সিঙ্গাপুরের আদলে সাজানো হবে জাতীয় চিড়িয়াখানা

আগের সংবাদ

৫৮০ বছর পরে হতে চলেছে এই চন্দ্রগ্রহণ!

পরের সংবাদ

প্রেসিডেন্ট হিসেবে লড়বেন গাদ্দাফি পুত্র

প্রকাশিত: নভেম্বর ১৫, ২০২১ , ৯:২১ পূর্বাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ১৫, ২০২১ , ৯:২১ পূর্বাহ্ণ

লিবিয়ার প্রয়াত স্বৈরশাসক মুয়াম্মার আল-গাদ্দাফির ছেলে সাইফ আল ইসলাম ২৪ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। গাদ্দাফির মৃত্যুর পর জনসম্মুখে সচরাচর দেখা যায়নি তাকে। রবিবার (১৪ নভেম্বর) প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে নিবন্ধনের জন্য তিনি জনসম্মুখে আসেন তিনি।

লিবিয়ার দক্ষিণাঞ্চলীয় সেবা শহরে তিনি মনোনয়ন নিবন্ধন করেছেন বলে দেশটির জাতীয় নির্বাচন কমিশন নিশ্চিত করেছে। খবর বিবিসি, ওয়াশিংটন পোস্ট ও দ্য গার্ডিয়ানের।

মনোনয়নপত্রে সই করার সময় ৪৯ বছর বয়সী সাইফকে সাদা দাড়ি ও চশমা পরা অবস্থায় দেখা গেছে। এ সময় তার পরনে ছিল বাদামি চাদর, যার মিল আছে তার বাবা গাদ্দাফির পোশাকের সঙ্গে। দেশে তার কতটা জনসমর্থন আছে বা তার প্রার্থী হওয়ার আগ্রহ মূলত পশ্চিমা মিডিয়ার উপর নির্ভর করছে কি না সেটিই এখন দেখার বিষয়।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের একটি সংবাদমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে সাইফ বলেন, তিনি লিবিয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়তে চান। সে সময় তিনি বলেন, আমি ১০ বছর ধরে লিবিয়ার জনগণ থেকে দূরে আছি। ধীরে ধীরে তাদের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়ন করতে হবে।

২০১৩ সালে ত্রিপোলির একটি আদালত সাইফসহ গাদ্দাফির শাসনামলের প্রায় ৩০ জন শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাকে ২০১১ সালের অভ্যুত্থানের সময়কার অপরাধের জন্য অভিযুক্ত করা হয়। ওই অভুত্থানে গাদ্দাফি ক্ষমতাচ্যুত ও নিহত হন। পরে ২০১৫ সালে সাইফসহ আটজনের বিরুদ্ধে ফাঁসির আদেশ দেন দেশটির একটি আদালত।

বাবা গাদ্দাফিকে হত্যার পর তাকেই লিবিয়ার পরবর্তী উত্তরসূরি ভেবেছিলেন অনেকে। কিন্তু তা হয়ে উঠেনি। গাদ্দাফির সাত সন্তানের মধ্যে তিনজনকেই হত্যা করা হয়।

২০১১ সালে বিদ্রোহীদের হাতে গাদ্দাফি খুন হওয়ার একদিন পর সাইফও ধরে পড়েন। ২০১৭ সালে বিদ্রোহীদের কবল থেকে মুক্তি পাওয়ার পর সাইফকে আর জনসম্মুখে দেখা যায়নি।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়