নটরডেম শিক্ষার্থীর মৃত্যু: বরখাস্তের আদেশে ডিএসসির আসল চালকের খোঁজ

আগের সংবাদ

নিঃসন্তান মায়ের বেদনাগাঁথা নিয়ে ‘চার দেয়ালের মধ্যখানে’

পরের সংবাদ

সাঈদীর ফাঁসির দাবিতে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের বিক্ষোভ

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৬, ২০২১ , ১২:৩৬ অপরাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২৬, ২০২১ , ১২:৩৬ অপরাহ্ণ

যুদ্ধপরাধের দায়ে দেলোয়ার হোসেন সাঈদীকে দেয়া আমৃত্যু কারাদণ্ডের রায় বাতিল করে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরে বিক্ষোভ করেছে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) বিকেলে রাজধানীর শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে এ কর্মসূচি পালন করা হয়।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মো. আল মামুনের সঞ্চালনায় কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান, বিশেষ অতিথি ছিলেন সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক প্রমুখ।

তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান বলেন, ‘একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত কুখ্যাত রাজাকার সাঈদী জেলে বসে জনগণের করের টাকায় বিলাসী জীবনযাপন করছে। এটা আমরা কখনই মেনে নিতে পারি না। বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে আদালতের কাছে আমার দাবি, রাষ্ট্রপক্ষের রিভিউ পিটিশন বিবেচনা করে সাঈদীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে বাংলাদেশকে কলঙ্কমুক্ত করুন।’

সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বলেন, ‘যুদ্ধাপরাধী সাঈদীকে আমি বিচারপতি থাকা অবস্থায় ফাঁসি দেয়ার পক্ষে ছিলাম। তার বিরুদ্ধে একাত্তরে গণহত্যার সুস্পষ্ট অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে।’

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের যুগ্ম-মহাসচিব অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়া বলেন, ‘রাজাকার সাঈদীর দোসররা বাংলাদেশকে আবারও অস্থিতিশীল করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তির বিরুদ্ধে স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির যেকোনো ষড়যন্ত্র অতীতের মতো ভবিষ্যতেও আমরা রুখে দেবো।’

ভাস্কর শিল্পী রাশা বলেন, কুখ্যাত রাজাকার সাঈদীর ফাঁসির দাবিতে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চকে আরোও কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশে কোনও রাজাকারের ঠাঁই হবে না।

সংগঠনের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, যুদ্ধাপরাধী সাঈদীকে ফাঁসির কাষ্ঠে ঝুলিয়ে লাখো শহীদের রক্তের ঋণ শোধ করতে হবে।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মো. আল মামুন বলেন, পিরোজপুরে গণহত্যার মূলহোতা যুদ্ধাপরাধী সাঈদীর বিরুদ্ধে গণহত্যা, ধর্ষণ, লুট ও অগ্নিসংযোগের ২০টি অভিযোগ উত্থাপিত হয়েছিল। এর যথোপযুক্ত রায় হওয়া দরকার।

এছাড়াও কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের যুগ্ম-মহাসচিব অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়া, বিশিষ্ট ভাস্কর্য শিল্পী রাশা ও যুবলীগ নেতা আরিফুর রহমান সোহেলসহ বিভিন্ন নেতা।

ডি-ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়