অফিস ছুটির পর কর্মীকে ফোন করলে জরিমানা!

আগের সংবাদ

১৬৭ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর দিল ইংল্যান্ড

পরের সংবাদ

ফরাসি উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

প্রকাশিত: নভেম্বর ১০, ২০২১ , ৯:২৬ অপরাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ১০, ২০২১ , ৯:২৬ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশে বিদেশি বিনিয়োগের সুযোগ-সুবিধার কথা তুলে ধরে ফরাসি ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন প্যারিস সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বুধবার (১০ নভেম্বর) দুপুরে প্যারিসে ফ্রান্সের ব্যবসায়ী নেতা ও উদ্যোক্তাদের সঙ্গে এক সভায় এ আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

বাংলাদেশে বিনিয়োগ বান্ধব পরিবেশ ও সুযোগ সুবিধার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, সারা বিশ্বের তুলনায় বাংলাদেশে ফ্রেন্স উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগ এখনো অনেক কম। ফ্রেন্স উদ্যোক্তাদের বাংলাদেশে বিনিয়োগ করে এখানকার বিনিয়োগ সুযোগ-সুবিধা প্রত্যক্ষ করার আমন্ত্রণ জানাই।

বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা) সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর কার‌্যালয়ের সঙ্গে কাজ করে জানিয়ে তিনি বলেন, ফ্রেন্স বিনিয়োগকারীদের সহায়তা করতে পারলে খুশি হবো।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে আপনাদের বিনিয়োগ প্রবেশ অধিকতর সহজ করতে অংশীদার হিসেবে একজন স্থানীয় উদ্যোক্তাকে খুঁজে নিতে পারেন।

ফরাসি উদ্যোক্তাদের বাংলাদেশের সঙ্গে দীর্ঘ মেয়াদী অংশীদারিত্ব গড়ে তোলার আহ্বান জানান সরকার প্রধান।

বাংলাদেশে বিনিয়োগ করলে ফরাসি ব্যবসায়ীরা অধিক লাভবান হবে আশা প্রকাশ করে শেখ হাসিনা বলেন, আমি নিশ্চিত ফ্রেন্স উদ্যোক্তারা তাদের বিনিয়োগের সর্বোচ্চ লাভ ফেরত পাবে।

বাংলাদেশ ব্যবসা এবং বিনিয়োগের আকর্ষণীয় গন্তব্য মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা এ অঞ্চলে সবচেয়ে বন্ধুত্বপূর্ণ বিনিয়োগ বান্ধব পরিবেশে বিনিয়োগ করার আমন্ত্রণ জানাই। আমাদের আইনী ও নীতি কাঠামোতে টেকসই সংস্কারের জন্য উন্মুক্ত। আমাদের শক্তিশীল আইনী ব্যবস্থা বিদেশী বিনিয়োগের সুরক্ষা দেয়।

সারা দেশে ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং ২৮টি হাই-টেক পার্ক স্থাপনের কথা উল্লেখ করে সেখানে দেশী-বিদেশী বিনিয়োগের সুযোগের কথা তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।

বাংলাদেশে বিনিয়োগ করে আঞ্চলিক বাজারগুলোতে প্রবেশ সুবিধার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা বাংলাদেশকে আঞ্চলিক কানেকটিভিটির কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করছি। এ অঞ্চলের সঙ্গে আমাদের সড়ক, রেল, ম্যারিটাইম, জ্বালানি এবং ডিজিটাল কানেকটিভি সত্যিকারের গেইম-চেইঞ্জার হবে।

ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের বড় অর্থনৈতিক কেন্দ্রগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের ভৌগলিক অবস্থান সেতু হিসেবে কাজ করবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

গতকাল ফ্রান্স প্রেসিডেন্ট এবং প্রধানমন্ত্রী সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, গতকালকের আলোচনায় ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এবং প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের সঙ্গে দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নিতে এক মত হয়েছেন।

শেখ হাসিনা বলেন, অর্থনৈতিক অংশীদারিত্বেও দ্বিপাক্ষিক সুসম্পর্কের প্রতিফলন হওয়া উচিত। এক্ষেত্রে আপনাদের সক্রিয় সহযোগিতার অপেক্ষায় আছে বাংলাদেশ।

দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক লাভের ভিত্তিতে ফ্রেন্স ব্যবসায়ীদের উদ্যোগকে স্বাগত জানাতে বাংলাদেশ প্রস্তুত বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সার্বিকভাবে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বাংলাদেশের আর্ত-সামাজিক প্রবৃদ্ধির জন্য সঠিক পরিবেশ সৃষ্টি করেছে। প্রতিবেশী দেশগুলোর তুলনায় আমাদের অঞ্চলটা অধিকতার শান্তিপূর্ণ এবং নিরাপদ।

মহামারী সত্ত্বেও বাংলাদেশের ব্যাপক বিনিয়োগ ও অবকাঠামো প্রকল্পের কার‌্যক্রমের গতি কমাতে পারেনি বলে উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের দীর্ঘ মেয়াদীয় পরিকল্পনা একটি শান্তিপূর্ণ, সার্বজনিন এবং সমৃদ্ধ দেশ গড়া।

২০১৭ সালে প্যারিস সফরের কথা স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০১৭ সালে যেটা বলেছিলাম সেটা এখানে আবার বলছি। ফ্রান্স তার প্রবৃদ্ধিকে ধরে রাখতে বিনিয়োগ প্রয়োজন এবং বাংলাদেশ তার প্রবৃদ্ধিকে ত্বরান্বিত করতে আরও বিনিযোগ ও বাণিজ্য প্রয়োজন। আমরা এক সঙ্গে উভয় দেশের অর্থনীতির জন্য লাভজনক পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে পারি।

বাংলাদেশ এবং ফ্রান্সের মধ্যেকার দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ধারাবাহিক ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। দুই দেশের বাণিজ্য ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে। ফ্রান্স এখন বাংলাদেশের পঞ্চম রপ্তানি গন্তব্য। ২০২৫ সালের মধ্যে বাণিজ্য দ্বিগুণ করতে হবে।

গত এক দশকে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির কথা তুলে ধরেন টানা তিনবারের সরকার প্রধান।

করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও বাংলাদেশ ৫ দশমিক ২১ শতাংশ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করার কথা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এশিয়া প্যাসিফিকে এই প্রবৃদ্ধি সর্বোচ্চ।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের কৌশল হচ্ছে জনগণের মধ্যে জীবন ও জীবিকার মধ্যে ভারসাম্য রক্ষা করে কাজ করা।

আর্ত-সামাজিক ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সফলতার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, সরকারের ব্যাপক উন্নয়ন নীতিমালার কারণে আর্ত-সামাজিক সেক্টরে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করেছে।

তিনি বলেন, ক্ষুধা ও দারিদ্র বিমোচন, নারীর ক্ষমতায়ন, প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবা, বিনামূল্যে গৃহ প্রদান, দুযোর্গ ব্যবস্থপণা এবং সামাজিক সুরক্ষা খাতে বাংলাদেশের অর্জন ব্যাপকভাবে স্বীকৃত।

আগামী বছরের মার্চের মধ্যে ৮০ শতাংশ মানুষকে কোভিড-১৯ টিকার আওতায় আনতে সরকারের পরিকল্পনার কথা জানান প্রধানমন্ত্রী।

বাংলাদেশ থেকে এখন বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংখ্যক আইটি ফ্রিল্যঅন্সার কাজ করছে। আমাদের বেশ কিছু উদ্যোগ আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ পেয়েছে।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়