিকদের অপহরণ, ভারতীয় নাগরিকদের দ্বারা বাংলাদেশের ভূখণ্ডে অবৈধ অনুপ্রবেশ এবং বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরনের নিষিদ্ধ পণ্য পাচার। এতে বিএসএফ বলেছে যে তারা সর্বাধিক সংযম অনুশীলন করছে, যোগ করেছে যে গুলি চালানো আত্মরক্ষার জন্য একটি শেষ বিকল্প এবং দাবি করেছে যে তারা সীমান্তে পাম্প-অ্যাকশন বন্দুকের মতো অ-ঘাতক অস্ত্র ব্যবহার করে।

উভয় প্রতিনিধিই মুক্ত মন রাখতে এবং আন্তঃসীমান্ত অপরাধ দমনে এবং আন্তর্জাতিক সীমান্তে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে কার্যকরী গোয়েন্দা তথ্য শেয়ার করতে সম্মত হয়েছে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়