জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে শত কোটি টাকার মানহানি মামলা

আগের সংবাদ

শেষ হলো সংসদের পঞ্চদশ অধিবেশন

পরের সংবাদ

খালেদা জিয়া লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৮, ২০২১ , ৭:৩২ অপরাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২৮, ২০২১ , ৯:১৭ অপরাহ্ণ

লিভার সিরোসিসের কারণে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ব্লিডিং হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তার চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসকরা। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র বা জার্মানির বিশেষায়িত হাসপাতালে নেয়ার সুপারিশ করেন তারা।

গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের বাসভবন ফিরোজায় রবিবার (২৮ নভেম্বর) সন্ধ্যায় খালেদা জিয়ার চিকিৎসক বোর্ড এক ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন।

খালেদা জিয়ার রোগ নিয়ে প্রাথমিক একটি বর্ণনা দেন তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক ও বিএনপির গঠন করা মেডিকেল বোর্ডের প্রধান ফখরুল মোহাম্মদ সিদ্দিকী (এফ এম সিদ্দিকী)। তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার পেট থেকে চাকা চাকা রক্ত যাচ্ছে। ইউনাইটেড হাসপাতালে একবার রক্ত দিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয়া সম্ভব হয়েছে। কিন্তু এ ধরনের রোগীকে বারবার রক্ত দেয়া সম্ভব নয়। তিনি বলেন, আশঙ্কা করছি, আবার যদি ব্লিডিং হয় তাহলে এটা কন্ট্রোল করা সম্ভব হবে না। ব্লিডিং হয়ে মৃত্যুঝুঁকি আরো বেড়ে যাবে।

রবিবার সন্ধ্যার পর খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে ব্রিফ করেন তার মেডিকেল বোর্ডের সদস্যরা। ছবি: ভোরের কাগজ

ইন্টারভ্যানশনাল গ্যাস্ট্রো অ্যানালিস্ট চিকিৎসক আরেফিন সিদ্দিক লিভারে রক্তক্ষরণ ঠেকাতে চিকিৎসা পদ্ধতি তুলে ধরে বলেন, এটা একটা হাইলি টেকনিক্যাল কাজ। বাংলাদেশে এমন কোনো রোগী আমরা দেখিনি, যার দুই থেকে তিনবার এটা করা হয়েছে।

কোথায় এর চিকিৎসা করা যায় এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, এটা আমেরিকা বা ইউরোপ, বিশেষ করে ইউকে, জার্মানি ইউএসএতে কিছু সেন্টার আছে। তবে এর চিকিৎসা খুব বেশি সেন্টারে নেই। খালেদা জিয়ার যকৃত বা লিভারে রক্তক্ষরণ হচ্ছে। একবার এই রক্তক্ষরণ সামাল দেয়া গেছে। তবে এখন তার যে অবস্থা, সেটি দ্বিতীয়বার সামাল দেয়া কঠিন হবে। কারণ, বাংলাদেশে দুই থেকে তিনবার রক্তক্ষরণ সামাল দেয়ার কারিগরি সুযোগ নেই। তাই যত দ্রুত সম্ভব তাকে দেশের বাইরে নিয়ে যাওয়া জরুরি।

সবশেষ ১৩ নভেম্বর এভারকেয়ার হাসপাতালে হৃদ্‌রোগ বিশেষজ্ঞ শাহাবুদ্দিন তালুকদারের অধীনে ভর্তি হন। সেখানে তার চিকিৎসায় ছয় সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠিত হয়েছে। তার চিকিৎসায় রাজধানীর আরও কমপক্ষে দুটি বড় বেসরকারি হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক যুক্ত রয়েছেন। এছাড়া চিকিৎসক নেতা এ জেড এম জাহিদ হোসেন প্রায় সার্বক্ষণিকভাবে হাসপাতালে অবস্থান করছেন।

গত মাসের শেষ সপ্তাহে খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নতুন করে আলোচনায় আসে। এর আগে গত ২৫ অক্টোবর খালেদা জিয়ার শরীরে একটি ছোট আকারের লাম্প বা চাকা পাওয়া যাওয়ায় বায়োপসি করা হয়েছে। এছাড়া খালেদা জিয়ার দীর্ঘস্থায়ী লিভারের সমস্যা আছে বলেও জানা গেছে। তাকে বিদেশে পাঠিয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করার দাবি করে আসছেন বিএনপির নেতারা।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়