জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় রোল মডেল হতে পারে বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী

আগের সংবাদ

হৃদয়ে রক্তক্ষরণ

পরের সংবাদ

‘ও ধর্ষক, আমার শৈশব নষ্ট করেছে’, ম্যারাডোনার বিরুদ্ধে অভিযোগ

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৪, ২০২১ , ১২:৪২ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ২৪, ২০২১ , ১২:৪২ পূর্বাহ্ণ

ফুটবলের অন্যতম সুপারস্টার তিনি। কিন্তু বিতর্ক তার সঙ্গে হাত ধরাধরি করে চলেছে সব সময়। তবে এখন তিনি সেসবের উর্ধ্বে। কারণ এখন তিনি ইহলোকের মায়া ত্যাগ করে পাড়ি দিয়েছেন পরলোকে। তবে মৃত্যুর পরও ম্যারাডোনার পিছু ছাড়ছে না বিতর্ক।

দিয়েগো ম্যারাডোনার বিরুদ্ধে এবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। কিউবার মাভিস আলভারেজ নামের এক মহিলা সংবাদ সম্মেলন করে দাবি করেছেন, মারাদোনা তাকে ধর্ষণ করেছিলেন। আর্জেন্টাইন তারকা তার শৈশব কেড়ে নিয়েছেন। আলভারেজের দাবি, ২০০১ সালের ঘটনা এটি। সেই সময় ম্যারাডোনার বয়স ছিল ৪০ এবং সেই সময় মাভেসের বয়স ছিল মাত্র ১৬ বছর। আর্জেন্টিনার বিখ্যাত ফুটবলার ম্যারাডোনা গত বছর হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত হয়েছেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬০ বছর। মৃত্যুর পরও বিতর্ক যেন ম্যারাডোনার পিছু ছাড়ছে না।

মাভিস আলভারেজ বলেছেন, তিনি প্রথম একটা সময় মাদকাসক্তির চিকিত্সার জন্য কিউবায় ছিলেন। সেই সময় তার সঙ্গে ফুটবলের রাজপুত্রের প্রথম দেখা হয়। অ্যালভারেজ আরও দাবি করেছেন, মারাদোনা তাকে হাভানার ক্লিনিকে ধর্ষণ করেছিলেন। সেই সময় তার মা পাশের ঘরে ছিলেন। ওই ক্লিনিকে মায়ের সঙ্গে থাকতেন বলে দাবি করেছেন আলভারেজ। তিনি আরও বলেছেন, “ও আমার মুখ চেপে ধরেছিল। তারপর আমাকে ধর্ষণ করে। আমি এটা নিয়ে আর বেশি ভাবতে চাই না। এতগুলো বছর ধরে সেই নির্যাতনের যন্ত্রণা বয়ে বেড়াচ্ছি।”

৩৭ বছর বয়সী আলভারেজ বলেন, বয়সের বিশাল ব্যবধান থাকা সত্ত্বেও তার পরিবার মারাদোনার সঙ্গে সম্পর্ক রাখতে বাধ্য করেছিল। কিউবার প্রয়াত রাষ্ট্রপতি ফিদেল কাস্ত্রোর সঙ্গে মারাদোনার সম্পর্ক ভাল ছিল। আর তাই মারাদোনার সঙ্গে বন্ধুত্বেরজন্য তাঁর পরিবারকে বাধ্য করেছিল কিউবার সরকার।

মাভিস আলভারেজ বলেছেন, “কিউবান সরকার জড়িত না থাকলে আমার পরিবার কখনোই এটা মেনে নিতে পারত না। তারা অন্যভাবে এমন একটি সম্পর্ককে মেনে নিতে বাধ্য হয়েছিল যা তাদের জন্য বা কারও জন্য ভাল ছিল না।” কিউবার সরকার ওই মহিলার অভিযোগের বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি। আলভারেজ বলেছেন, তিনি অভিযোগ দায়ের করেছেন। আরও জানিয়েছেন, তিনি আর্জেন্টিনায় থাকতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সেটাও সম্ভব ছিল না। কারণ আর্জেন্টিনায় মারাদোনা সুপারস্টার। ব্যক্তি হিসেবে মারাদোনা খুবই জঘন্য, এমনও দাবি করেছেন আলভারেজ।

ডি-ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়